× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৭ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ১৬ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

আবেগি রাতে ফিনল্যান্ডের ইতিহাস

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক
১৪ জুন ২০২১, সোমবার

ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন তখনো হাসপাতালে, লড়াই করছিলেন মৃত্যুর সঙ্গে। সতীর্থরা তখন মাঠে প্রার্থনারত। এমন পরিস্থিতিতে ম্যাচটি সাময়িকভাবে স্থগিত করে উয়েফা। ডেনমার্ককে তারা বিকল্প দেয় ‘বি’ গ্রুপের  ম্যাচটি পরের দিন খেলার জন্য। কিন্তু এরিকসেনকে হাসপাতালে শঙ্কার মধ্যে রেখে ম্যাচটি শনিবারই আবার খেলতে নামে ডেনমার্ক। জার্মান সমপ্রচার সংস্থা স্পোর্টস্টুডিও জানিয়েছিল, হাসপাতাল থেকে এরিকসেন ফেসটাইমে সতীর্থদের সঙ্গে কথা বলেছেন, তাদের ম্যাচ চালিয়ে যেতে অনুরোধ করেছেন। এমন পরিস্থিতিতে ম্যাচটি খেলার ব্যাখাও দিয়েছেন ডেনমার্কের কোচ ক্যাসপার হিউলমান্দ।
এরিকসেনকে নিয়ে দুশ্চিন্তার মধ্যে ম্যাচটি খেলতে নেমে ১-০ গোলে হেরে যায় ডেনমার্ক। ইনফর্ম গোলরক্ষক ক্যাসপার স্মাইকেলের ভুলে গোল হজম করে তারা।
আর অধিনায়ক সাইমন কেয়ার করেন পেনাল্টি মিস। ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে হিউলমান্দ বলেন, ‘আমাদের দুটি বিকল্প ছিল। প্রথমটি ম্যাচটি খেলা আর দ্বিতীয়টি পরের দিন দুপুর ১২টায় (স্থানীয় সময় গতকাল দুপুর ১২টা) খেলা। সবাই ম্যাচটি রাতে খেলতে রাজি হয়ে যায়’। এর কারন ব্যাখ্যা করে ডেনর্মাক কোচ বলেন, ‘এটা ঠিক যে এমন মানসিক অবস্থা নিয়ে আপনি একটি ম্যাচ খেলতে পারেন না। কিন্তু ম্যাচ না খেললেও (এরিকসেনের এমন অবস্থায়) কোনো খেলোয়াড়ই বাড়িতে যেতে পারতো না। তারা ঘুমাতেও পারতো না। এমন অবস্থায় পরের দিন আবার ঘুম থেকে ওঠাই কঠিন হতো।’ মানসিক অবস্থা যেমনই থাকুক, আবার মাঠে নেমে ম্যাচটি জয়েরই চেষ্টা করেছিল ডেনমার্ক। হিউলমান্দ বলেন, ‘আমরা জিততে চেষ্টা করেছি। এমন অবস্থায় দ্বিতীয়ার্ধে খেলতে যাওয়াটা ছিল অন্য রকম একটা ব্যাপার। সত্যি বলতে কী, আমাদের খেলোয়াড়েরা একদম ভেঙে পড়েছিল। আবেগের দিক থেকে ভেঙে পড়েছিল সবাই।’ ডেনমার্কের খেলোয়াড়দের মধ্যে বন্ধনটা যে কতটা দৃঢ়, সেটাও এরিকসেনের এ ঘটনায় প্রমাণ হয়েছে বলে মনে করে হিউলমান্দ বলেন, ‘আমাদের খেলোয়াড়েরা এত ভালো যে আমি প্রশংসার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। এরা একে অপরের প্রতি এতটা যত্নশীল যে আমি গর্ব না করে পারছি না।’
এরিকসেনকে নিয়ে খেলোয়াড়দের আবেগ দেখে মুগ্ধ হিউলমান্দ, ‘ড্রেসিংরুমে খেলোয়াড়েরা যেভাবে কথা বলেছে, সেটা আমার কাছে ভালো লেগেছে। ক্রিস্টিয়ানের বিষয়ে ভালো খবর না পেয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে চায়নি তারা। কঠিন এক মুহূর্ত ছিল সেটি। আমরা সবাই নিজেদের আরও একবার মনে করিয়ে দিয়েছি, ফুটবলের চেয়েও জীবন অনেক বড় ব্যাপার। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে সম্পর্ক, আমাদের পরিবার ও বন্ধু। ক্রিস্টিয়ান আর তার পরিবারের প্রতি শুভকামনা রইলো।’
কোপেনহেগেনে ডেনমার্ককে ১-০ গোলে হারিয়ে ইউরো অভিষেক রাঙিয়েছে ফিনল্যান্ড। বড় কোন আসরে এটিই প্রথম জয় ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ৫৪তে থাকা দলটির।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর