× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২০ জুন ২০২১, রবিবার, ৮ জিলক্বদ ১৪৪২ হিঃ

কুয়াকাটা সৈকতে ফের ভেসে এলো মৃত ডলফিন

বাংলারজমিন

কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
১০ মে ২০২১, সোমবার

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে ১০ ঘন্টার ব্যবধানে আবারও ভেসে এসেছে মৃত ডলফিল। রবিবার (০৯ মে) রাত ৯টার দিকে কুয়াকাটা সৈকতের জিরো পয়েন্ট থেকে পশ্চিম দিকে কুয়াকাটা ইসলামপুর দাখিল মাদ্রাসা সংলগ্ন সৈকতে ৪ ফুট দৈর্ঘ্যের একটি মৃত ডলফিল জোয়ারের স্রোতে ভেসে এসে বালুর চরে আটকে পরে। এর আগে ওইদিন সকাল ১১ টার দিকে কুয়াকাটা সৈকতের পশ্চিম দিকে লেম্বুরবন সংলগ্ন সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসে ১০ ফুট লম্বা একটি মৃত ডলফিল। আজ সকাল ৭টা দিকে পৌরসভার মেয়রের নির্দেশে ডলফিন দুটি মাটি চাপা দেয় পরিছন্ন কর্মীরা
স্থানীয়রা জেলেরা জানিয়েছেন, রবিবার সকাল ১১ দিকে জোয়ারের স্রোতে ভেসে আসে ১০ লম্বা ডলফিনটি এবং রাত ৯টার দিকে ৪ ফটু লম্বা ডলফিনটি ভেসে এসে সৈকতের বালুর চরে আটকে পরে। স্থানীয় জেলে আনোয়ার মাঝি বলেন, ‘ভেসে আসা ডলফিনের শীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে জেলেদের জালে আটকে ডলফিন মারা গেছে। তিনি বলেন, ‘এর আগেও বিভিন্ন সময় বেশ কয়েকটি মৃত ডলফিন ও তিমি সৈকতে ভেসে আসে। তবে গত ৩/৪ আগে এগুলো মারা যেতে পারে।
তবে কি কারণে এসব ডলফিন মারা যাচ্ছে তা নিশ্চিত করতে পারেনি মৎস্য বিভাগ।
এদিকে ভেসে আসা ডলফিনের খবর খবর পেয়ে পৌর মেয়র আনোয়ার হওলাদার নির্দেশে পৌর  পরিছন্ন কর্মী সুপার ভাইজার ইউসুফে নেতৃত্বে একদল পরিছন্ন কর্মী নিয়ে  সকাল ৭ টার দিকে সৈকতে থাকা ডলফিন দুটিকে নিরাপদ জায়গায় মাটি চাপা দেয়।  
ওয়ার্ল্ড ফিস বাংলাদেশের এনহ্যান্সড কোস্টাল ফিশারিজ ইন বাংলাদেশ (ইকো ফিশ-২) অ্যাক্টিভিটির পটুয়াখালীর সহকারী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি বলেন, ‘কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরে একশ্রেণির জেলেরা হাজারি বড়শি (দড়ির সঙ্গে ৬ ইঞ্চি পরপর বড়শি পাতা থাকে) ফেলে শাপলাপাতা মাছসহ অন্য প্রজাতির মাছ ধরে থাকেন। দড়ির সঙ্গে বড়শি বাঁধা থাকে ৮০০ থেকে ১ হাজার। বড়শিগুলো মাটির সঙ্গে মিশিয়ে ফেলে রাখা হয়। এসব বড়শি ধারালো হয়। ধারণা করা হচ্ছে, ডলফিন দু’টি এ ধরনের বড়শিতে আটকা পড়ে আঘাত পেয়ে মারা গেছে’।
এ ব্যাপারে পটুয়াখালী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্লাহ বলেন, ‘ঘটনাস্থলে মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তাদের পাঠানো হয়েছে। কি কারণে ডলফিন মারা গেছে সেটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য পোষ্টমর্টেম করার চেষ্টা করা হবে। তবে যদি অবস্থা  বেশি খারাপ হয় তাহলে ডলফিন দু’টি মাটি চাপা দেয়া হবে’।

এ বিষয়ে মৎস্য অধিদপ্তর বরিশালের কোস্টাল অ্যান্ড মেরিন ফিশারিজ প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক মো. কামরুল ইসলাম বলেন, ‘এ ধরনের ডলফিন উত্তর ও দক্ষিণ মেরুর শীতল জল ছাড়া প্রায় প্রতিটি সমুদ্রে পাওয়া যায়। সাধারণত এ ধরনের ডলফিনকে বোতল জাতীয় ডলফিন বলা হয়। এ জাতীয় ডলফিন উপকূলীয় অঞ্চলে বাস করে’।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর