× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৫ জুন ২০২১, মঙ্গলবার, ৪ জিলক্বদ ১৪৪২ হিঃ

‘ওদের মা ডাক শুনে সব ভুলে যাই’

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে
(১ মাস আগে) মে ১৪, ২০২১, শুক্রবার, ১:৫৬ অপরাহ্ন

আমি দুই সন্তানের মা। এখানে আমার আরো ১৪ সন্তান আছে। ওদের মুখ থেকে মা ডাক শুনতে ভালো লাগে। ওরা যখন দৌড়ে এসে আমাকে আম্মু বলে ডাকে তখন খুব ভালো লাগে। ওদের ডাক শুনে সব কষ্ট ভুলে সেবা করি। কথাগুলো বলছিলেন মা-বাবা হারানো সন্তানদের আম্মুখ্যাত হাজেরা বেগম।

ছোট মণি নিবাসের আয়া হাজেরা বলেন, নিজের সন্তানের মতোই ওদের লালন-পালন করি। ওরা তো অসহায়।
আমরা ছাড়া ওদের কেউ নেই। ওরা আমাদের আম্মু ডাকে। আমরাও ওদের নিজের সন্তান হিসেবেই দেখি। দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা ওদের পেছনে শ্রম দিই। ওদের সঙ্গে থাকি। ওদের খাওয়া-দাওয়া, গোসল করানো, খেলাধুলা, স্কুলে পাঠানো, পার্কে নিয়ে যাওয়া সবই আমরা করি। এখানে শিফট অনুযায়ী তিনজন বাচ্চাদের মা-বাবার ভূমিকা পালন করি। একজন এখন মাতৃত্বকালীন ছুটিতে রয়েছে। আমি আর আরেক সহকর্মী মর্জিনা দিনে ও রাতে দায়িত্ব পালন করি।

তিনি বলেন, এক সঙ্গে এতোগুলো বাচ্চার দেখাশোনা করা খুব কষ্টকর। অনেক সময় ধৈর্য হারিয়ে যায়। তারপরও নিজেই নিজেকে বোঝাই। ওরাতো আমাদের দিকেই চেয়ে থাকে। ওরা কোথায় যাবে, কার কাছে যাবে, কে দেখবে? এজন্য ওদের নিজের সন্তানের মতো করে মানুষ করি। ওদের মা-বাবার অভাব কখনো বুঝতে দিই না।

সরজমিন দেখা যায়, সরকারি ছোট মণি নিবাসে ১৪ জন শিশু রয়েছে। নিবাসের মধ্যে একটি কক্ষে শিশুরা লেখাপড়া করছে। আরেকটি কক্ষে তিনটি শিশু ঘুমিয়ে রয়েছে। সেখানে আয়া হাজেরা বেগম এক প্রতিবন্ধী শিশুকে খাইয়ে দিচ্ছে। দুই মাসের এক শিশু হঠাৎ করে ঘুম থেকে উঠে কাঁদতে থাকে। তাকে কোলে নিয়ে পানি দিয়ে গা মুছিয়ে কাপড় পরানো হলো। এরপর তার জন্য খাবার প্রস্তুত করে খাইয়ে দেয়া হয়। এভাবে এখানে থাকা ১৪ জন শিশুর যত্নে আম্মুখ্যাত আয়ারা মায়ের ভূমিকা পালন করছেন।

এখানে কর্মরত তিনজন আয়ার মধ্যে একজন মাতৃত্বকালীন ছুটিতে রয়েছেন। আর বাকি দু’জনের একজন সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। অন্যজন রাত ৮টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। পাশাপাশি পরিচ্ছন্নতাকর্মী, শিক্ষক, নার্স, অফিস সহকারী, চিকিৎসক ও কর্মকর্তারা তাদের দেখভাল করছেন।

ছোট মণি নিবাসের শিক্ষক মোমেনা বেগম বলেন, এসব অনাথ শিশু এখানে এসেছে লেখাপড়া শেখার জন্য। ওদের বর্ণমালা থেকে শুরু করেছি। পরে নতুন বই, খাতা ও পেন্সিল পেয়ে ওরা অনেক খুশি। ওরা অনেক কিছু শিখতে পারছে। ওদের লেখাপড়ার প্রতি অনেক আগ্রহ রয়েছে। ওরা ভবিষ্যতে মানুষ হবে।

ছোট মণি নিবাসের নার্স মোসি বৈরাগি বলেন, যদি কোনো বাচ্চা অসুস্থ হয় তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তাদের সেবা দিয়ে থাকি। কেউ যদি বেশি অসুস্থ হয় তাহলে তাকে মেডিকেলে নিয়ে চিকিৎসা দিতে হয়। সুস্থ হলে আবার এখানে নিয়ে আসি। ২৪ ঘণ্টায় তাদের সেবা দিয়ে থাকি।

নিবাসের উপ-তত্ত্বাবধায়ক আফরোজা সুলতানা বলেন, এখানে যে শিশুরা আসে তারা প্রত্যেকেই আসে আদালতের রায়ের ভিত্তিতে অথবা পুলিশের মাধ্যমে। আইনের সংস্পর্শে আসা শিশুরাই এখানকার নিবাসী। এখানকার এক একটা শিশুর আসার পেছনে মানবিক গল্প রয়েছে। কারও মা হয়তো ১৩ বছর বয়সে ধর্ষণের শিকার হয়েছে। কেউ হয়তো প্রতিবন্ধী হওয়ায় তাকে রাস্তায় ফেলে গেছে। সরকার এই শিশুদের একেবারে আধুনিকভাবে বড় করার সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছেন। তাদের জন্য ২৪ ঘণ্টা সার্বক্ষণিক নার্স, এমবিবিএস ডাক্তার যারা প্রতি সপ্তাহে দুইদিন আসেন এবং প্রত্যেকটি শিশুকে পরীক্ষা করে যান। শিশুরা পড়াশোনা, নাচ, গান, ধর্মীয় শিক্ষা সমস্ত আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছে। শূন্য থেকে ৭ বছর বয়সী শিশুরা এখানে থাকে। সাত বছরের পরে বালক শিশুরা চলে যায় সরকারি শিশু পরিবারে (বালক) এবং মেয়ে শিশুরা চলে যায় সরকারি শিশু পরিবারে (বালিকা)। এসব শিশুদের পুনর্বাসনের ক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে না। ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত তারা সরকারি যাবতীয় সুবিধা পেয়ে থাকে।

তিনি আরো বলেন, এই শিশুদের মায়ের অভাব পূরণে আয়া পদবিধারী এখানকার স্টাফরা রয়েছেন। তারা শিফট অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করে থাকে। আয়াদের পাশাপাশি পরিচ্ছন্নতাকর্মী, নার্স, অফিস সহকারী রয়েছেন। তারাও সেবা প্রদান করে থাকেন। তিনি আরো বলেন, আয়াদের সাপ্তাহিক কোনো ছুটি নেই। এরা সার্বক্ষণিক সেবা দিয়ে থাকে। এমনও আছে দুইজন আয়া সারা বছর একটি দিনও ছুটি কাটাতে পারেনি। তাদের প্রত্যেকেরই পরিবার আছে। প্রত্যেকেরই আত্মীয়-স্বজন আছে। কিন্তু চাকরি ও শিশুদের সেবার জন্য যেতে পারেন না। এটা নিঃসন্দেহে একজন ব্যক্তির অনন্য ত্যাগ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
কাজী
১৪ মে ২০২১, শুক্রবার, ১:৩৫

জীবে দয়া করে যে জন সে জন সেবিছে ঈশ্বর। এরা নির্ঘাত বেহেস্তি

অন্যান্য খবর