× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৫ জুন ২০২১, শুক্রবার, ১৩ জিলক্বদ ১৪৪২ হিঃ

আলোচনায় বাবুল আক্তারের পরকীয়া, যেভাবে জড়ান সম্পর্কে

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(১ মাস আগে) মে ১২, ২০২১, বুধবার, ৯:৪৪ অপরাহ্ন

একসময়কার বহুল আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তার। নিজ স্ত্রী হত্যার অভিযোগে এখন রয়েছেন রিমান্ডে। অভিযোগ ওঠেছে পরকীয়ার কারণেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটান তিনি। চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানায় দায়ের করা মামলায় নিহত মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন এ অভিযোগ করেন। ভিনদেশি এক এনজিও কর্মী কক্সবাজারে কর্মরত থাকার সময় বাবুল আক্তারের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান। তিনি বর্তমানে সুইজারল্যান্ডে কর্মরত রয়েছেন এমন আলোচনা রয়েছে। তবে তার অবস্থান সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত নয় পুলিশ। বাবুল আক্তার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কক্সবাজার জেলায় চাকরি করার সময় ওই নারীর  সঙ্গে তার পরিচয় হয়।
সেখানে তাদের মধ্যে একটি সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্পর্কের বিষয়টি জানাজানি হয় ২০১৪ সালে। সেসময় বাবুল আক্তার সুদানে জাতিসংঘের মিশনে যান। তখন তার বাসায় দুটি বই উপহার পাঠান ওই নারী। বাংলাদেশে রেখে যাওয়া বাবুলের মোবাইলে একাধিক মেসেজও পাঠান তিনি। একটি বইয়ে ওই নারী লিখেছেন- আমাদের ভালো স্মৃতিগুলো অটুট রাখতে তোমার জন্য এই উপহার। আশা করি এই উপহার আমাদের বন্ধনকে চিরস্থায়ী করবে। ভালোবাসি তোমাকে...। ওই নারী বাবুল আক্তারের সঙ্গে কাটানো সময়ের স্মৃতিচারণও করেন। মিতুর বাবা জানান, এসব ঘটনায় বাবুল ও মিতুর পারিবারিক অশান্তি চরমে পৌঁছে। বাবুলের এ ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করলে তিনি মিতুকে নির্যাতন করেন বলে মিতু মৃত্যুর আগে তাদের জানান।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Md. Harun al-Rashid
১৬ মে ২০২১, রবিবার, ১০:৪২

বাবুল আক্তার নিজ স্ত্রীর হত্যাকান্ডের প্রধান অভিযুক্ত। তার সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের জন্য এই জঘন্য অপরাধটিই যথেষ্ট। কিন্তু ধরা পড়ার পর বাবুলসহ অভিযুক্তদের নামে অন্য যে সকল অভিযোগের ফরিস্তি যুক্ত হতে দেখা যায় তাতে মাঝে মাঝে মনে হয় ঐ সকল কাহিনী রচয়িতাগন কেবল একটা ক্লু পেলেই জগতের সকল অপরাধের দায় তাদের দিতে পারলেই উদ্দেশ্য সফল হয়। প্রশ্ন হলো এমন একটা ঠান্ডা মাথার খুনি পুলিশ বিভাগে এত এত পুরস্কার জিতলো কিভাবে- যখন এ সব নিয়মিত বাহিনীতে সকল পর্যায়ে নিরন্তর পর্যবেক্ষনে রাখা হয়। বিষয়টির প্রতি সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ নজর দেবেন।

মোহাম্মদ আল-আমিন
১৫ মে ২০২১, শনিবার, ৮:৩৮

শুনতেছি, সোনা সিন্ডিকেট চোরাচালানের আটকের দায়ভার এখন এসপি বাবুল আকতারের কাঁধে।

Md Alomgir Chowdhury
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৮:০২

প্রথমে শুনলাম মিতুর পরিবার বললো বাবুল আক্তার কিছুতেই এমন ঘটনা ঘটাতে পারেননা, এর মুলে রয়েছেন বর্তমান তথ্যমন্ত্রী, আর এখন তারা এসব বলতেছে, উনি স্ত্রী হত্যা করেছেন কিনা আল্লাহ ভালো জানেন তবে অনেক পাপ করেছেন উনি, বিএনপি জামাতের অনেক নেতাকর্মীদের রক্ত লেগে আছে উনার হাতে এবং আল্লামা সাঈদীর ফাসীর রায় পরবর্তীতে দেশের জনগণ যখন মাঠে নেমেছিলো তখন চট্রগ্রামে এই বাবুল আক্তারের হাতে অনেক মানুষ হতাহত হয়েছিলেন আর সেই পাপে উনি চাকরি হারালেন স্ত্রী হারালেন অবশেষে স্ত্রী হত্যার মতো মহাপাপ উনার ভাগ্যে জুটেছে, আসল কথা হলো, আল্লাহ ছাড় দেন কিন্তু ছেড়ে দেননা,

Nasim Iqbal
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৫:৪৯

No point demonising this former police officer. It just proves that there is someone more powerful behind this tragic event.

Riaz
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৩:০৪

How funny..before death she told to her father about the tourcher.. then after death how come her father was support babul..and i clearly remember babul was his father in low house after his wife death. If her father knew that babul was not good then as soon as his dougther death why he did not told police.. Now father was knowing everything.. How the funny

Mustafa Ahsan
১২ মে ২০২১, বুধবার, ২:৫৬

ভালো -দেশের সংবাদের প্রবাহে নূতন মাত্রার যোগ ।পাঁচ বৎসর লাগলো এটা বুঝতে যে বাবুল সাহেব পরকিয়ায় মত্ত ছিলেন আর খুনটা উনিই করাইছেন ?বাংলাদেশে ৩৬৫ দিনই দারুন দারুন রোমহরষক ঘটনা এবং গরম সংবাদের উপাত্ত তৈরি করা থাকে ডেইট ওয়াইজ সেগুলি প্রয়জনমতো আপডেট হয়,পরিস্তিতির মোড় ঘোরাতে ।এটা সপ্তাহ খানেক চলবে তারপর জাতি আবার নূতন খবরের পিছনে ছুটবে ।এরমধ্যে সাগর রুনি থেকে বসুন্ধরারা ধরা ছোঁয়ার বাইরেই থাকবে।পরয়জনে জাতির শ্বশুররা বলবেন বাবুলের মতো বাবু দুনিয়ায় দিতীয়টি নেই তার পর আবার সেই শ্বশুরই বলবেন আমার মেয়ে আগেই জানাচ্ছিলো বাবুল তারে নির্যাতন করছে সে বিপদে পড়তে পারে।এভাবেই দেশে Criminal দের Patronise করা হয় ,যার ফলে মানুষজন এখন Traumatise হয়ে Deaf and Dump হয়ে আছে ।এসবে যেন কারো কিছু যায় আসে না এতে করে আমরা কি বুঝতে পারছি -পরের একটি নিরদয় নমরুদ সিমার চেংগিস খান হালাকু খানদের প্রজন্ম তৈরীর ভিত রচনা করে দিয়ে যাচ্ছি যার পরিনাম হবে ভয়াবহ এখনই বাংলাদেশ কিশোর গ্যাংদের সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে।বিচার ব্যাবসতার সচ্ছতা নিশ্চিত হওয়া একটা সভ্য সমাজের Sustained হওয়ার প্রধান স্তম্ভ।

RSM
১৩ মে ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:১১

bogus news

Siddq
১২ মে ২০২১, বুধবার, ১০:৩০

বাংলাদেশের হুলিশ কোনদিন কোন খারাপ কাজ কইততে হারেনো। এই কাম আর মনেলয় CIA লেকেরা কইচচে। বেগগুন ডিরে ধরি রিমানড লাগান।

এ,টি,এম,তোহা
১২ মে ২০২১, বুধবার, ১০:২৮

শুধু এটুকুই? ইংরেজি ভাষায় একথা গুলো সাধারণ ভব্যতা। ওরা সবাইকে তুমি বলে। কারো সাথে আলাপ আলোচনা শেষে বিদায় মুহূর্তে বলে তোমার সাথে কাটানো সময়গুলো স্মৃতি হয়ে থাকবে। বাবুল আক্তারের সাথে আরো গভীর কিছু থাকলে বাবুল আক্তার অবশ্যই ঐ মহিলাকে বলে যেতেন তিনি বিদেশ যাচ্ছেন। ফোন রেখে যাচ্ছেন। বাসায় কিছু না পাঠাতে। আচ্ছা এসব আষাঢ়ে গল্পের লেখক কে? বিশ্বাস যোগ্য কথা বলুন। বাবুল আক্তার খুনি এই কথাগুলো প্রমান করেনা।

MAHMUDUR RAHMAN
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৯:২৪

Unfortunately people of Bangladesh don't trust anymore to Journalist and Police reports...

Abdur Rahim
১২ মে ২০২১, বুধবার, ৯:১৮

আল্লাহ সীমা লংঘন কারীকে পছন্দ করেননা। এই বাবুলের নির্জাতনের সাক্ষী চট্টগ্রামের মানুষ। আজ নিজেই আসামীর কাঠগড়ায়।

অন্যান্য খবর