× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৬ জুন ২০২১, বুধবার, ৫ জিলক্বদ ১৪৪২ হিঃ

ফিলিস্তিনিদের বাঁচাতে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুতি সালাহর

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক
১২ মে ২০২১, বুধবার



ইসরায়েলি আগ্রাসনে রক্ত ঝরছে ফিলিস্তিনিদের। আর ফিলিস্তিনিদের কান্না ছুঁয়ে গেছে ফুটবলারদেরও। ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়িয়েছেন লিভারপুলের মিসরীয় ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহ। ইন্টার মিলানের মরোক্কান রাইটব্যাক আশরাফ হাকিমি, বায়ার্ন মিউনিখের লেফটব্যাক আলফোনসো ডেভিস, রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার নূরি সাহিনÑ সবাই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরব হয়েছেন ইসরায়েলের বিরুদ্ধে।

ফিলিস্তিনে হামলা থামানোর জন্য ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে আহ্বান জানিয়েছেন সালাহ। টুইটারে নিজের প্রতিবাদ প্রকাশ করার পাশাপাশি বহু আগে তোলা আল-আকসা মসজিদের সামনে নিজের একটা ছবিও পোস্ট করেছেন লিভারপুলের হয়ে প্রিমিয়ার লীগ ও চ্যাম্পিয়নস লীগজয়ী এই উইঙ্গার। শুধু বরিস জনসনই নন, অন্য প্রভাবশালী বিশ্বনেতাদেরও একই আহ্বান জানিয়েছেন সালাহ। মোহাম্মদ সালাহ লিখেছেন, ‘যে দেশটায় গত চার বছর ধরে আমার বাড়িঘর, সেই দেশের প্রধানমন্ত্রীসহ আরও সব বিশ্বনেতাকে আহ্বান জানাচ্ছি, আপনাদের সামর্থ্যরে সর্বোচ্চটুকু দিয়ে এই নৃশংসতা থামান। নিরস্ত্র, নিরপরাধ মানুষকে নির্বিবাদে হত্যা করা হচ্ছে, এটা থামান।
এখনই। যথেষ্ট হয়েছে।’

আল-আকসা মসজিদ ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের কাছে অন্যতম পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচিত। তবে এটি ইহুদি ধর্মাবলম্বীদের কাছেও একটি পবিত্র স্থান, যাকে তারা টেম্পল মাউন্ট হিসেবে জানেন। সেই মসজিদ প্রাঙ্গণই গত শুক্রবার থেকে রণক্ষেত্রে রূপ নিয়েছে। মূলত, ইসরায়েলের দখল করা এলাকা থেকে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করাকে কেন্দ্র করে সেখানে উত্তেজনা চলছে। জেরুজালেম লাগোয়া এই এলাকা থেকে ফিলিস্তিনি চারটি পরিবারকে ইসরায়েলি সুপ্রিম কোর্ট উচ্ছেদের আদেশ দিতে যাচ্ছেÑ এমন আশঙ্কা থেকে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ চলছিল। শুক্রবার থেকেই বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দিতে ইসরায়েলি পুলিশ তৎপরতা শুরু করে। এরপর দুই পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হয়। গত সোমবার সেটা চূড়ান্ত রূপ নেয়। মসজিদ চত্বর থেকে জোর করে ফিলিস্তিনিদের সরিয়ে দিতে ইসরায়েলি পুলিশ রাবার বুলেট, জলকামান ও সাউন্ড গ্রেনেড ব্যবহার করে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর খবর, মসজিদ চত্বর থেকে ফিলিস্তিনিদের সরিয়ে দিতে ইসরায়েলি পুলিশের চার দিনের অভিযানে এক হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৮-এ দাঁড়িয়েছে। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ১০ শিশুও রয়েছে। এ ঘটনায় ফিলিস্তিনের কট্টরপন্থী সংগঠন হামাস সোমবার মসজিদ চত্বর থেকে পুলিশ প্রত্যাহারের জন্য আলটিমেটাম দেয় ইসরায়েলকে। সেই আলটিমেটাম পার হলে ইসরায়েলের রাজধানী তেলআবিব লক্ষ্য করে রকেট ছোড়ে হামাস।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
milon
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৯:৩৭

if Saudi say attack Israel will be vanish by all Muslim community but they are coward.........they are doll of Satan...

আবু মকসুদ খান যশোর ।
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৭:৫৭

ইসরায়েলের এই বর্বরোচিত জুলুম আমাদের কষ্ট দেয়।ইয়া আল্লাহ্ সকল জাতিকে শান্তি তে বসবাসের হিদায়েত দিন।

Raju
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৪:১০

Muslim unity is solution

মোঃ মাহফুজুর রহমান
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৩:৫৬

পৃথিবীর =180 কোটি মুসলমানদের উচিত একত্রিত হয়ে ফিলিস্তিনিদের বাঁচানোর জন্য পাশে দাড়ানো ।

অন্যান্য খবর