× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ৫ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার , ২১ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ জিলহজ্জ ১৪৪২ হিঃ

নিম্ন মধ্যবিত্ত কি গরিব হয়ে যাচ্ছে?

অনলাইন

সাজেদুল হক
(২ সপ্তাহ আগে) জুলাই ২০, ২০২১, মঙ্গলবার, ৬:২৬ অপরাহ্ন

১৬ মাস হলো। করোনার বিরুদ্ধে লড়ছে বাংলাদেশ। লড়ছে সারা দুনিয়াই। অনেক দেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে এখন বিপর্যয়কর পরিস্থিতি। প্রতিদিনই হচ্ছে মৃত্যু ও শনাক্তের রেকর্ড। অল্পবয়সীদের মৃত্যুর হারও বাড়ছে। বিশেষত জুন মাসের শুরু থেকে এই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।
এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সোসাইটি অব মেডিসিনের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর বলেন, কিছু কিছু জায়গায় মনে হচ্ছে আমরা ভাইরাসের কাছে হেরে যাচ্ছি।

এটা করোনার সরাসরি আঘাতের ফল। কিন্তু কালান্তক এই ব্যাধি শুধু মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েই ক্ষ্যান্ত হচ্ছে না, কেড়ে নিচ্ছে জীবিকাও। টিসিবি’র লাইনে আমরা পাচ্ছি জীবনের নানা গল্প। উচ্চ বেতন পাওয়া চাকরিজীবী  চাকরি হারিয়ে ধুঁকছেন এখন। বেতন কমে গেছে বহু মানুষের। ব্যবসা চলছে না হাজার হাজার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর। গরীবের খাতা থেকে নাম কাটানো বহু মানুষ আবার গরিব হয়ে যাচ্ছেন।

গত পহেলা জুন দৈনিক প্রথম আলো’তে প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হিসাবে, করোনার আগে ২০১৯ সাল শেষে দেশে দারিদ্র্যের হার নেমেছিল ২০ শতাংশে। তখন দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করতেন প্রায় সাড়ে তিন কোটি মানুষ। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, করোনার কারণে গরিব মানুষের সংখ্যা বেশ বেড়েছে। গত এপ্রিল মাসে প্রকাশিত বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (বিআইজিডি) জরিপে বলা হয়েছে, করোনার সময়ে ২ কোটি ৪৫ লাখ মানুষ নতুন করে গরিব হয়েছেন। এর মানে, সাড়ে তিন কোটি পুরোনো গরিবের সঙ্গে নতুন আড়াই কোটি গরিব যুক্ত হয়েছেন। সব মিলিয়ে গরিবের সংখ্যা ছয় কোটির মতো।
এইসব জরিপ অবশ্য মানতে নারাজ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

এটা সত্য করোনার এই আঘাত সবার জীবনে সমান প্রভাব ফেলেনি। অতি ধনীদের আয় কোনো কোনো  ক্ষেত্রে বরং  বেড়েছে। দেশে আমরা বিশ হাজার কোটি কালো টাকা সাদা হতে দেখেছি।  কোটিপতির সংখ্যাও বেড়েছে।

কিন্তু নিশ্চিত করেই বলা যায় এই দল সংখ্যা গরিষ্ঠ নয়। বরং অন্য দলটিই বড়। করোনায় আমরা বহু মানুষকে ঢাকা ছাড়তে দেখেছি। একটি ট্রাক বা পিকআপে কীভাবে তারা জীবনের একটি অধ্যায়ের সমাপ্তি টেনেছেন তার কিছু কিছু চিত্র সংবাদমাধ্যমে এসেছে। চাকরি সংকটের কথা বলেছি আগেই।

লাখ লাখ মানুষ দীর্ঘ প্রচেষ্টায় তাদের জীবনে বদল এনেছিল। করোনা তাদের জন্য নিয়ে এসেছে ভাগ্য বিপর্যয়। জীবন থেমে থাকে না। তারা নিশ্চয় ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন। সরকার ও সামর্থ্যবানদের উচিত তাদের পাশে থাকা। এ আঁধার একদিন কেটে যাবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ৯:৫৫

প্রবাসী টাকার যোগান নাই এরকম মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্ত হয়ে গেছে । বিদেশে প্রতিটি মানুষ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সরকারি সহায়তায় টিকে আছে । টিকে থাকবে । কারণ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সাহায্য অব্যাহত থাকবে । ইতিমধ্যে টিকার দ্বিতীয় ডোজ ৪৩ % ও এক ডোজ ৭০% লোককে দেওয়া হয়ে গেছে । তাই প্রবাসীরা সাহায্য ও করতে পারছেন। বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়ানো কাম্য ।

মোঃ মনিরুজ্জামান
২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ৯:৪২

আ হ ম মুস্তফা কামালরা কখনও নিচে তাকায়? এরা কোটি'র নিচে গুণতি করে না। তাদের ভাবনা ধনীদের নিয়ে। গরিব মরলে জনসংখ্যা কমবে অর্থ সাশ্রয় হবে। এরা সবাই-ই নিজেদের স্বার্থে ব‍্যাস্ত।

Moin Uddin
২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ১০:০২

now medil class is poor 100%

এ,টি,এম,তোহা
২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ৮:৩৬

অন্যের কথা জানিনা, তবে আমি ভালো নেই। ২ ছেলে মেয়ে নিয়ে ৪ জনের সংসার। ভালোই চলছিল। দিনে এনে দিনে খেলেও দায় দেনা তেমন ছিল না। এখন প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ছেলের টিউশন ফি, মেয়ের পড়ালেখার খরচ, বাসা ভাড়া, ঔষধ পত্র, এর মধ্যে আবার সপরিবারে করোনা টিকা নেয়ার পরও করোনা আক্রান্তের কারণে চিকিৎসা খরচ সব মিটাতে গিয়ে দায়দেনা হয়ে পড়ছি। ফলাফল পারলাম না এবার কুরবানিতে শরীক হতে। এভাবেই চলছে জীবন। কিছু মানুষের হাতে প্রচুর টাকা দেখি। তাদের টাকা যখন মাথাপিছু গড় হিসাব করে দেয়া হয় তখন আমাদের মাথাপিছু গড় আয় দেখিয়ে সরকার বাহবা নেয়, স্বস্তি পায়। কিন্তু আমরা যে বড় অস্বস্তিতে আছি তা দেখার কেউ নেই।

আব্দুল্লাহ
২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ৭:২২

এসির ভিতর বসে সামান্য বুঝতে পারছেন তাই কৃতজ্ঞ।আর দ্রব্যমূল্য কমান।

অন্যান্য খবর