× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার , ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ সফর ১৪৪৩ হিঃ

অচেনা কাউকে গৃহকর্মী নিয়োগ না দেয়ার পরামর্শ পুলিশের

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার
২৬ জুলাই ২০২১, সোমবার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একটি গ্রুপ থেকে গৃহকর্মী নুপুর আক্তারকে নিয়োগ দিয়েছিলেন রামপুরা এলাকার এক বাড়ির মালিক। পরে সেই গৃহকর্মী নুপুরই সুযোগ বুঝে বাসা থেকে স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা চুরি করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় বাড়ির মালিক রামপুরা থানায় মামলা করলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের রমনা বিভাগের একটি দল কুমিল্লার লাকসাম থেকে নুপুরকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় একটি স্বর্ণের চেইন, একটি স্বর্ণের চুড়ি ও একটি স্বর্ণের আংটি উদ্ধার করা হয়। গতকাল দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।
সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) মো. মাহবুব আলম জানান, অনলাইন থেকে গত ১৯ই জুলাই ১০ হাজার টাকা বেতনে রামপুরার একটি বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োগ পান নুপুর আক্তার। নিয়োগের ৪ দিন পর ২৩শে জুলাই সন্ধ্যার দিকে ওই বাসা থেকে সে স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকাসহ পালিয়ে যায়। তিনি আরও জানান, পরে বাড়ির মালিকের মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ তাকে কুমিল্লা থেকে গ্রেপ্তার করে।
তিনি আরও জানান, গৃহকর্মী নিয়োগের আগে তার সঠিক নাম-পরিচয় নিয়ে এবং জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই-বাছাই করে নিয়োগ দিতে হবে। এর বাইরে অচেনা কাউকে বাসাবাড়িতে কাজের জন্য গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োগ দেয়ার জন্য সবার প্রতি পরামর্শ দেন। তিনি আরও জানান, একটি অসাধু চক্র ঢাকা শহরের বিভিন্ন বাসাবাড়িতে গৃহকর্মীর ছদ্মবেশে তাদের লোকদের নিয়োগ করে। পরবর্তী সময়ে সুযোগ বুঝে তাদের পাঠানো গৃহকর্মী ওই বাসার স্বর্ণলঙ্কারসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে পালিয়ে যায়। এ চক্রের অন্য সদস্যদের গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান চলছে। সংবাদ সম্মেলনে এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের রমনা বিভাগের ডিসি এইচ এম আজিমুল হক, ডিএমপির এডিসি (মিডিয়া) মো. ইফতেখায়রুল ইসলাম, ডিবির রমনা জোনের এসি নাজিয়া ইসলাম ও ডিএমপির এসি (মিডিয়া) মো. আবু তালেব।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর