× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ সফর ১৪৪৩ হিঃ

মদ-ক্যাসিনো সরঞ্জাম উদ্ধার নিয়ে যা বললেন হেলেনা জাহাঙ্গীর কন্যা

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক
(১ মাস আগে) জুলাই ৩০, ২০২১, শুক্রবার, ৯:৫১ পূর্বাহ্ন

আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটি থেকে সদ্য পদ হারানো হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের বাসায় র‌্যাবের অভিযান ও মদ, ক্যাসিনো সরঞ্জাম, বৈদেশিক মুদ্রা এবং হরিণের চামড়া উদ্ধারের ঘটনার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন তার কন্যা জেসি আলম। বাসায় বিদেশি মদ উদ্ধারের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জেসি আলম বলেন, আমরা মদ খাই না। করোনাকালে আমরা অ্যালকোহল খাইনি। মদের কালেকশন আমার ভাইয়ের। এগুলো রাখার লাইসেন্সও তার ছিল। সেই লাইসেন্সও তারা (র‌্যাব) নিয়ে গেছে। হরিণের চামড়া উদ্ধারের বিষয়ে তিনি বলেন, এটি একটি উপহার। আওয়ামী লীগের নেত্রীরা আমার ভাইয়ের বিয়ের সময় এটি উপহার দিয়েছিলেন।
বিদেশি মুদ্রার বিষয়ে হেলেনার কন্যা বলেন, আমরা প্রায় সময়ই বিদেশে যাতায়াত করি। অনেক দেশে আমরা ভ্রমণ করতে যাই। আমাদের সবার পাসপোর্টও আছে। ফিরে আসার পর সেগুলো বেঁচে গেলে আমরা কি ফেলে দেব নাকি?
ক্যাসিনো সরঞ্জাম সম্পর্কে তিনি বলেন, একটা ক্যাসিনো করতে অনেক সরঞ্জাম লাগে যা আমাদের এখানে ছিল না। আমাদের এখানে তাস ছিল যা আমরা বন্ধুদের সঙ্গে খেলতাম।

হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটকের বিষয়ে জেসি আলম বলেন, আমাদের বাসায় ইল্লিগ্যাল মালামাল রয়েছে মানলাম। তাই বলে ওরকমভাবে অভিযান করা যায়। কোনো সার্চ ওয়ারেন্ট নেই হুট করে ঢুকে গেল আর অভিযান চালাল। কোনো কো-অপারেট নেই।
উল্লেখ্য, সম্প্রতি ‘চাকরিজীবী লীগ’ নামে একটি সংগঠন করে সমালোচনা মুখে পড়েন হেলেনা জাহাঙ্গীর। এরপর তাকে আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক উপকমিটি থেকে বহিষ্কার করা হয়। বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় তার গুলশানের ৩৬ নম্বর রোডের ৫ নম্বর বাসায় দীর্ঘ প্রায় চার ঘণ্টা অভিযান চালায় র‌্যাব।  এ সময় তার বাসা থেকে বিদেশি মদ, অবৈধ ওয়াকিটকি সেট, ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও হরিণের চামড়া উদ্ধার করা হয়। আটকের পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব সদর দফতরে নিয়ে যাওয়া হয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর