× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৬ জুলাই ২০২১, সোমবার, ১৫ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

ঢাকা চেম্বারে হচ্ছে ‘ভিয়েতনাম ডেস্ক’

অনলাইন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
(১ মাস আগে) জুন ২০, ২০২১, রবিবার, ৯:৪১ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য উন্নয়নে ভিয়েতনাম দূতাবাস ঢাকা চেম্বার কার্যলায়ে ‘ভিয়েতনাম ডেস্ক’ স্থাপন করবে।

বিনিয়োগ সম্প্রসারণ, বিজনেস টু বিজনেস (বিটুবি) ম্যাচ-মেকিং, ক্রেতা-বিক্রেতার সম্মেলন, বাণিজ্য মেলা আয়োজন, পণ্য ও সেবা কার্যক্রমের আওতা বৃদ্ধিসহ বাংলাদেশি পণ্যের বাজার সম্প্রসারণে যৌথ গবেষণা পরিচালনায়ও একযোগে কাজ করবে দেশটি।

ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) নেতৃবৃন্দ এবং বাংলাদেশস্থ ভিয়েতনাম দূতাবাস কর্মকর্তা পর্যায়ের বৈঠকে বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ লক্ষ্যে ডিসিসিআই সভাপতি রিজওয়ান রাহমান এবং ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত ফাম ভিয়েত চিয়েন নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে একটি সমঝোতা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে রিজওয়ান বলেন, বর্তমানে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ ৬৫ কোটি মার্কিন ডলার। তবে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধি, বাণিজ্য প্রতিনিধিদলের সফর এবং নতুন ব্যবসায়িক সম্ভাবনা খুঁজে বের করতে যৌথ গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করা গেলে এই বাণিজ্যের পরিমাণ আরও বৃদ্ধি করা সম্ভব।

ভিয়েতনাম প্রতিনিধি দলের উদ্দেশ্যে ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে বাংলাদেশে সরকার নানাবিধ সুবিধা প্রদান করছে, যেগুলো গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশে ভিয়েতনামের বিনিয়োগ বাড়ানো সম্ভব।

‘কৃষি, খাদ্য-প্রক্রিয়াজাতকরণ, জাহাজ নির্মাণ, ইলেকট্রনিক্স, চামড়া, পাট, হালকা প্রকৌশল এবং হ্যান্ডিক্রাফ্ট প্রভৃতি শিল্পে ভিয়েতনামের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ করতে পারে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদের প্রযুক্তিগত দক্ষতা উন্নয়নেও ভূমিকা রাখতে পারে। তবে এর জন্য দূতাবাসের সহযোগিতা প্রয়োজন।’

জবাবে ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত ফাম ভিয়েত চিয়েন স্বাক্ষরিত সহযোগিতা স্মারকের কার্যকর বাস্তবায়নের ওপর জোর দেন। বলেন, বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের মধ্যকার সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণ। তবে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্প্রসারণে দুই দেশের উদ্যোক্তাদের যোগাযোগ আরও সুদৃঢ় করতে হবে।

রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণে বেশ কিছু সম্ভাবনাময় খাত রয়েছে, যেখানে দুদেশের উদ্যোক্তারা যৌথভাবে কাজ করতে পারে। এতে উভয় দেশই লাভবান হবে।

ডিসিসিআই ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি এন কে মবিন এবং সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
সুষমা
২০ জুন ২০২১, রবিবার, ৮:৫৫

একটা অনুরোধ রাখলাম যেন কুমিরের চামড়া তুলে নেবার প্রক্রিয়ার শুরুটায় ওমন নিষ্ঠুরভাবে জীবন্ত কুমিরের গায়ে রড ঢুকিয়ে ধীরে ধীরে মৃত্যুর বিষয়টা ভাবা যায় কিনা।অচেতন করে কি ওদের মৃত্যু নিশ্চিত করা যায় না কোনো ভেটেরিনারী চিকিতসকদের মাধ্যমে?

অন্যান্য খবর