× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ১৯ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

এএসআই সৌমেনের বর্বরতার নেপথ্যে কী?

অনলাইন

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
(১ মাস আগে) জুন ১৩, ২০২১, রবিবার, ৫:৩৫ অপরাহ্ন

প্রকাশ্যে গুলি করে এক নারী, তার শিশু সন্তান ও এক যুবককে  হত্যার ঘটনায় হতবাক জেলা সদরের মানুষ। বর্বর এই হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে কী তা জানার চেষ্টা করছেন অনেকে। ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা এএসআই সৌমেন রায়কে আটকে রেখে পুলিশে দিয়েছে। আটকের পর পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সৌমেন জানিয়েছেন, নিহত নারী আসমা তার দ্বিতীয় স্ত্রী। তার প্রথম স্ত্রী এবং সন্তান অন্যত্র থাকেন। কেন হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন এমন প্রশ্নে সৌমেন জানিয়েছেন, বিকাশ কর্মী শাকিলের সঙ্গে আসমার অনৈতিক সম্পর্কের কারণে তিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। তবে আসমাকে নিজের স্ত্রী দাবি করলেও কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেননি সৌমেন। গুলিতে নিহত শিশুটি আসমার প্রথম ঘরের সন্তান।
আসমার প্রথম স্বামীর সঙ্গে বছর দেড়েক আগে ডিভোর্স হয়। এরপর তিনি কুষ্টিয়া শহরে ছেলেকে নিয়ে মায়ের সঙ্গে থাকতেন। এসময় সৌমেন রায় কুষ্টিয়ার হালসা পুলিশ কেন্দ্রে দায়িত্বরত ছিলেন। সেসময় তার বিরুদ্ধে নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগ ওঠে। হালসায় থাকা অবস্থায় আসমার সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে সৌমেনের। তবে দুই জন দুই ধর্মের হওয়ায় তাদের বিয়ে হয়েছে কিনা তা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না। নানা অভিযোগের কারণে সৌমেনকে হালসা থেকে খুলনার ফুলতলায় বদলি করা হয়। এরপর থেকে আসমার সঙ্গে শাকিলের সম্পর্ক গড়ে ওঠে বলে আলোচনা রয়েছে। রোববার বেলা ১১টার পর শহরের পিটিআই সড়কের কাস্টমস মোড়ে আসমা, তার ছয় বছরের ছেলে রবিন ও শাকিল নামের আরেক যুবককে গুলি করে হত্যা করে এএসআই সৌমেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, প্রথমে আসমা তার সন্তানকে নিয়ে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের কাস্টমস মোড়ে তিনতলা একটি ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। পরে বিকাশ এজেন্ট শাকিলও সেখানে যান। এক পর্যায়ে এএসআই সৌমেন সেখানে হাজির হন। তিন জনের কথা বলার এক পর্যায়ে সৌমেন আসমার মাথায় পিস্তল দিয়ে গুলি করেন। পরে শাকিলকে গুলি করার সময় পাশে থাকা আসমার ছেলে রবিন দৌঁড়ে পাশের একটি মসজিদের দিকে যেতে থাকে। সৌমেন তাকে ধরে এনে গুলি করলে শিশুটি মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে সেখানে উপস্থিত জনতা সৌমেনকে আটক করতে ধাওয়া করে। তখন তিনি পাশের মার্কেটের উপরে উঠে যান। সেখানে জনতা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এক পর্যায়ে পুলিশ এসে তাকে আটক করে নিয়ে যায়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Ali Hussain
১৫ জুন ২০২১, মঙ্গলবার, ১২:৩৫

How could such a ruthless person be, why a small child was killed so cruelly, what was his fault?

JESMIN ANOWARA
১৪ জুন ২০২১, সোমবার, ৭:৪০

Awami Govt transforms Bangladesh into Habia Dujock

Shah
১৪ জুন ২০২১, সোমবার, ৩:১৭

সমস্ত পর্যায়ে সংখ্যালঘু হিন্দুদের সংখ্যা গরিষ্ঠতার কূফল জাতি শীঘ্রই উপভোগ করবে। সবেতো শুরু !!

MAJUMDER SANTOSH
১৪ জুন ২০২১, সোমবার, ১১:১৬

প্রকৃত সামাজিক,মানবতা ও রাজনৈতিক নেতৃত্বের অনুপস্থিতিতে নষ্ট আমাদের সমাজ

Salam
১৪ জুন ২০২১, সোমবার, ৯:৫১

পুলিশকে পুলীগ বানানোর কুফল ভোগ করছে জাতি। পুলিশ ও রাজনীতিক প্রমাণ করতে পারেনি তারা কোন অসহায় মানুষের জন্য কাজ করেছে, যেটা করেছে সেটা আরেকটা অপকর্ম থেকে দায়মুক্তির জন্য করেছে।

Ashraful Alam
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৫:৫২

আই ওয়াস। পুলিশের অপরাধের কোন বিচার হয়না তারা জানে। মেজর সিনহা হত্যার ও কোন কিছু হবে না। তারপর আবার দাদা বাবু

Abdur Razzak
১৪ জুন ২০২১, সোমবার, ১:২৭

বাংলাদেশে ৯০% মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ। এদেশে কিভাবে সংখ্যালঘু এত মাস্তানী করে। এবার প্রশাসন হারে হারে টের পাবে।

সৈয়দ মুরাদ
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ১২:১৮

সৌমেনের সাথে আসমার বিয়ে কিভাবে হয়,

হাবিব
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ১০:৫৬

অশ্রধারি সকল পুলিশ কর্মকর্তাদের ৬ মাস পর,পর নিয়মিত মানসিক স্বাস্থ্য পরিক্ষা করা দরকার।

ক্ষুদিরাম
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৭:৩৫

এর আগেও কোন এক ঘটনায় আমি উল্লেখ করেছিলাম প্রশাসনের সমস্ত পর্যায়ে সংখ্যালঘু হিন্দুদের সংখ্যা গরিস্ট নিয়োগের কূফল জাতী শীঘ্রই উপলব্ধি করবে। সবেতো শুরু !!

RATAN
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৬:৫৫

DAY BY DAY WE ARE GOING RI JAHANNAM....WHY THE GOVERMENT DON,T GIVE THEM REAL PUNISH´?????? DIRECT CROSS IN GULISTAN MAIN CENTER.. THX ALLLLL

ঊর্মি
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৬:৩৬

স্বামি-স্ত্রীর নাম থেকেতো মনে হয় আন্তধর্মীয় বিবাহ। আর মায়ের কথা থেকে বোঝা যায় বিয়েটা পারিবারিক ভাবে অনুমোদিত। আমার এই অনুমান যদি ঠিক হয় তাহলে সত্যি সত্যিই আমরা মানবতার উজ্জ্বল পথের দিশারী।প্রকৃত সামাজিক ও রাজনৈতিক নেতৃত্বের অনুপস্থিতিতে নষ্ট অনৈতিক রাজনীতি তথা সামাজিক দৈন্য আমাদের সমাজ তথা দেশটাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে একবার ভাবুন

LISA
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৬:২৬

পুলিশের জবাবদিহিতা না থাকায় আজ এই ফল হচ্ছে

Quazi Nasrullah
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৫:১৪

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সসস্ত্র প্রত্যেক সদস্যকে নিয়মিত (প্রতি মাসে একবার) মানসিক সক্ষমতা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা সময়ের দাবী। উন্নত দেশের মতো আমাদের ও এগিয়ে যেতে হবে।

Dr.Md.Kabiruzzaman
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৬:১২

Bad alarming for us, where we will going, ( Where is canada & where are we)

shiblik
১৩ জুন ২০২১, রবিবার, ৫:৫৫

সৌমেন মানুষিক ভাবে অসুস্থ। সে পুলিশে চাকুরি পেল কি ভাবে?

অন্যান্য খবর