× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ৩১ জুলাই ২০২১, শনিবার, ২০ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

চলতি বছর দশ কোটি ডোজ টিকা পাবে বাংলাদেশ

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
২৩ জুন ২০২১, বুধবার

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ও টিকা ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানিয়েছেন, চলতি বছরে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে বাংলাদেশ ১০ কোটি ডোজ করোনাভাইরাসের টিকা পাবে। সরকারের বিভিন্ন দপ্তর, মন্ত্রণালয় টিকা কীভাবে আনা যায় তা নিয়ে একসঙ্গে কাজ করছে। সিনোফার্ম ও স্পুটনিক-ভি নিতে পারি কিনা সেটা নিয়ে কথা হচ্ছে। মোটামুটি চূড়ান্ত পর্যায়ে সেগুলো। ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা আসার বিষয়ে তিনি বলেন, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা যেটা আমরা  সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কিনেছিলাম ৩ কোটি ডোজ। সেখান থেকে আমরা ৭০ লাখ পেয়েছি। ২ কোটি ৩০ লাখ ডোজ আমরা ওখান থেকে আরও পাবো।
আমাদের কাছে তথ্য আছে সেপ্টেম্বর থেকে এই টিকাগুলো পাওয়া যাবে। এ ছাড়াও কোভ্যাক্স থেকে আমাদের ২০ শতাংশ জনসংখ্যার জন্য টিকা দেয়ার কথা। যা বিনামূল্যে সরকার পাবে।
তিনি বলেন, এই ডিসেম্বরের মধ্যেই ৬ কোটি ৮০ লাখ ডোজ টিকা দেয়া হবে বলে আমাদের জানানো হয়েছে। ২ কোটি ৩০ লাখ ডোজ আমাদের কেনা টিকা যেটা আমরা সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে পাবো। এ ছাড়াও সিনোফার্ম ও স্পুটনিক থেকে যেভাবে প্ল্যান করা হয়েছে তা যদি সফল হয় সেখানে দেড় অথবা দুই কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার কথা। সব মিলিয়ে এবছরের মধ্যেই আমাদের ১০ কোটির মতো টিকা পেতে পারি।

সিনোফার্মের টিকার বিষয়ে তিনি বলেন, আগামী মাস বা আগামী এক দুই মাসের মধ্যেই টিকা বড় আকারে আসা শুরু হবে এবং ডিসেম্বরের মধ্যে আমরা অনেক টিকাই পেয়ে যাবো।

দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের বিষয়ে তিনি বলেন, দু’ভাবে টিকা উৎপাদনের বিষয় থাকে। একটা বাল্ক দিলে আমরা এখানে ফিল অ্যান্ড ফিনিশ করে সেটাকে মার্কেটে দিতে পারি। আরেকটি হচ্ছে একদমই সিড থেকে তৈরি করা। সব ধরনের বিষয়গুলোই  ভেবে দেখা হচ্ছে, আমরা কীভাবে করতে পারি। আমরা এখন জনসন অ্যান্ড জনসন নিয়েও ভাবছি। এটি যেহেতু এক ডোজ সেক্ষেত্রে আরও বেশি মানুষকে দ্রুত এই টিকার আওতায় আনা সম্ভব হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Ali Hussain
২৪ জুন ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১:০৯

There are no side effects to the Johnson & Johnson vaccine. I have taken the vaccine myself and everyone in our village has been vaccinated, everyone is feeling well.

কাজি
২২ জুন ২০২১, মঙ্গলবার, ৮:১৮

জনসন এণ্ড জনসন আমেরিকা ব্যান্ড করেছে। পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার জন্য। বাংলাদেশ কেন মানুষের জীবন ঝুঁকিপূর্ণ করবে ? টাকা দিয়ে ঝৢঁকি কিনার দরকার কি ? এক ডোজ এটি ও স্বতঃসিদ্ধ ফলাফল নয়। এক বছর পর্যবেক্ষণ করার পর যদি মানুষের শরীরে এন্টিবডি অটুট থাকে তাহলে এক ডোজ অভিমত গ্রহণ যোগ্যতা পাবে।

অন্যান্য খবর