× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৪ জুলাই ২০২১, শনিবার, ১৩ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

‘ফুসফুস ও কিডনি জটিলতার কারণে জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন খালেদা জিয়া’

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
১৫ জুন ২০২১, মঙ্গলবার

ফুসফুস ও কিডনি জটিলতার কারণে বার বার জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা জানাতে গিয়ে সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
তিনি বলেন, চিকিৎসকদের কাছ থেকে যতটুকু জেনেছি তার (খালেদা জিয়া) হার্টের সমস্যা আছে, সেই সমস্যা না গেলে তার লাঞ্চে পানি আসে, সেটা বন্ধ হবে না। যেটা তারা (চিকিৎসক) মনে করছেন যে, কিডনি ইজ নট ফাংশনিং প্রোপারলি। তার লিভারও ঠিকভাবে কাজ করছে না। যে কারণে জ্বর চলে গেলে আবারো আসছে। গতকাল তার জ্বর এসেছিল।
এভারকেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, তারা তাদের সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করছেন। যেটা বার বার করে তারা বলছেন যে, তাকে অ্যাডভান্স সেন্টারে নিয়ে চিকিৎসা করানো উচিত।
খালেদা জিয়ার জন্মতারিখ নিয়ে রিট প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, যে ভদ্রলোক রিটটি করেছেন, তিনি এতে ব্যক্তিগতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না। ওনার জন্মদিনের ব্যাপারে কি আছে না আছে, এটা তো তাদের দায়িত্ব না।’ তিনি আরও বলেন, ‘খেয়াল করে দেখবেন, বাংলাদেশের বহু লোকের কিন্তু জন্মের তারিখ একটা আসল, আর সার্টিফিকেটের তারিখ আরেকটা।
কারণ কী, বিশেষ করে আমাদের জেনারেশনের সময়ে, তখন বাবা-মায়েরা সঠিকভাবে মনেও রাখতে পারতেন না যে, জন্ম কবে হয়েছে। ডায়েরি মেইনটেইন করতেন না। ফলে ওইটা হতে পারে। তো এটা কোনো ইস্যু হতে পারে না।
রাজনীতি না থাকলে এগুলো হয় আর কী- এমন মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, রাজনীতি তো নেই। এখন এ ধরনের বিষয়গুলো তুলে জাতিকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করা, মূল সমস্যাগুলো থেকে জনগণের দৃষ্টিকে অন্যদিকে নেয়ার চেষ্টা করা।...এখন পার্টিকুলার একটি ডেটে কেউ জন্ম নিতে পারবে না, একটা ঘোষণা দিয়ে দিলেই তো হয়ে যায়। হিসাব করেই আপনাকে সন্তানের জন্ম দেয়ার কথা চিন্তা করতে হবে। এ ছাড়া তো উপায় নেই।
হাসপাতালের যে কাগজটির ওপর ভিত্তি করে আদালত খালেদা জিয়ার জন্মতারিখের নথিপত্র চেয়েছেন, সেই কাগজকে ‘ফেক, ফলস’ বলেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, যে বিষয়টাকে তারা সামনে নিয়ে এসেছে, এটা ফেক। এভারকেয়ারের যে রিপোর্টের কথা বলা হয়েছে, এ ধরনের কোনো রিপোর্টই এভারকেয়ার করেনি।
হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের তত্ত্বাবধানে বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসা চলছে। পোস্ট কোভিড নানা জটিলতায় আক্রান্ত হয়ে খালেদা জিয়া গত ২৭শে এপ্রিল বসুন্ধরায় এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন। এর ৬ দিন পরে (৩রা মে) তিনি শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। পরে অবস্থার উন্নতি হলে এক মাস পর গত ৩রা জুন চিকিৎসকদের পরামর্শে খালেদা জিয়াকে কেবিনে ফিরিয়ে আনা হয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর