× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৪ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার , ১০ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

কোভিড সারার পর এবার একটা নতুন রোগ সামনে আসছে

শরীর ও মন

সেবন্তী ভট্টাচার্য্য
৬ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার
সর্বশেষ আপডেট: ২:৫৭ অপরাহ্ন

করোনা সেরে যাওয়ার পরেও একের পর এক সমস্যা সামনে আসছে। রোগীদের মধ্যে পোস্ট কোভিড সমস্যা অত্যন্ত মারাত্মক হয়ে উঠছে। সম্প্রতি মাইকোরমিউকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস-এর প্রচুর কেস সামনে এসেছে। এবার একটা নতুন রোগ সামনে আসছে যার নাম অ্যাভাসকুলার নেক্রোসিস -এভিএন। এই রোগকে বোন ডেথ অর্থাৎ হাড়ের মৃত্যু হিসেবে দেখা হয়। এই রোগে হাড় গলতে শুরু করে। এর কারণ হাড়ের টিস্যুতে সঠিক ভাবে রক্ত সঞ্চালন হয় না। মহারাষ্ট্রের রাজধানী মুম্বইতে এই রোগের ইতিমধ্যেই তিনটি কেস সামনে এসেছে।
টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর অনুযায়ী মুম্বইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালে ৪০ বছরের কম বয়সী তিন রোগীর এই মুহূর্তে চিকিৎসা চলছে। কোভিড থেকে সেরে ওঠার পর তাদের এই অসুস্থতার সূত্রপাত। মাহিমের হিন্দুজা হাসপাতালের চিকিৎসক নির্দেশক ডক্টর সঞ্জয় আগরওয়াল বলেছেন, ''এদের ফিমার বোন (উরুর সবচেয়ে উঁচু হাড়) ব্যথা হচ্ছিল, যাঁদের এই অসুবিধা চিহ্নিত হয়েছে তারা সকলেই চিকিৎসক তাই তারা সরাসরি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আসেন। ''এই অসুস্থতা কার্টিকোস্টেরয়েডের কারণে হচ্ছে। কোভিড-১৯ এর কেসে জীবনদায়ী কার্টিকোস্টেরয়েডের বেশি ব্যবহারের জন্য এই এভিএনের মামলা সামনে আসছে। এই রোগের বৃদ্ধিও হবে। জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা।  রিপোর্ট অনুযায়ী কিছু অর্থপেডিক স্পেশালিস্ট অর্থাৎ অস্থি বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন কোভিডের পর বেশ কিছু রোগীর মধ্যে এই সমস্যা হচ্ছে। সিভিল হাসপাতালের এক চিকিৎসক জানিয়েছেন, ''যে রোগী দীর্ঘদিন কোভিডে আক্রান্ত রয়েছেন তাঁদের চিকিৎসার জন্য স্টেরয়েড প্রয়োজন, তখন এটা চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়াচ্ছে। সামনের এক-দু মাসে এরকম আরও কেস সামনে আসতে পারে। কারণ কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ওয়েভের সময় এপ্রিল থেকে বিভিন্ন জায়গায় রোগীদের সারাতে প্রচুর পরিমাণে স্টেরয়েড ব্যবহার করা হয়েছে। তাই এই ধরণের সমস্যা আরো বাড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর