× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৫ জুন ২০২১, মঙ্গলবার, ৪ জিলক্বদ ১৪৪২ হিঃ

কুলিয়ারচরে মাদকাসক্ত নাতির হাতে নানি খুন

বাংলারজমিন

কুলিয়ারচর (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
১৩ মে ২০২১, বৃহস্পতিবার

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে মাদকাসক্ত নাতি শাহিন দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে বৃদ্ধা আপন নানি বুদি বেগমকে। এ সময় বুদি বেগমকে  বাঁচাতে গিয়ে স্থানীয় এক হুজুর ও পল্লী চিকিৎক সহ ২ জন আহত হন।

বুধবার রাত ৮ টার দিকে উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের ফরিদপুর গ্রামে হযরত মাওলানা আবু আলী আক্তার উদ্দিন শাহ্ কলন্দর গউস পাক (রঃ) মাজার শরীফ সংলগ্ন স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত বুদি বেগমের (৬০) গ্রামের বাড়ি উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের আমোদপুর গ্রামে। আর নাতির নাম শাহিন (৩৩) বাড়ী পার্শবর্তী ছয়সূতী ইউনিয়নে।

আর আহতরা একই ফরিদপুর গ্রামের স্থানীয় হুজুর এবং পল্লী চিকিৎসক আতাউল্লাহ ও অপর জনের নাম আনিছুর রহমান।

আহতদের উদ্ধার করে বাজিতপুরের ভাগলপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মাওলানা আতাউল্লহর অবস্থা আশংকাজন হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, নিহত বুদি ও তার নাতি শাহিন দুইজনই ওই মাজারের ভক্ত। বুদি বেগম প্রায়ই ওই মাজারে আসতেন এবং ঘটনার দিনও এসেছিলেন। পরে রাত ৮ টার দিকে তিনি মাজারের পশ্চিম পাশের আনিসুর রহমানের ঘর থেকে বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বুদির বেগমের উপর শাহিন হামলা চালায় এবং তাকে দা দিয়ে এলোপাতাড়ি ভাবে কোপাতে থাকেন। এ সময় বুদি বেগমের চিৎকার শুনে মাজারে অবস্থানরত মওলানা আতাউল্লাহ ও আনিসুর রহমান এগিয়ে এসে বুদি বেগমকে রক্ষার চেষ্টা করলে মাদকাসক্ত শাহিন তাদেরকেও এলোপাথাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যার।
এতে ঘটনাস্থলেই বুদির মৃত্যু হয়।

তবে এ ঘটনার কারণ তাৎক্ষণিকভাবে জানা না গেলেও স্থানীয়রা বলছেন, শাহিন একজন মাদকসেবী। মাদকের টাকার জন্য নানির উপর আক্রমণ করে থাকতে পারে। সে এর আগেও তার স্ত্রীকে দা দিয়ে কুপিয়েছে।

ঘটনার সংবাদ পেয়ে ভৈরব সার্কেলের এএসপি ও কুলিয়ারচর থানার ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে রাত ১০ টার দিকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন, ফরিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ শাহ্ আলম।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর