× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৪ মে ২০২১, শুক্রবার, ১ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ
সিলেটে পরকীয়া

জাকারিয়া কারাগারে

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে
১৮ এপ্রিল ২০২১, রবিবার

সিলেটে গ্রেপ্তার হলেন পরকীয়া প্রেমিক জাকারিয়াও। নববধূকে বাড়ি রেখেই তাকে যেতে হলো কারাগারে। তবে জাকারিয়ার কাছ থেকে উদ্ধার হয়নি পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে মেলামেশার সময় রেকর্ড করা অশ্লীল ভিডিও ফুটেজ ও ছবি। পুলিশের ভাষ্য- জাকারিয়ার কাছ থেকে ওই মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হলেও ভিডিও পাওয়া যায়নি। ফুটেজটি মুছে দেয়া হয়েছে বলে জাকারিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। সিলেটের জকিগঞ্জের কামালপুর গ্রামের প্রবাসীর স্ত্রী ফারহানা ও স্থানীয় যুবক জাকারিয়ার পরকীয়া প্রেম এবং পরবর্তী সময় নানা নাটকীয় ঘটনা নিয়ে তোলপাড় চলছে। ঘটনায় পরকীয়া প্রেমিকজুটির দুই পরিবার থেকে পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করা হলে এখন প্রেমিক-প্রেমিকা দু’জনই কারান্তরীণ। তাদের ঘটনা নিয়ে নানা কথাবার্তা রটছে এলাকায়।
জকিগঞ্জ থানা পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে ফারহানার স্বামী আতাব মিয়ার মামলা রেকর্ডের পর পুলিশ জাকারিয়াকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছিল। কিন্তু তার খোঁজ মেলেনি। গত শুক্রবার মধ্যরাতের দিকে জাকারিয়াকে পুলিশ স্থানীয় মোল্লারচক গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় পুলিশ জাকারিয়ার কাছ থেকে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন জব্দ করে। জকিগঞ্জ থানার ওসি আবুল কাসেম জানিয়েছেন, জাকারিয়াকে গ্রেপ্তারের পরপরই তার কাছ থেকে মোবাইল ফোন জব্দ করে তল্লাশি করা হয়। কিন্তু মোবাইল ফোনে ভিডিও ফুটেজ কিংবা ছবি পাওয়া যায়নি। ধারণা করেন- হয়তো মামলা দায়েরের পরপরই নিজেকে রক্ষা করতে জাকারিয়া ভিডিওটি মুছে দিয়েছে। তিনি জানান, মোবাইলটি ফরেনসিক ল্যাবে পাঠানো হবে। যদি কিছু মুছে দেয়া হয় সেটিও জানা যাবে। গ্রেপ্তার হওয়া জাকারিয়াকে গতকাল সকালে জকিগঞ্জ আদালতে সোপর্দ করা হলে তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। এদিকে গ্রেপ্তার হওয়া ফারহানার স্বামী আপ্তাব উদ্দিন আতাব মিয়া জানিয়েছেন, পুরো ঘটনার মূলে রয়েছে একটি ভিডিও ফুটেজ। সেই ভিডিও ফুটেজ দিয়ে তার স্ত্রী ফারহানাকে জিম্মি করে রেখেছিল জাকারিয়া। তার ডাকে সাড়া না দিলে ভিডিও ফুটেজ ইন্টারেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিতো। তিনি জানান, শুধু তাই নয় জাকারিয়া ভিডিও দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে তার স্ত্রীর কাছ থেকে টাকা-পয়সাও হাতিয়ে নিয়েছে। তিনি প্রবাসে থাকাকালে স্ত্রীকে টাকা পাঠাতেন। জাকারিয়া ব্ল্যাকমেইল করে এসব টাকা নিয়েছে। এর বিচারও চান তিনি। জকিগঞ্জের কামালপুর গ্রামে জাকারিয়া ও ফারাহানার বাড়ি। তাদের দু’জনের প্রেমের ঘটনাটি এবারই প্রথম জানাজানি হয়নি। আগে থেকেই তাদের প্রেম কাহিনী এলাকায় রটেছে। কিন্তু কখনোই জাকারিয়ার পরিবার এতে পাত্তা দেয়নি। এবার জাকারিয়া বিয়ে করার পর বিষয়টি নিয়ে মাথা ঘামাতে শুরু করে পরিবার। যার কারণে বিয়ের দিনই তারা পরকীয়ার ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে পুলিশকে বিভ্রান্ত করেন। ফারহানাকে দোষী সাজিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে কারাগারে পাঠানো হয়। জাকারিয়ার পরিবার চেয়েছিলো ঘটনাটি এখানেই শেষ করতে। কিন্তু ফারহানাকে তারা লোহার জিঞ্জির দিয়ে বেঁধে যে ঘটনা ঘটিয়েছে সেটির কারণে পাল্টা মামলার মুখে পড়েছে তারা। ফারহানার স্বামীর দায়ের করা মামলার আসামি হলেন জাকারিয়াসহ তার পরিবারের লোকজন। ১৩ই এপ্রিল বিয়ে করেছিলেন জাকারিয়া। ঘরে তার নতুন স্ত্রী। নববধূকে ঘরে রেখেই জাকারিয়াকে এখন হাজতবাস করতে হচ্ছে। স্থানীয় কামালপুর গ্রামের বাসিন্দারা জানিয়েছেন, জাকারিয়ার কারণে ফারহানার পরিবারের দ্বন্দ্ব প্রায় দেড় বছর ধরে। জাকারিয়ার কারণেই ফারহানা তার স্বামীর বিরুদ্ধে কয়েক মাস আগে থানায় অভিযোগ দিয়েছিলেন। ফারহানা রাগ করে চলে গিয়েছিলেন পিতার বাড়িতে। পরে অবশ্য সামাজিক বিচারের মাধ্যমে ফারহানাকে ঘরে তুলেছিলেন প্রবাস ফেরত আপ্তাব উদ্দিন আতাব। ফারহানাকে ঘরে তোলার পর তিনি জাকারিয়াকে তাদের বাড়িতে যেতে বারণ করে দিয়েছিলেন। কিন্তু সুযোগ পেলেই রেকর্ড করা ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ফারহানাকে ডেকে আনতো জাকারিয়া।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর