× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ৩ অক্টোবর ২০২২, সোমবার , ১৮ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

কতদিন একটা মানুষ বাঁচতে পারে প্রকৃতির নিয়মে?

রকমারি

সেবন্তী ভট্টাচার্য্য
৬ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার

কতদিন একটা মানুষ বাঁচতে পারে প্রকৃতির নিয়মে? সে ব্যাপারে রেকর্ড করেছেন ফ্রান্সের জিন কালমেট। তিনি ১৯৯৭ সালে যখন মারা গেলেন- তাঁর বয়স মাত্র ১২২ বছর ১৬৪ দিন। আমার-আপনার মতো কেউ এই স্বপ্ন দেখতে পারবে না। আমরা তো চল্লিশ পেরোলেই চালশে, তবে কালমেটের বয়স নিয়ে নাড়াচাড়া হচ্ছে গবেষণার জন্য । রিসার্চ বলছে মানুষ ১৫০ বছরও বাঁচতে পারে। সেই জন্যে পরিবেশ তার সহায়ক  হতে হবে । ১৫০ বছর বাঁচার কথা শুনে যাঁদের হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে, তাঁরা এই লেখাটা পরে দেখতে পারেন। জুন মাসের ৩০ তারিখ একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে ডেমোগ্রাফিক রিসার্চ জার্নালে।
কাজটি করেছেন, গবেষক মাইকেল পিয়ার্স এবং প্রোফেসর আদ্রিয়ান রাফটেরি। এঁরা ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াশিংটনের গবেষক। গবেষকরা জানাচ্ছেন, ২০২০ থেকে ২১০০ সাল পর্যন্ত বাড়তে থাকবে মানুষের বেঁচে থাকার সময়। ১২২ বছর বাঁচার কালমেটের রেকর্ড ভেঙে যাওয়ার ১০০ % সম্ভাবনা। ১২৪ বছরের আয়ু পেরনোর সম্ভাবনা ৯৯ %। ১২৭ বছরের আ‌য়ু পেরতে পারে ৬৮ %। আর ১৩০ বছরের আয়ু বা আয়ুর আইফেল টাওয়ার স্পর্শ করার সম্ভাবনা থাকছে ১৩ শতাংশ। আরেকটি গবেষণায় উঠে এসেছে মানসিক চাপ, প্রবল ব্যায়াম, অসুস্থ হয়ে পড়ার মতো বিষয়গুলি কীভাবে বয়সকালের উপর প্রভাব বিস্তার করে। সিঙ্গাপুর নির্ভর বায়োটেক সংস্থা গেরো এই গবেষণাটি করেছে। টিম পিরকভ কাজটির নেতৃত্বে ছিলেন। তিনি জানান, 'বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে লড়াই করার ক্ষমতা কমে যায়, এই লড়াইয়ের ক্ষমতা কত দিন থাকছে, তার উপরেই নির্ভর করছে আয়ু। '১০০ বছর বেঁচে আছেন, এমন মানুষজনের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। কিন্তু বয়স ১১০ পেরিয়ে অনেকেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন, ১১০ পেরনোদের সংখ্যাটা তলানিতে ঠেকছে। ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াশিংটনের গবেষকরা যে পদ্ধতির উপর নির্ভর করে ২১০০ সালের আয়ুর হিসেব করেছেন, তা হল বেসিয়ান পরিসংখ্যান, যা একটি সম্ভাবনার তত্ত্ব।অষ্টাদশ শতাব্দীর অঙ্কবিদ থমাস বেসিয়ানের তত্ত্ব এটি। বেসিয়ান গুরুত্বহীন তথ্যকে কী ভাবে পরিসংখ্যান পদ্ধতিতে ব্যবহার করা যায়, তা-ই দেখান।১১০ বছর বয়স পেরোনোর পর ১১৪ বছরে কত জন পৌঁছতে পারেন, কিংবা ১২৭ বছর থেকে ১৩৫ বছরে কত জন পা রাখতে পারেন, এ ব্যাপারে গবেষণায় আলো ফেলা হয়েছে। দেখা গিয়েছে, ১১০ থেকে ১২০ বছর পর্যন্ত বাঁচেন ১০ লাখের মধ্যে এক জন। ৩ কোটি ২০ লক্ষের একজন ১৩৫ বছর বাঁচতে পারেন। কিন্তু ১১০ বছরে পৌঁছতে পারেন এমন মানুষের সংখ্যাটা এর চেয়ে অনেক কম। স্বাভাবিক ভাবেই ১৩৫ বছরে পৌঁছানো মানুষজনের সংখ্যাটা আরও কম হবে বৈকি।গেরো-র গবেষণা থেকে ১৫০ বছর বাঁচার যে অনুমান বেরিয়ে এসেছে, তার পিছনে রয়েছে বড় অসুখ না থাকার মতো বিষয়। স্বাভাবিক ভাবেই কোনও বড় রোগ না থাকা বা নীরোগ মানুষ বেশি দিন বাঁচবেন। সবই নির্ভর করছে প্রতিরোধশক্তির উপর। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে তা কমবেই। একটা সময় গিয়ে শূন্য হয়ে যাবে, এবং মৃত্যু ডেকে আনবে। তবে সব শেষে একটাই কথা বলবো কতদিন বাঁচলেন সেই ভেবে চুল না ছিঁড়ে , কীভাবে জীবনটাকে উপভোগ করা যায় বরং সেটাই ভাবুন।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর