× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার , ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ সফর ১৪৪৩ হিঃ

‘সমঝোতায়’ সিলেট টার্মিনালে পশুর হাট

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে
১৭ জুলাই ২০২১, শনিবার

ভাগ-বাটোয়ারা ‘সমঝোতায়’ এবারো সিলেটের ট্রাক টার্মিনালে ইজারা ছাড়াই বসছে পশুর হাট। এ হাট বসানোর অনুমতি পেতে যাচ্ছেন টার্মিনালের ইজারাদাররাই। মৌখিক নির্দেশনার প্রেক্ষিতে গতকাল শুক্রবার থেকে তারা হাটে পশু ঢুকানোর প্রস্তুতি শুরু করেছেন। তবে হাটের রাজস্বের টাকা রোববার সিটি করপোরেশনের তহবিলে জমা দেবেন বলে জানিয়েছেন টার্মিনালের ইজারাদার পক্ষ। সিলেটে এবার তিনটি পশুর হাট বসানোর অনুমতি পায় সিটি করপোরেশন। গত বুধবার অনুমতি পাওয়ার পর বৃহস্পতিবার ট্রাক টার্মিনালের ইজারা স্থগিত করে কালাপাথর খেলার মাঠ ও মাছিমপুরের কয়েদীর মাঠ ইজারা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। ফলে ট্রাক টার্মিনালের ইজারা আহ্বান করলেও টেন্ডার প্রক্রিয়া স্থগিত করায় এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। গতকাল বিকালে ট্রাক টার্মিনালের ইজারাদার অংশ সিলেট জেলা ট্রান্সপোর্ট মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম মানবজমিনকে জানিয়েছেন, গত বারের মতো এবার ট্রাক টার্মিনালের ইজারা দেয়ায় তাদের পক্ষ থেকে সিটি করপোরেশনের লিখিত আবেদন করা হয়।
আবেদনের প্রেক্ষিতে ট্রাক টার্মিনালকে ইজারার বাইরে রেখে মানবিক কারণে আমাদেরকে পশুর হাট বসানোর দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে মৌখিক নির্দেশনার প্রেক্ষিতে হাট বসানোর প্রস্তুতিও শুরু করেছেন। গতকাল পশুর হাটের যাবতীয় কাজ শেষ করেছেন। আজ শনিবার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে রোববার রাজস্ব ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বাবদ টাকা করপোরেশনের তহবিলে জমা দেবেন বলে জানান। সিলেট পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের একাংশের নেতারা জানিয়েছেন- গত বছরও ভাগ-বাটোয়ারার মাধ্যমে সমঝোতায় ট্রাক টার্মিনালে পশুর হাট বসানো হয়েছিল। এতে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা আপত্তি জানালেও কোনো কাজ হয়নি। এবারো একই ভাবে ইজারা ছাড়াই ট্রাক টার্মিনালে পশুর হাট বসানো হচ্ছে। তারা দাবি করেন- এই হাটের রাজস্ব ও পরিচ্ছন্নতা বাবদ নামমাত্র টাকা সিটি করপোরেশনের কোষাগারে জমা দেয়া হবে। আর বাকি টাকার সিংহভাগ পাবেন হাটের নেপথ্যে থাকা কয়েকজন কাউন্সিলর ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা। এছাড়া রাজনৈতিক নেতাদের কাছে যাবে এই হাটের টাকা। ফলে ভাগ-বাটোয়ারা করে পশুর হাটের টাকা লুটে নিতে সিন্ডিকেট করে এটি ইজারায় দেয়া হয়নি। ‘মানবিকতার’ দোহাই দিয়ে হাটের ইজারা স্থগিত করা হয়েছে বলে দাবি করেন তারা। তারা জানান- ট্রাক টার্মিনাল ট্রাকের জন্য বরাদ্দকৃত জায়গা। এখানে পশুর হাট বসালেও তো টার্মিনালে ট্রাক থাকবে না। এতে নগরীর রাস্তাঘাটে ট্রাক দাঁড় করিয়ে রাখা হবে। দেখা দেবে যানজট। সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী জানিয়েছেন- ‘সিলেটে তিনটি পশুর হাটের মধ্যে দুটি ইজারায় গেছে। ট্রাক টার্মিনালের পশুর হাট নিয়ে এখনো চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি যে সিদ্ধান্ত নেবেন সেটিই পালন করা হবে।’ তিনি জানান- ‘গেলবার যেহেতু টার্মিনালের ইজারাদার অংশই হাটের দায়িত্ব পেয়েছিল; এবার তারাই দায়িত্ব পেতে পারে। এ নিয়ে প্রাথমিকভাবে আলোচনা হয়েছে।’ সিলেটে পশুর হাট নিয়ে গেলবার থেকেই বিতর্কিত হচ্ছেন কাউন্সিলররা। কয়েক জন কাউন্সিলের নেতৃত্বেই এ হাট বসছে বলে অভিযোগ এলেও তারা ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছেন। আর হাটের সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততার বিষয়টি এড়িয়ে যাচ্ছেন। নগরীর ২৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তৌফিক বক্স লিপন জানিয়েছেন, এবারো ট্রাক টার্মিনালে পশুর হাটের কর্তৃত্ব পাচ্ছেন টার্মিনালের ইজারাদাররা। লিখিত আবেদনের পর বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমে চূড়ান্ত করা হয়েছে। তারা রাজস্ব জমা দেয়ার পর হাট বসানো শুরু করবে। এখানে কাউন্সিলর কিংবা সিটি করপোরেশনের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। ‘মানবিক’ দিক বিবেচনা করে হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এদিকে সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় সিটি করপোরেশন থেকে মাত্র একটি হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কোরবানির দিন এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে নগরীর কদমতলী, চণ্ডিপুল, বাবনাসহ কয়েকটি এলাকায় পশুর হাট বসানোর প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর