× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৫ মে ২০২১, শনিবার, ২ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ
হেফাজতের বিবৃতি

খালেদা জিয়ার সঙ্গে বাবুনগরীর কোন বৈঠক হয়নি

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(৩ সপ্তাহ আগে) এপ্রিল ২১, ২০২১, বুধবার, ২:৩৪ অপরাহ্ন

রাজধানীর মতিঝিলের শাপলা চত্বরের ঘটনার এক সপ্তাহ আগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে হেফাজতের বর্তমান আমীর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর গোপন বৈঠকের যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে, তার প্রতিবাদ জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। বুধবার সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ওই সংবাদকে মিথ্যাচার বলে দাবি করেছে সংগঠনটি।
হেফাজতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর হাফেজ মাওলানা তাজুল ইসলামের পক্ষে এই প্রতিবাদ পাঠানো হয়েছে। যেখানে মাওলানা তাজুল ইসলাম বলেন, হেফাজতের শীর্ষ নেতৃত্বকে কলঙ্কিত করতে মুফতি ফখরুল ইসলামের কাছ থেকে পুলিশ মিথ্যা স্বীকারোক্তি নিয়েছে। এই স্বীকারোক্তি একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় শীর্ষ আলেমের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছুই নয়। দেশবাসী এমন মিথ্যা স্বীকারোক্তি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে।
তিনি আরও বলেন, হেফাজত আমীরের কাছ থেকে আমি জেনেছি- ২০১৩ সালে রিমান্ডে পুলিশকে বলেছেন, খালেদা জিয়ার সঙ্গে বাবুনগরীর কোনোদিন সামনা-সামনি দেখা পর্যন্ত হয়নি। অথচ মুঈনুদ্দীন রুহি ও ফখরুল ইসলাম এ বিষয়ে মিথ্যাচার করেছেন। তারা এই দাবির স্বপক্ষে কোনো প্রমাণ হাজির করতে পারবে না।

মাওলানা তাজুল ইসলাম বলেন, রমজান মাসে আলেম-ওলামার ওপর পুরনো মিথ্যা মামলা সচল করে দমন-পীড়ন চালানো হচ্ছে। গুটিকয়েক নীতি-আদর্শচ্যুত সাবেক নেতাকে এতে দাবার গুটি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।
অথচ ২০১৩ সাল বেশি দিন আগের ঘটনা নয়। এখনও ইন্টারনেটে সার্চ দিলে সহজেই জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত তখনকার সংবাদে খুঁজে পাওয়া যাবে, সে সময় কোন নেতার কী ভূমিকা ছিল।
প্রতিবাদলিপিতে সরকার ও প্রশাসনের প্রতি আলেম-ওলামাদের ওপর দমন-পীড়ন, মিথ্যা মামলা এবং অপবাদ বন্ধের দাবি জানান মাওলানা তাজুল ইসলাম।
উল্লেখ্য, হেফাজতের তৎকালীন ঢাকা মহানগর প্রচার সম্পাদক মুফতি ফখরুল ইসলামের আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির বরাতে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয় যে, ৫ই মে শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলাম অবরোধ কর্মসূচি পালন করতে যাওয়ার ঠিক এক সপ্তাহ আগে খালেদা জিয়ার সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছিলেন হেফাজতের তৎকালীন মহাসচিব ও বর্তমান আমির জুনায়েদ বাবুনগরী।
এ ছাড়া, ৫ মে’র সেই সহিংসতায় তৎকালীন বিএনপি ও জাময়াতের একাধিক শীর্ষ নেতা অর্থ সহায়তা দিয়েছিলেন। সহিংসতায় অংশ নিয়েছিলেন বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরাও।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আদিল
২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ৮:৩৩

হেফাজতের সাথে মিটিং করলে সমস্যা কোথায় ? হেফাজতে ইসলাম ও বিএনপি কি বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষিত রাজনৈতিক দল ? দেশীয় সংবাদমাধ্যমগুলো এমনভাবে সংবাদ প্রচার করে হেফাজতে ইসলাম ও বিএনপির বৈঠক করলে সেটা নাপাক হয়ে যায় । ইন্ডিয়ার রাষ্ট্রদূত বিধিবহির্ভূতভাবে আওয়ামী লীগ অফিসে গেলে কোন অন্যায় হয় না ! মিডিয়া সেখানে একটা শব্দ পর্যন্ত উচ্চারণ করে না ! আমরা কোথায় বাস করছি ? বিএনপি বা খালেদা জিয়াকে নিষিদ্ধঘোষিত রাজনৈতিক দল ও নেত্রী তার সাথে মিটিং করা যাবে না ! আল্লামা শফীর সাথে প্রধানমন্ত্রীর মিটিং করলে কোন অসুবিধা হয় না ! অদ্ভুত ! উদ্ভট উটের পিঠে চলেছে স্বদেশ !

মনজুর কাদের
২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ৪:২৫

হেফাজতের ওপর মানুষের বিশ্বাস কমে গেছে। এরা আজ যেটা অস্বীকার করে , কাল দেখা যায় সেটা সত্য। হেফাজত করতে যেয়ে আমাদের ধর্মীয় নেতারা সব মিথ্যাবাদি হয়ে গেছে।

Mohamed Ali Bhuiyan
২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ৩:০০

বাবুনগরীর সাথে খালেদা জিয়ার বৈঠক হলে সমস্যা কোথায়? প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রী মরহুম শফি হুজুরের সাথে বৈঠক এবং একই জনসভায় বক্তব্য দিলেন, তখন কোন সমস্যা হয়নি। খালেদা জিয়া বৈঠক করিলে দোষ। অর্থাৎ আওয়ামী লীগ যাহা করে সব ঠিক অন্যরা করলে দোষ। আমরা আওয়ামী মগের মুল্লুকে বাস করছি।

No name
২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ২:৫৮

Chief Adviser of BNP(Every day BNP addicted 24 hours) comment/Advice the people?

নূর মোহাম্মদ এরফান
২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ২:৪৭

সত্যের জয় হোক মিথ্যা নিপাত যাক

জামশেদ পাটোয়ারী
২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ৩:১৪

মুল টার্গেট বিএনপি। কারণ একটি সুষ্টু ভোট হলেই মানুষ বিএনপিকেই ভোট দিবে। তাই হেপাজতের জ্বালাও পোড়াও এর সাথে বিএনপিকেও যদি জড়ানো যায় তাহলেই লাভ।

অন্যান্য খবর