× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৮ জুলাই ২০২১, বুধবার, ১৭ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

ওমান ম্যাচে পরীক্ষাটা জেমিরও

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার
১৫ জুন ২০২১, মঙ্গলবার

ওমান ম্যাচ দিয়ে কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব শেষ হচ্ছে বাংলাদেশের। আর এই ম্যাচ শেষে ইতি ঘটতে পারে বৃটিশ কোচ জেমি ডে’র বাংলাদেশ অধ্যায়! তবে এদিন দল ভালো করলে পাল্টে যেতে পারে দৃশ্যপট।
জামাল-জিকুদের চেয়ে বহুগুণ শক্তিশালী ওমান। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ যেখানে ১৮৪ ওমানের অবস্থান সেখানে ৮০। ‘ই’ গ্রুপে কাতারের সঙ্গে পাল্লা দিয়েই ছুটছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। আট ম্যাচে কাতারের পয়েন্ট ২৩, আর সাত ম্যাচে ওমানের সংগ্রহ ১৫। ওমানের বিপক্ষে মাসকাটে প্রথম লড়াইয়ে বাংলাদেশ হেরেছিল ৪-১ গোলে। দোহায়ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি পরিষ্কার ফেভারিট। বাফুফে চাইছে একটা সম্মানজন ফল।  সেটা পারলে এশিয়ান কাপের প্লে-অফ ম্যাচেও বাংলাদেশের ডাগআউটে দেখা যেতে পারে কোচ জেমি ডেকে।
কিন্তু ওমানের বিপক্ষে সম্মানজনক ফল এনে দেয়ার রসদ কি জেমি ডে’র হাতে আছে? মনে হয় নেই।
আফগানিস্তানের সঙ্গে দুর্দান্ত এক ড্র করে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের দোহা পর্ব শুরু করে বাংলাদেশ। বড় আশা নিয়ে ভারত ম্যাচেও মাঠে নেমেছিল জামাল-জিকুরা। মাঠে সেই আশার প্রতিফলন ঘটাতে পারেনি বাংলদেশ দল। উল্টো ভারতের সঙ্গে  বাজে ফুটবল খেলে ম্যাচে হেরেছে ২-০ গোলে। পরাজয়ের সঙ্গে ওই ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ চার সদস্যকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এরমধ্যে ইনজুরির কারণে ওমান ম্যাচ মিস করছেন মাসুক মিয়া জনি। আর হলুদ কার্ডের কারণে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে খেলতে পারছেন না জামাল ভূঁইয়া, রহমত মিয়া ও বিপলু আহমেদ। এর আগে ভারত ম্যাচে হাতে চোট পেয়ে দেশে ফিরেছেন মিডফিল্ডার সোহেল রানা। দুই গোলরক্ষক ও এই পাঁচজন ছাড়া একাদশ সাজাতে জেমির হাতে আছে ১৭ ফুটবলার। যাদের নিয়ে ওমান চ্যালেঞ্জে নামতে হবে জেমি ডে’র বাংলাদেশকে। যদিও এসবকে খেলার অংশ হিসেবে মেনে নিয়ে জেমি ডে বলেন, ‘আমার হাতে যারা আছে তাদের অভিজ্ঞতা একটু কম হলেও ওমান ম্যাচে তারা শতভাগ দিতে প্রস্তুত আছে। আমি আপতত আমার চাকরির চিন্তা বাদ দিয়ে খেলায় ফোকাস করতে চাই।’
নেপালে ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ফাইনালে জেমির একাদশ ও কৌশল নিয়ে প্রবল সমালোচনা হয়েছিল ফুটবল অঙ্গনে। অনেকের মতে দল নিয়ে কোচের পরীক্ষা-নিরীক্ষার কারণেই শিরোপা হারিয়েছে বাংলাদেশ। এ নিয়ে স্বয়ং বাফুফে সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন সমালোচনা করেছিলেন জেমি ডে’র। এ নিয়ে জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ সরাসরি কিছু না বললেও আকার ইঙ্গিতে তার বিরক্তি বুঝিয়েছেন। সর্বশেষ বাংলাদেশ দলের প্যাররফরমেন্স নিয়ে জানতে চাইলে ১৫ই জুন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেছিলেন বাফুফে বস।  এসব চুলচেরা বিশ্লেষণ করেই কোচের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে বাফুফে। জানা গেছে, আফগানিস্তান ও ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের পর জেমির বিষয়ে বাফুফে নেতিবাচক কিছু ভাবেনি। ওমানের বিপক্ষে ম্যাচ দেখেই একটা সিদ্ধান্ত নিতে পারে দেশের ফুটবলের অভিভাবক সংস্থাটি। বাফুফের এক কর্মকর্তা বলেছেন, ‘জেমিকে নিয়ে এখনও নেতিবাচক কিছু ভাবা হয়নি। একটি ম্যাচ বাকি আছে। দেখি কেমন করে ওমানের বিপক্ষে।’ ২০১৮ সাল থেকে দায়িত্ব পালন করা জেমির সঙ্গে আরও এক বছরের চুক্তি রয়েছে বাফুফের। গত বছর জুনে দুই বছরের চুক্তি নবায়ন করা হয়েছিল। প্রথম বছর শেষ হচ্ছে এই জুনে। এ পর্যন্ত জেমি ডে’র অধীনে ২৬ ম্যাচে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। এতে বাংলাদেশের ১০ জয়ের সঙ্গে আছে চার ড্র।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর