× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৫ মে ২০২১, শনিবার, ২ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ

আত্মগোপনে থেকে কোম্পানি মালিকের বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা

বাংলারজমিন

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
২৩ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার

সিরাজগঞ্জে পাওনা টাকা চাওয়ায় নিজে আত্মগোপনে থেকে লিলি মার্কেটিং কোম্পানি লিমিটেডের মালিক সোহাগের নামে মিথ্যা অপহরণ মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়ে নিজে অন্য কোম্পানিতে চাকরি করছেন। মিথ্যা ও সাজানো অপহরণ মামলা দায়েরের দুই মাস পর কথিত অপহৃত আতিকুল ইসলাম আতিক (২৩)কে গত বুধবার ঢাকার নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানার ভুলতা এলাকার এনজেড টেক্সটাইল গ্রুপ লিমিটেডে কর্মরত অবস্থায় উদ্ধার করেছে সিরাজগঞ্জ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। আতিকুল ইসলাম আতিক সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের ধুকুরিয়া দক্ষিণপাড়া গ্রামের নেজাব আলীর ছেলে। গতকাল দুপুরে সিরাজগঞ্জ পিবিআই কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সিরাজগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম। সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, আতিক প্রায় ৯ মাস পূর্বে লিলি মার্কেটিং কোম্পানি লিমিটেডের নেমপ্লেট, চাবির রিং, মুকপান, প্লাস্টিক আইডি কার্ড, স্কুল, ব্যাগসহ বিভিন্ন সামগ্রী তৈরিকৃত প্রতিষ্ঠানের সিরাজগঞ্জে মার্কেটিং অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। চাকরি করাবস্থায় মোটা অঙ্কের টাকা আত্মসাৎ করে আতিক জান্নাতুল মার্কেটিং কোম্পানি নামে একটি কোম্পানি খুলে পণ্য বাজারজাত শুরু করে। বিষয়টি লিলি মার্কেটিং কোম্পানির মালিক সোহাগ জানতে পারলে আতিকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে বাকবিতণ্ডা হয়। সেই ফোনের কথাটি রেকর্ড করে পরিবারের সঙ্গে পরামর্শ করে আতিক নিজে আত্মগোপনে থেকে লিলি মার্কেটিং কোম্পানির মালিকের নামে ২০২১ সালের ২০শে জানুয়ারি আতিকের পিতা নেজাব আলী বাদী হয়ে সিরাজগঞ্জ সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ২৬শে জানুয়ারি কোম্পানির মালিক সোহাগকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়। এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে একাধিকবার আতিক ঢাকায় কর্মরত আছেন এমন তথ্য বার বার সোহাগের পরিবারের পক্ষ থেকে দিলেও রহস্যজনক কারণে পুলিশ তা আমলে নেননি। কোনো উপায় না পেয়ে ঘটনাটি পিবিআইয়ের পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করে পরিবার। পরবর্তীতে বিষয়টি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করে পিবিআই। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে পিবিআই টিম নিশ্চিত হয় যে, আতিক নারায়গঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন ভুলতা এলাকায় অবস্থান করছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে গত বুধবার ভুলতা এলাকায় অভিযান চালিয়ে এনজেড টেক্সটাইল গ্রুপ লিমিটেডে কর্মরত অবস্থায় আতিককে উদ্ধার করা হয়।
গতকাল আতিককে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, লিলি কোম্পানি লিমিটেডের মালিক সোহাগকে উপযুক্ত শিক্ষা দেয়ার জন্যই নিজে আত্মগোপনে গিয়ে তার পিতাকে দিয়ে অপহরণ নাটক সাজিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করে।
পিবিআই পুলিশ সুপার আরো জানান, অপহরণের নাটক সাজানো ও একজন নিরপরাধ ব্যক্তিকে মামলা দিয়ে জেলে রাখার অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর