× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ৫ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার , ২১ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

রাজধানী অনেকটা ফাঁকা, বের হওয়ার পথে ভিড়

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(২ সপ্তাহ আগে) জুলাই ২০, ২০২১, মঙ্গলবার, ১:৩৭ অপরাহ্ন

রাত পোহালেই ঈদ। তাই শিকড়ের টানে বহু মানুষ ঢাকা ছেড়ে এখন গ্রামের পথে রয়েছেন। রাজধানীর ব্যস্ত সড়কগুলো প্রায় ফাঁকা। কিন্তু ঢাকা থেকে বের হওয়ার প্রতিটি পথে যানবাহনের চাপ রয়েছে। কোথাও কোথাও গাড়ির দীর্ঘ সারি। আবার কোথাও কোথাও ধীরগতিতে চলছে গাড়ি। ভোর থেকে যানবাহনের জন্য গাবতলী, সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ী, আবদুল্লাহপুর, মহাখালী, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল, কমলাপুর রেলস্টেশনসহ বিভিন্ন স্থান ও বাসস্টেশনে ঘরমুখী মানুষের ভিড়ও অনেকে। এর মধ্যে সকালে বৃষ্টি এ ভোগান্তি যেন আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।
আজ মঙ্গলবার সারা দিন থেমে থেমে বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে বলে জানাচ্ছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ঢাকা থেকে বের হয়ে বিভিন্ন জেলায় যাওয়ার এই পথগুলোয় যানবাহনের চাপ ও মানুষের ভিড় থাকলেও ঢাকার ভেতরে মানুষের চলাচল সেভাবে দেখা যায়নি। বাজারগুলোয় সকাল থেকে কিছুটা ভিড় লক্ষ্য করা গেলেও অলিগলি বা প্রধান সড়কগুলোয় যানবাহন ও মানুষের চলাচল কম ছিল।

সড়কগুলোয় কোরবানির জন্য কেনা পশুগুলো হেলেদুলে চলছিল। অনেকটা ফাঁকা সড়কে সকাল থেকে গরু-ছাগলের দাপট দেখা গেছে। এ ছাড়া পিকআপে করে কোরবানির পশু পরিবহন করতে দেখা গেছে। ঢাকার ভেতরে সিগনালগুলোয় গাড়ির চাপ ছিল না। ফলে ট্রাফিক পুলিশ অনেকটা আয়েশে সময় কাটিয়েছে।

ঢাকা থেকে ভোলা যাচ্ছিলেন হাসান সরকার। সকাল সাড়ে ৬টার দিকে হাজারীবাগ থেকে ভোলার উদ্দেশে রওনা দেন।  হাসান বলেন, লঞ্চে ভোলা যাবেন। ঈদ উপলক্ষে সদরঘাট  থেকে অনেক লঞ্চ সকালে ছাড়ে যায়। ফলে যেতে অসুবিধা হবে না। এই প্রতিবেদককে তিনি জানান, সদরঘাট যেতে সড়কে কোনো যানজট ছিল না। তবে রিকশায় ভাড়া বেশি গুনতে হয়েছে তাকে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ১:৫৩

বঙ্গবন্ধু সেতু কি সামলা দিতে অক্ষম। তাহলে আরেকটি সেতুর চিন্তা করা কি যায় ?

অন্যান্য খবর