× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ১৩ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯ সফর ১৪৪৩ হিঃ

যে কারণে আওয়ামী লীগের পদ খোয়ালেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক
(২ মাস আগে) জুলাই ২৫, ২০২১, রবিবার, ১১:০৪ পূর্বাহ্ন

আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য পদ খোয়ালেন আলোচিত নারী হেলেনা জাহাঙ্গীর। শনিবার তার আওয়ামী লীগের সদস্য পদ বাতিল করা হয়। আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বারবার শৃঙ্খলা ভঙ্গ করায় হেলেনা জাহাঙ্গীরের আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য পদ বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে চিঠি প্রস্তুত করতে বলেছি দফতর সম্পাদককে। তিনি আরও বলেন, একটা উপ-কমিটিতে থাকলে কাজ করার জন্য সবার সঙ্গে আলোচনা করতে হয়। তার কর্মকাণ্ডে উপ-কমিটি বিব্রত। তাই তাকে সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে।
দলীয় সূত্র জানিয়েছে, সম্প্রতি বাংলাদেশ আওয়ামী ‘চাকরিজীবী লীগ’ গঠন করেন হেলেনা জাহাঙ্গীর।
বিষয়টি নিয়ে দলের ভেতরে-বাইরে সমালোচনা শুরু হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এই কারণেই তার আওয়ামী লীগের উপকমিটির সদস্যপদ বাতিল করা হয়।
এ বিষয়ে হেলেনা জাহাঙ্গীর তার ফেসবুক পেজে একটি প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমি দলকে ভালোবাসি, আমি দলের সকল সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাই, আমি যদি কোন ভুল করে থাকি তাহলে নেত্রী আমাকে সাজা দিবেন এবং পরক্ষণে আগলে নিবেন। আশা করি আমরা কেউই ভুলের উর্ধ্বে নই। তবে আমি এটা বিশ্বাস করি আমার সকল কার্যক্রম ছিল দলকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে। কিন্তু কিছু কুচক্রী মহল আমার এই কার্যক্রমে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে, তবে মনে রাখবেন সূর্য অস্ত গিয়েছে সঠিক সময়ে সূর্যের উদয় হবে ইনশাআল্লাহ।
এদিকে হেলেনা জাহাঙ্গীর কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ম. রুহুল আমিন বলেন, বিতর্কিত কর্মকা-ে জড়িত থাকার জন্য গত মাসেই তাকে (হেলেনা জাহাঙ্গীর) কারণ দর্শানোর জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ওই চিঠির জবাব দেননি তিনি। এজন্য নির্দিষ্ট সময় পর এটা স্বাভাবিকভাবেই অব্যাহতি হয়ে গেছে। কাজেই বলা যায়, বর্তমানে তিনি ওই কমিটিতে আর নেই।
উল্লেখ্য, রোটারি ক্লাবের সঙ্গে সম্পৃক্ত হেলেনা জাহাঙ্গীর পোশাক শিল্পের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। মূলত তার স্বামী প্রতিষ্ঠিত একজন ব্যবসায়ী। হেলেনা জাহাঙ্গীর ২০১৫ সালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র নির্বাচন করার জন্য গোটা এলাকা পোস্টারে সয়লাব করেছিলেন। সেখান থেকেই মূলত তিনি আলোচনায় আসেন। মেয়র পদে আর নির্বাচন না করলেও পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগের নানা পেশাজীবী সংগঠনের সঙ্গে ওঠাবসা করতে দেখা যায় হেলেনা জাহাঙ্গীরকে।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচনে তিনি সরকার সমর্থক প্যানেল থেকে নির্বাচনও করেন। সবশেষ তিনি কুমিল্লা-৫ আসন থেকে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন সংগ্রহ করেছিলেন। যদিও তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Saidur Rahman
২৮ জুলাই ২০২১, বুধবার, ৭:৫৬

নির্লজ্জ ঔদ্ধত্য, বিত্তের চরম অহংকার ও দলীয় পরিচয় তাঁকে দুর্বিনত করে তুলেছিল। তার রাজনৈতিক চরিত্রে কোন ত্যাগী মনভাব ছিল না, ছিল সীমাহীন ধান্দাবাজী।বিনয় এবং ভদ্রতা তার ডিক্সনারীতে নাই। এই ধরনের মানুষেরাই অবশ্য এখন রাজনৈতিক অংগনের কর্নধার। ভদ্র, শিক্ষিত, ত্যাগী, দেশপ্রেমিক ও নির্লোভ মানুষেরা আজ রাজনীতিতে নিতান্তই অপাংক্তেয়।

Mahmud
২৫ জুলাই ২০২১, রবিবার, ১:২১

যারা বাড়াবাড়ি করে এটা তাদের জন্য একটি সতর্কবার্তা ।

অন্যান্য খবর