× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ৫ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার , ২১ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

নরখাদকের নৃশংসতা, যাবজ্জীবন জেল

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) জুন ১৭, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১০:০৫ পূর্বাহ্ন

কথা কাটাকাটির জেরে স্পেনে নিজের মাকে হত্যা করেছে ২৮ বছরের যুবক আলবার্তো সানচেজ গোমেজ। এরপর মায়ের দেহকে টুকরো টুকরো করেছে করাত দিয়ে। কর্তিত মাংসের টুকরোগুলোকে বক্সে করে ফ্রিজে সংরক্ষণ করেছে। বাকি অংশ প্লাটিকের ব্যাগে ভরে ফেলে দিয়েছে ময়লা রাখার বিন-এ। ফ্রিজে রাখা মায়ের দেহ পরের কমপক্ষে ১৫ দিন ভক্ষণ করেছে সে। এ অভিযোগে আলবার্তোকে ২০১৯ সালে গ্রেপ্তার করা হয়। মঙ্গলবার মাদ্রিদ প্রাদেশিক আদালতে এই হত্যাকাণ্ডের মামলার রায় দেয়া হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের জন্য ৫ বছরের জেল দেয়া হয়েছে তাকে।
মৃতদেহকে টুকরো টুকরো করার জন্য ৫ মাসের জেল দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া ক্ষতিপূরণ হিসেবে তার ভাইকে ৭৩ হাজার ডলার দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন সিএনএন। এতে আরো বলা হয়েছে, নিজের মা মারিয়া সোলেদাদ গোমেজের (আদালতের ডকুমেন্টে তার নাম উল্লেখ করা হয়নি) সঙ্গে ওই এপার্টমেন্টে থাকতো আলবার্তো।  সেখানেই ২০১৯ সালে মায়ের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় তার।  মাদ্রিদ প্রসিকিউটর অফিস থেকে বলা হয়েছে, এ কারণেই নিজের মাকে হত্যা করে আলবার্তো। এরপর কাঠমিস্ত্রির করাত ও রান্নাঘরের দুটি চাকু দিয়ে মায়ের মৃতদেহকে টুকরো টুকরো করে। এসব অংশ ঘরের ফ্রিজারে রেখে দেয়। বাকি অংশ প্লাস্টিকের ব্যাগে ভরে ফেলে দেয়। এ ঘটনায় তাকে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি গ্রেপ্তার করা হয়। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর তাকে ‘ক্যানিবাল অব লাস ভেন্টাস’ বা লাস ভেন্টাসের নরখাদক হিসেবে আখ্যায়িত করেছে স্থানীয় মিডিয়া। এর আগে ২০১৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় দু’ব্যক্তিকে একই রকম হত্যাকাণ্ডের জন্য যাবজ্জীবন দেয়া হয়েছে। স্থানীয়রা তাদের বিরুদ্ধে নরখাদকের অভিযোগ এনেছেন। এর আগের বছরে দক্ষিণ আফ্রিকার নিনো মবাথা নামের এক ব্যক্তি মানুষের একটি পা ও একটি হাত নিয়ে হাজির হয় পুলিশ স্টেশনে। পুলিশের কাছে জানায় যে, সে মানুষের মাংস খেতে খেতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছে। মবাথা একটি বাড়িতে নিয়ে যায় পুলিশকে। সেখানে একটি ঘরের ভিতর মানুষের শরীরের অন্যান্য অঙ্গ খুঁজে পায় পুলিশ। কিন্তু পরক্ষণেই সে মানুষের মাংস খাওয়ার কথা অস্বীকার করে। এ ঘটনায় আরেক ব্যক্তি লুঙ্গিসানি মাগুবানে সহ তাকে হত্যাকাণ্ডের জন্য অভিযুক্ত করা হয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
syed Hasrat Zafar
১৭ জুন ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৫:৪৫

he is mentally sick

ম নাছিরউদ্দীন শাহ
১৬ জুন ২০২১, বুধবার, ১০:৫৮

পৃথিবীর নিকৃষ্ট জঘন্যতম ঘটনা নিজের মাকে হত‍্য করে। মকে খেয়ে পেলেন। এগুলো মানুষ নামের ভয়ংকর জানোয়ার। আর কি কি সংবাদ কি কি নৃশংস শিরোনাম শুনতে পাবে পৃথিবীর মানুষ জানিনা। মানুষ আর মানুষের মাঝেই নেই। পশুর চায়তে নিকৃষ্ট হয়ে গেছে। এদের স্থান জাহান্নামের নিকৃষ্ট স্থানে।

অন্যান্য খবর