× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৫ মে ২০২১, শনিবার, ২ শওয়াল ১৪৪২ হিঃ

খাবার পানির জন্য হাহাকার

বাংলারজমিন

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি
৩ মে ২০২১, সোমবার

বরগুনা জেলাজুড়ে ডায়রিয়া পরিস্থিতির ক্রমাবনতি দেখা দেয়ায় মানুষ যখন শঙ্কিত ঠিক তখনই খাবার পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। প্রতিবছর পুরো এপ্রিল মাসজুড়ে এ অঞ্চলে সুপেয় পানির চরম সংকট লেগে থাকে।
বরগুনার অন্যান্য উপজেলায় গভীর নলকূপ স্থাপন করা হলেও পাথরঘাটার কাঁঠালতলী, চরদুয়ানী ও সদর ইউনিয়নসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় কোনো রকমের খাবার পানির স্থায়ী সমাধান করা হয়নি। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন এনজিও পানি শোধন করে এই অঞ্চলের গণমানুষের চাহিদা মেটাবার চেষ্টা করলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।
অস্থায়ীভাবে ভুক্তভোগীদের পানির তৃষ্ণা মেটাবার জন্য বুধবার থেকে ভ্রাম্যমাণ একটি গাড়ি সাড়ে ৩ হাজার লিটার নিরাপদ সুপেয় পানি নিয়ে ছুটে চলছে গৃহস্থের দোরগোড়ায়। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এ অঞ্চলে ঠিক এই সময়টায় ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিম্নগামী থাকে। এ কারণে পুকুর ডোবা নালা দিঘিসহ সর্বত্র পানিশূন্যতা দেখা দেয়। খরার কবলে পড়ে গোটা উপকূল। খরা-বন্যার এই দুর্যোগ থেকে জীবন ও সম্পদ রক্ষায় সরকারের পাশাপাশি সকল মানুষ ঐক্যবদ্ধ থেকে কাজ করলে অনেকাংশে এ দুর্যোগ কাটিয়ে ওঠা সম্ভব বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।
বিষয়টি প্রসঙ্গে পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কবির বলেন, পানীয়জলের সংকট কাটাতে ৪৭টি সরকারি পুকুর সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চলছে।
ভোক্তাদের পক্ষে ঠিকাদার দুলাল মিয়া বলেন, পাথরঘাটা পৌরসভার অধিকাংশ মানুষের সুপেয় পানির জন্য মডেল স্কুল সংলগ্ন রিজার্ভ পুকুরই একমাত্র ভরসা। কিন্তু পুকুরটি রক্ষণাবেক্ষণের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় খাবার পানির সংকট আরো তীব্র হচ্ছে।
এদিকে, পাথরঘাটা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী দোলা মল্লিক বলেন, বর্তমান সময়ের এই বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠার জন্য আমরা বিনামূল্যে প্রতিদিন নিরাপদ পানি গাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছি। এ অবস্থা থেকে উত্তরণ না হওয়া অবধি আমাদের কর্মসূচি চলমান থাকবে। এই অঞ্চলের মানুষ খাবার পানির টেকসই বা স্থায়ী সমাধান খুঁজে বের করার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের ঊর্ধ্বতন মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর