× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৪ মে ২০২১, শুক্রবার, ১ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ

মেঘনাঘাট বিদ্যুৎকেন্দ্রের ২৪ ভাগ ইকুইটি শেয়ার কিনেছে নেদারল্যান্ডসের নেব্রাস পাওয়ার

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(৩ সপ্তাহ আগে) এপ্রিল ২০, ২০২১, মঙ্গলবার, ৪:২৫ অপরাহ্ন

বাংলাদেশে ইউনিক মেঘনাঘাট পাওয়ার লিমিটেডের (ইউএমপিএল) শতকরা ২৪ ভাগ ইকুইটি স্টেক বা শেয়ার পেতে ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টস লিমিটেডের (ইউএইচআরএল) সঙ্গে সেল অ্যান্ড পারচেজ এগ্রিমেন্ট (এসপিএ) স্বাক্ষর করেছে নেদারল্যান্ডসের নেব্রাস পাওয়ার ইনভেস্টমেন্ট ম্যানেজমেন্ট (এনপিআইএম)। উল্লেখ্য, ইউনিক গ্রুপ একং স্ট্র্যাটেজিক ফাইন্যান্স লিমিটেডের (এএফএল) অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইউএইচআরএল। বাংলাদেশে বিদ্যুৎ খাতে এটাই প্রথম কোনো অংশীদারিত্ব নেব্রাস পাওয়ারের। এর ফলে উভয় পক্ষই শেয়ারের সুবিধা ভোগ করবে বলে মনে হচ্ছে। পাশাপাশি দক্ষিণ এশিয়ার পাওয়ার মার্কেটে এই চুক্তির ফলে নেব্রাস পাওয়ার প্রথম প্রবেশ করলো। এ খবর দিয়েছে অনলাইন পেনিনসুলা কাতার।

এই বিক্রির বিষয়ে নেব্রাসের পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নাসের আল হাজরি বলেছেন, ইউনিক মেঘনাঘাট পাওয়ার লিমিটেডে শেয়ার পাওয়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের পাওয়ার মার্কেট বা বিদ্যুৎের বাজারে বিষয়টি নেব্রাসের জন্য একটি বাহন হিসেবে কাজ করলো। বাংলাদেশের এই বাজারটিকে আমরা নতুন এক বড় বর্ধিষ্ণু বাজার হিসেবে শনাক্ত করেছি।
ফলে লোভনীয় সুযোগ অব্যাহতভাবে লুফে নিতে এই পারচেজ আমাদের জন্য ম্যান্ডেট এবং অব্যাহত সুযোগ হিসেবে জোরালোভাবে দেখা হবে। এর মধ্য দিয়ে আমাদের পাওয়ার বিষয়ক অ্যাসেট সমৃদ্ধ হবে। নেব্রাসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খালিদ এম জোলো বলেছেন, ইউনিক মেঘনাঘাট পাওয়ার লিমিটেডে শেয়ার নেয়ার ফলে এশিয়া মহাদেশে আমাদের ব্যবসা শক্তিশালী এবং অগ্রসর হবে। উপরন্তু এই পারচেজের ফলে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে মূল্যবান অবস্থানে থেকে সেবা দিয়ে যাবে নেব্রাস। একই সঙ্গে বিশ্বে বিদ্যুৎ বিষয়ক আমাদের বিনিয়োগের বেগ বৃদ্ধি পাবে। কারণ, আমরা এশিয়ায় আমাদের জন্য আরো সুযোগ অব্যাহতভাবে খুঁজে যাচ্ছি। স্বাক্ষরিত চুক্তির অধীনে এই প্রকল্পে নেব্রাস পাবে শতকরা ২৪ ভাগ শেয়ার। অন্যদিকে যৌথভাবে শতকরা ৫৬ ভাগ শেয়ার পাবে ইউএইচআরএল এবং এসএফএল। বাকি যে শেয়ার থাকবে ইউনিক মেঘনাঘাট পাওয়ার লিমিটেডে তা নিয়ন্ত্রণ করবে ইউএইচআরএল, এসএফএল এবং জেনারেল ইলেকট্রনিক্স (জিই)।

এই ক্রয়বিক্রয় পর্যন্ত ইউএমপিএলের শতকরা ৬২.৭৬ ভাগ শেয়ারের মালিক ছিল ইউএইচআরএল। শতকরা ২০ ভাগের মালিক ছিল জিই গ্লোবাল এনার্জি ইনভেস্টমেন্ট। এটি নেদারল্যান্ডের একটি প্রতিষ্ঠান। যা নেদারল্যান্ডের জেনারেল ইলেকট্রনিক্সের পূর্ণাঙ্গ মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া শতকরা ১৭.২৪ ভাগ শেয়ার ছিল স্ট্র্যাটেজিক ফাইন্যান্স লিমিটেডের (এসএফএল)। একটি প্রকল্প কোম্পানি হিসেবে বিডিডিবির সঙ্গে ইউএমপিএলের আছে পাওয়ার পারচেজ এগ্রিমেন্ট (পিপিএ)। তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (টিজিটিডিসিএল) গ্যাস সাপ্লাই এগ্রিমেন্ট (জিএসএ) অনুসরণ করে চলে তা।

২০১৮ সালে স্থাপিত হয়েছে ইউএমপিএল নামের পাওয়ার প্রকল্প কোম্পানি। এটি নারায়াণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁওয়ে মেঘনাঘাটে ৫৮৪ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন গ্যাস/আরএলএনজি চালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র। ঢাকা থেকে এর অবস্থান ২৭ কিলোমিটার পূর্বে। বাংলাদেশে এটাই হবে সবচেয়ে বড় ইন্ডিপেন্ডেন্ট পাওয়ার প্রডিউসার (আইপিপি) প্রকল্পগুলোর অন্যতম। এর কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে ২০২২ সালের মধ্যে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর