× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৬ জুন ২০২১, বুধবার, ৫ জিলক্বদ ১৪৪২ হিঃ

'পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ২৩শে মে খুলবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান'

শিক্ষাঙ্গন

স্টাফ রিপোর্টার
(১ মাস আগে) এপ্রিল ২৯, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৫:২৮ অপরাহ্ন

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী ২৩শে মে থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে।  পূর্বের এমন সিদ্ধান্তই বহাল রেখেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।  সে মোতাবেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে মন্তব্য করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের (মাউশি) সচিব মো. মাহবুব হোসেন।

আজ বৃহস্পতিবার ‘করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে করোনায় বিপর্যস্ত বাজেট কেমন হওয়া উচিৎ’ শীর্ষক ভার্চুয়াল সংলাপে তিনি আরো বলেন, করোনার মধ্যে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নিতে আমরা টেলিভিশন, অনলাইন ও রেডিওতে ক্লাস সম্প্রচার শুরু করেছি। তার পাশাপাশি মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের বাসায় অ্যাসাইনমেন্টের কাজ দেয়া হচ্ছে।

মাহবুব হোসেন বলেন, করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আগামী বছরের জাতীয় বাজেটে শিক্ষার বরাদ্দ বাড়ানো হবে। বাজেটে শিক্ষাকে অধিক গুরুত্ব দেয়া হবে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে বাজেটের আকার বড় করলেও সমস্যা সমাধান হয় না, এটি ব্যবহারে পরিকল্পনা, সক্ষমতা ও অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
কাজী
২৯ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৭:৪৫

শিক্ষার চেয়ে জীবন মূল্যবান। যত দিন পর্যন্ত দেশ করোনা মুক্ত না হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখাই সঠিক সিদ্ধান্ত।

Md. Abbas Uddin
২৯ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৬:১০

লকডাউন না দিয়েই করনা নিয়ন্ত্রন করা যেত। সেই সহজ পদ্বতিগুলি সামনে স্পষ্ট থাকা সত্ত্বেও সরকার সেই পথে কেন হাঁটছে না তাহা বোধগম্য নয়। যুগ-যুগ ধরে মহামারী নিয়ন্ত্রনে মাস্ক পরা একটি কার্যকরী ব্যবস্থা হিসাবে প্রমানিত। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক বাস্তবতায় জীবন ও জীবিকা একই সাথে চালাতে চাইলে মাস্ক পরার কোন বিকল্প নাই। তাই মাস্ক পরতে জনগণকে বাধ্য করার জন্য প্রশাসনিক কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। মাস্ক না পড়লে বড় অংকের অর্থদন্ড ও জেলের ব্যবস্থা করতে হবে। এর সাথে শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করতে হবে। পাশা-পাশি করনায় আবেগময় গান সারা দেশে প্রচার করতে হবে। যেমনঃ কবির বিন সামাদ নামক একজন শিল্পির করনার আবেগময় গানের মত গান তৈরি করে সারা দেশে জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করে প্রচারের ব্যবস্থা করা উচিত। আর সময় নষ্ট করার সুযোগ নেই। দীর্ঘদিন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এভাবে চলতে থাকলে জাতি মেধাশূণ্য হয়ে পড়বে।

অন্যান্য খবর