× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৪ জুলাই ২০২১, শনিবার, ১৩ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

পলাশবাড়ীতে ভুয়া প্রকল্পের নামে ২১ কোটি টাকা আত্মসাৎ, মামলা

বাংলারজমিন

উত্তরাঞ্চল প্রতিনিধি
২৩ জুন ২০২১, বুধবার

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীর কিশোরগাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের বিরুদ্ধে ১৩২টি ভুয়া প্রকল্পের নামে ২১ কোটি ২০ লাখ টাকা ও ১ লাখ ২৪ হাজার ৪৯৮ টন গম আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে গাইবান্ধা স্পেশাল জজ আদালতে গত সোমবার একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আদালত রংপুর দুর্নীতি দমন বিভাগে ধারা ৪০৬/৪২০ এবং দুর্নীতি দমন আইনে ৫ ধারা মতে তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।
গাইবান্ধা পলাশবাড়ী উপজেলার কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের জাইতর গ্রামের জিয়াউল হক জুয়েল ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম রিন্টুসহ ১১ জন ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে এই দুর্নীতির মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামি ইউপি সদস্যরা হলেন- মমতাজ আলী, মো. রেজাউল, মো. মতলুবর রহমান, রফিকুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক, নওশা মিয়া, রঞ্জনা রাণী মহন্ত, অহেন্দ্র নাথ সরকার এবং সদস্যা এমিলি খাতুন ও মেনেকা।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, ওই ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যরা ২০১৫-২০১৬ অর্থবছর থেকে ২০২০-২০২১ অর্থবছর পর্যন্ত অতি দরিদ্র কর্মসূচির আওতায় ১৮টি, কাবিখা/কাবিটার ৪টি, ইউনিয়নের জন্য ১ শতাংশ বাবদ ২টি, টিআর ১৪টি, শ্রমিকদের নামের তালিকায় ৭৫ শতাংশ আসামিদের নাম অন্তর্ভুক্তকরণ মোট ৩৮টি প্রকল্পের ১ কোটি ১৮ লাখ টাকাসহ সর্বমোট ১৩২টি প্রকল্পের ২১ কোটি ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৩৮০ টাকা এবং ১ লাখ ২৪ হাজার ৪৯৮ টন গম আত্মসাৎ করা হয়। শুধু তাই নয়, আসামিরা অতিদরিদ্র কর্মসূচির আওতায় শ্রমিকদের নামের তালিকায় নিজস্ব লোকজনের নাম অন্তর্ভুক্ত করেও বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর