× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৩ মে ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৩০ রমজান ১৪৪২ হিঃ

সাভারে চাকরিতে পুনর্বহাল ও বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে
১৮ এপ্রিল ২০২১, রবিবার

চাকরিতে পুনর্বহাল ও বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবিতে সাভারের বিরুলিয়ায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন একটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা। শনিবার দুপুরে বিরুলিয়া ইউনিয়নের খাগান এলাকায় অবস্থিত অ্যাপারেলস ভিলেজ লিমিটেড (কাজল গার্মেন্টস) নামক কারখানার সামনে মানববন্ধন করেন ভুক্তভোগী শ্রমিকরা। এ সময় শ্রমিকরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে কারখানাটিতে প্রায় ৫ হাজার শ্রমিক কাজ করে এলেও হঠাৎ করে গত ৯ই মার্চ সন্ধ্যা ৬ টার দিকে কারখানা কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের নোটিশ ছাড়াই বকেয়া বেতন ও পাওনাদি পরিশোধ না করে প্রায় ৫০ জন শ্রমিককে চাকরিচ্যুত করেন। এ সময় জোরপূর্বক তাদের আইডি কার্ডও রেখে দেন কারখানা কর্তৃপক্ষ। চাকরিচ্যুত শ্রমিক ময়না আক্তার বলেন, পবিত্র রমজান ও ঈদের আগে আমাদের কোনো ধরনের নোটিশ ছাড়াই কারখানা থেকে বের করে দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। এ অবস্থায় আমাদেরকে চাকরিতে পুনর্বহাল না করলে রমজান ও ঈদের মধ্যে পরিবার নিয়ে কোথায় যাবো। বিনা কারণে চাকরিচ্যুত করায় আমরা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে গেছি। তাই অনতি বিলম্বে আমাদের চাকরিতে পুনর্বহালসহ বকেয়া বেতনের দাবিতে আমরা আন্দোলনে নেমেছি।  ভুক্তভোগী অপর শ্রমিক শিউলী বেগম বলেন, করোনা মহামারির মধ্যে এমনিতেই অনেক কারখানায় বন্ধ হয়ে গেছে।
এ সময় কোনো কারণ ছাড়াই আমাদেরকে চাকরিচ্যুত করায় চরম অনিশ্চয়তা ও হতাশায় রয়েছি। এ ব্যাপারে কারখানার এডমিন অফিসার মোহাম্মদ নাসির উদ্দীনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। স্বাধীন বাংলা গার্মেন্ট শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি আল কামরান জানান, কারখানাটিতে গত ৯ই মার্চ ৫০ জন শ্রমিককে ছাঁটাই করা হয়। বিনা কারণে এভাবে ঈদের আগে ছাঁটাই করায় শ্রমিকরা আমাদের কাছে সহযোগিতা চাইলে আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর অভিযোগ করেছি। এতেও কোনো ধরনের অগ্রগতি না দেখে কর্মসূচি দিলে কারখানার নিরাপত্তাকর্মীরা নারী শ্রমিকদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদেরকে লাঞ্ছিত করে। পরে মালিকপক্ষ জানান, আগামী ২১শে এপ্রিল আইনগত পাওনাদি পরিশোধের তারিখ  জানানো হবে বলে ঘোষণা দিলে শ্রমিকরা কারখানার গেট থেকে চলে যায়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর