× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৬ মে ২০২১, রবিবার, ৩ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ

সিলেটে ভাইয়ের লাশ দেখতে গিয়ে সড়কে বোনসহ ৫ জনের মৃত্যু

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে
৩ মে ২০২১, সোমবার
সর্বশেষ আপডেট: ১০:৩৯ পূর্বাহ্ন

জৈন্তাপুরের রূপচেং গ্রামের সাদিয়া বেগম। ভোররাতেই খবর পান ভাইয়ের মৃত্যুর। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে দরবস্তে ভাইয়ের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন। কিন্তু পথিমধ্যে সারি এলাকায় ঘাতক ট্রাক চাপা দেয় সাদিয়া বেগমকে বহনকারী সিএনজি অটোরিকশাকে। এতে ঘটনাস্থলেই পরিবারের চার সদস্যকে সঙ্গে নিয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন সাদিয়া বেগম। সঙ্গে মারা যান সিএনজি অটোরিকশা চালকও। এ ঘটনায় সকাল ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত সিলেট-তামাবিল সড়ক অবরোধ করে রেখেছিলেন এলাকার মানুষ। এ ঘটনায় গোটা উপজেলাজুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
গতকাল সকাল সাড়ে ৬টার দিকে রূপচেং গ্রামের রাস্তা থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশাটি ফেরিঘাট এলাকায় সিলেট-তামাবিল মহাসড়কে ওঠার সময় অটোরিকশাকে ট্রাকচাপা দিলে ঘটনাস্থলেই চারজন ও ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে একজন মারা যান। নিহতরা হলেন পাখিবিল গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক হোসেন আহমদ, একই উপজেলার রূপচেং গ্রামের মৃত জামাল আহমদের স্ত্রী সাদিয়া বেগম, তার শিশু সন্তান শাহাদত হোসেন, সাবিয়া বেগম ও জামাল আহমদের বোন হাবিবুন্নেছা। এ ছাড়া গুরুতর আহতরা হলেন- রূপচেং গ্রামের মৃত আরজান আলীর ছেলে ও নিহত সাদিয়া বেগমের ভাসুর মো. জাকারিয়া ও জাকারিয়ার স্ত্রী হাসিনা বেগম। জাকারিয়া আহমদের ছেলে দেলোয়ার হোসেন জানিয়েছেন- আমাদের এক আত্মীয়ের মৃত্যু সংবাদ পেয়ে সবাই অটোরিকশাযোগে দরবস্ত এলাকায় যাচ্ছিলেন। ফেরিঘাট এলাকায়
অটোরিকশাটি মহাসড়কে উঠার সময় দ্রুতগামী একটি ট্রাক ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশা ধুমড়ে মুচড়ে যায়। নিহত হাবিবুন্নেসার ভাই মাহমুদ আলী জানিয়েছেন- তিনি দুর্ঘটনার খবর পেয়েই হাসপাতালে ছুটে আছেন। তবে হাসপাতালের নানা জায়গায় খোঁজেও বোনকে না পেয়ে খোঁজ নেন জরুরি বিভাগে। সেখান থেকে জানানো হয় হাসপাতালে আনার পথেই মারা যান হাবিবুন্নেসা। এদিকে- দুর্ঘটনার পর ঘাতক ট্রাক জাফলং অভিমুখে পালিয়ে যায়। স্থানীয় ঘটনার প্রতিবাদে রাস্তায় সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ করেন। বেলা ১০টায় ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে যানবাহন চলাচলের জন্য রাস্তা খুলে দেয়। জৈন্তাপুর থানার ওসি দস্তগীর আহমেদ জানিয়েছেন- ঘটনাস্থলেই ৪ জন নিহত হন ও একজন হাসপাতালে নেয়ার পথে নিহত হন। ওসি বলেন, ঘটনাস্থলে নিহত হওয়ার ৪ জনের মরদেহ পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। দুর্ঘটনার পর ট্রাকচালক পালিয়ে গেছেন বলে জানান তিনি। তবে ট্রাক ও অটোরিকশা জব্দ করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
কাজি
৮ মে ২০২১, শনিবার, ৬:৫১

আন্না লিল্লাহ পড়া ছাড়া কোন মন্তব্য করব না।

অন্যান্য খবর