× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৫ জুন ২০২১, শুক্রবার, ১৩ জিলক্বদ ১৪৪২ হিঃ
ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট

কঠিন বিপদ দেখছেন বিশেষজ্ঞরা

প্রথম পাতা

ফরিদ উদ্দিন আহমেদ
১২ মে ২০২১, বুধবার

ঈদে ঘরমুখো মানুষ লকডাউনের সামান্য শিথিলতার সুযোগ নিয়ে ব্যাপকহারে যাতায়াত করছেন। দলবেঁধে গাদাগাদি করে এক জেলা থেকে অন্য জেলায় যাচ্ছেন। কোনো স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা করছেন না তারা। ফলে গ্রামগঞ্জে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বা ধরন ছড়িয়ে পড়ার বেশ আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এতে সামনে কঠিন বিপদ দেখছেন তারা। এইরকম ঝুঁকিপূর্ণ সময়ে এই ভাইরাস দেহে নিয়ে ঈদে ঘরমুখো মানুষ যদি গ্রামে চলাফেরা করেন, তাহলে গ্রামে থাকা পরিবার পরিজনসহ গ্রামবাসী গণহারে আক্রান্ত হতে পারেন বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তিনি একে আত্মহত্যার শামিল বলেও মন্তব্য করেছেন।
জাতীয় পরামর্শক কমিটির অন্যতম সদস্য এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, ঈদে মানুষ শহর থেকে গ্রামে গিয়ে ভাইরাসটি ছড়িয়ে দেয়ার সম্ভাবনা বেশি। এ জন্য ১৪ দিন অপেক্ষা করতে হবে।
আর ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়লে সামনে আমাদের জন্য মহাবিপদ। ভারত তাদের সংক্রমণের পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়েই হিমশিম খাচ্ছেন। আমাদেরকে তাদের থেকে শিক্ষা নিয়ে সতর্কভাবে আগাতে হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, ভ্যাকসিন নিলেও অন্যের সুরক্ষার জন্য মাস্ক পরতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। ঘন ঘন সাবান পানি দিয়ে হাত ধুতে হবে। মানুষকে বেপরোয়া চলাফেরা না করার পরামর্শ দেন এই ভাইরোলজিস্ট। ৯৯ ভাগ নয়, সবার জন্য শত ভাগ মাস্ক পরা অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে। সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।
সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর)’র সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এবং বর্তমানে সংস্থাটির উপদেষ্টা ডা. মুস্তাক হোসেন এই বিষয়ে মানবজমিনকে বলেন, মানুষ যেভাবে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে গ্রামের দিকে ছুটছেন তাতে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট না এলেও সংক্রমণ ব্যাপকহারে ছড়াবে। এতে বিপদ ডেকে আনবে। আর যদি ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট থাকে তাহলে সংক্রমণ আরো দ্রুত ছড়াবে। সেক্ষেত্রে পরিস্থিতি সামাল দেয়া কঠিন হয়ে যাবে। তাই মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে পালন করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বাজায় রাখতে হবে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভিসি অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ মহামারি করোনাভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বা ধরন বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি সামাল দেয়া কঠিন হয়ে যাবে বলে সতর্ক করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, এই ভ্যারিয়েন্টটি খুবই ভয়াবহ। এই ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত একজন থেকে অল্প সময়ের মধ্যে ৪০০ জন আক্রান্ত হতে পারে। ভারতের ভ্যারিয়েন্টটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এ অবস্থায় ভ্যাকসিন নেয়া, প্রয়োজনে দুটি মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি অবশ্যই মেনে চলতে হবে।
সোমবার এক অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক মন্তব্য করে বলেছেন, ঈদে ঘরমুখো মানুষ লকডাউনের সামান্য শিথিলতার সুযোগ নিয়ে যাতায়াত করে সুইসাইড সিদ্ধান্তের শামিল হচ্ছেন। এইরকম ক্রিটিক্যাল সময়ে এই ভাইরাস দেহে নিয়ে ঈদে ঘরমুখো মানুষ যদি গ্রামে চলে ফেরা করেন, তাহলে গ্রামে থাকা পরিবার পরিজনসহ গ্রামবাসী গণহারে আক্রান্ত হতে পারেন বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
নূর মোহাম্মদ এরফান
১৫ মে ২০২১, শনিবার, ৩:২১

আমাদের স্বাধীন বাংলাদেশের চির শত্রু পাকিস্তান‌ ও পাকিস্তানিদেরকে যদিও সুনজরে দেখনা কখনও (যদিও হ‌ওয়া উচিৎ ছিল (নাপাকিস্তান) তবে তাদের একটি বুলি স্বরণীয়। তারা বাঙ্গালীদের কে বলতো ‌‌‌হুজ্জতে বাঙ্গাল। এই কথাটা যে ষোল আনাই খাঁটি এটাতে দ্বিমত করার লোক খুব কমই পাওয়া যাবে বলে মনে হয়।

Md: monir Hossain
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৫:৪১

হায়রে আমরা বাংলাদেশী ------------ করোনা ভারতে সব রেকর্ড ছাড়িয়ে দৈনিক মৃত্যুতে নতুন রেকর্ড ! বাংলাদেশে ফেরি থেকে নামতে গিয়ে ভিড়ের চাপে ৫ জনের মৃত্যু ? আজকের , রহিঙ্গাদের কে পথমে বাংলাদেশ ডুকতে না দেওয়া সরকার কে ইহুদিতে পরিনত করছে এদেশের আবাল জনগনরা , আবার রহিঙ্গাদের অত্যাচারে আবার আবাল জনগন বলছে কিছু লোকের কথা কেন ধরছে সকরকার ? করোনা দেশে যখন অতিমাত্রায় বাড়বে তখন কি বলে অপেক্ষায় থাকুন , যদিও আমারা এ সবের কাম্য নয় ? সৃষ্টি কর্তা আমাদের সহায় হোন,আমিন

Md. Harun al-Rashid
১২ মে ২০২১, বুধবার, ১:২৭

বাঙ্গালির স্বভাবে বাঙ্গালিয়ানার আদিম সংস্কৃতিটা মাঝে মাঝে প্রকাশিত হয়ে যায় বটে। তাই বলে ইংরেজ প্রভুর প্রতি অজন্ম কৃতকৃতার্থ শ্রী নিরোদ সি চৌধুরী মশাইয়ের আত্মঘাতি(!) এই অভিধাটি একেবারে বিদ্বেষ প্রসুত ও আক্রমনাত্বক । নিজের পরাধীনতায় আত্মতুষ্টি খুঁজে নিয়ে প্রিত এ ভারতীয় বৃটিশ বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে তথাকথিত(!) আখ্যা দিয়ে পরিতৃপ্ত ছিলেন। সুতরাং "যে জন বঙ্গে জন্মে হিংসে বঙ্গবানী, সে জন কাহার জন্ম নির্নয় ন জানি"।

Md. Abbas Uddin
১২ মে ২০২১, বুধবার, ১:০১

মুর্খ্য বাংগালী মরার জন্য কেমন প্রতিযোগিতায় নেমেছে ! হায় মানুষ, স্বাধীনতার এত বছরেও সত্যিকারের মানুষ হতে পারল না। এর জন্য সরকার দায়ী। কারন, সরকার অজ্ঞ মানুষদের ব্যর্থ হয়েছে। করনায় জনসচেতনতায় সারা দেশে নিয়মিত ব্যাপক মাইকিং করা উচিত ছিল। কিন্তু আমরা তাহা কোথাও দেখছি না।

mamun
১২ মে ২০২১, বুধবার, ১০:৫৪

We should find out a treatment for the patient with Indian Variant and circulate among all.

Jahir Uddin
১১ মে ২০২১, মঙ্গলবার, ৯:০৮

জনগণেন মধ্যে আত্মসচেতনতা সৃষ্টি করা দরকার।

mahady
১২ মে ২০২১, বুধবার, ১০:০১

সাস্থ মন্ত্রণালয় সব কিছু চেয়ে চেয়ে দেখতেছে ,তাদের কি ক্ষমতা প্রশাসনিক নেই?তারা ইচ্ছা করলেই তাদের ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারে।সামাজিক দুরুত্ব যাতে ঠিক ভাবে মানার বিষয়টি প্রশাসনের নিয়ন্ত্রন করতে হবে।দেশে সকল বাহিনীকে রাস্তায় নামিয়ে অন্তত এইসময় সকল স্বাস্থবিধি মানার ব্যবস্থা করতে হবে।মাস্ক না পরিধান করলে মোটা অংকের জরিমানা করতে হবে।

JESMIN ANOWARA
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৮:০৮

it was very necessary to impose full curfew for three week , but govt, failed

আনিস উল হক
১১ মে ২০২১, মঙ্গলবার, ১২:০১

জবর জাহিল আজব এক জাতি ! প্রয়াত নিরোদ চন্দ্র চৌধুরী ' আত্মঘাতি বাঙালী ' নামের একটি বই লিখেছেন গত শতকে কিন্তু তার প্রমাণ মিলছে এ শতকের বাংলাদেশে !

অন্যান্য খবর