× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৮ জুলাই ২০২১, বুধবার, ১৭ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

দেবিদ্বারে কবিরাজের পানিপড়া আনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রী

বাংলারজমিন

দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি
২৩ জুন ২০২১, বুধবার

কুমিল্লার দেবিদ্বারে কবিরাজের কাছে পানিপড়া আনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে এক মাদ্রাসাছাত্রী (১৫)। এ ঘটনায় ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ৮ মাস আগে দেবিদ্বার উপজেলার ভানী ইউনিয়নের সূর্যপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, স্থানীয় সূর্যপুর দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণির এক ছাত্রী তার প্রেমিককে বশ করার জন্য পানিপড়া আনতে একই গ্রামের কবিরাজ মো. ইকরাম হোসেন কাননের বাড়িতে যায়। এ সময় সঙ্গে তার খালাতো বোন ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীকে নিয়ে যান। পরে কবিরাজ কানন ওই ছাত্রীকে পানিপড়া দিয়ে বলেন, পানিপড়া খেলে তোমার খালাতো বোনের জন্যও পছন্দের স্বামী ব্যবস্থা করা যাবে। পরে তাকে পছন্দের স্বামী পাইয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে পাশের একটি রুমে নিয়ে ধর্ষণ করেন। অন্তঃসত্ত্বা ওই কিশোরীর মা বলেন, গত রমজান মাসের মাঝামাঝি সময়ে তার শরীরের অস্বাভাবিক পরিবর্তন দেখে জিজ্ঞাসাবাদে এ ঘটনা জানতে পারি।
প্রথমে বিষয়টি পারিবারিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করে কবিরাজ কাননের পরিবার। সাংবাদিক থানা পুলিশ ও আদালতের আশ্রয় নিলে বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিবে বলে হুমকি দিয়েছে। স্থানীয় মো. নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া জানান, ঘটনা মীমাংসার জন্য তিন দফা শালিস ডাকা হয়েছে। কোনো শালিসে উপস্থিত হয়নি কবিরাজ কানন বা তার পরিবারের লোকজন। দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আরিফুর রহমান জানান, এ ঘটনায় এখনও কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর