× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার , ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ সফর ১৪৪৩ হিঃ

চার জেলায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪৮ জনের মৃত্যু

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক
(১ মাস আগে) জুলাই ৩০, ২০২১, শুক্রবার, ১০:১০ পূর্বাহ্ন
ফাইল ফটো

রাজশাহী, কুষ্টিয়া, ময়মনসিংহ ও চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ময়মনসিহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৮ জন, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৩ জন, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ৮ জন ও চট্টগ্রামে ৯ জন মারা যান। বিস্তারিত প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোর্টে-

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী থেকে জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে সাতজন ও উপসর্গে ছয়জন মারা গেছেন। আজ সকালে রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘মৃতদের মধ্যে রাজশাহী জেলার ছয়জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের একজন, নাটোরের তিনজন ও নওগাঁর তিনজন ছিলেন। এর মধ্যে করোনা সংক্রমণে মারা গেছেন রাজশাহীর চারজন, নাটোরের একজন ও নওগাঁর দুইজন। অন্যদিকে উপসর্গে মারা গেছেন রাজশাহীর দুইজন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের একজন, নাটোরের দুইজন ও নওগাঁর একজন।
সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’


স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে জানান, চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় নয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৯৫৮। একই সময়ের মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে এক হাজার ৪৬৬ জনের। এটিই চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ শনাক্ত। এর মধ্য দিয়ে জেলায় মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৮১ হাজার ২১৭। আজ চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি জানান, কুষ্টিয়ার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও আটজনের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এম এ মোমেন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ থেকে জানান, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ৮ জন করোনা শনাক্ত হয়ে এবং ১০ জন উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। শুক্রবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফোকাল পার্সন ডা. মহিউদ্দিন খান মুন।
তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টা থেকে শুক্রবার বার সকাল ৮ টা পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন-ময়মনসিংহ সদরের রফিকুল ইসলাম (৭২), জোবাইদা খাতুন (৯০), বাহার উদ্দিন (৬৫),হালুয়াঘাট উপজেলার রুহুল আমিন (৫৬),ফুলপুর উপজেলার দুলাল উদ্দিন(৬৫),মোসলেম উদ্দিন (৭৭), শেরপুর সদরের রহিমা বেগম (৫০), নেত্রকোনা বারহাট্টার মালেকা (৭২) ।
এ সময়ের মধ্যে উপসর্গ নিয়ে মারা যান- ময়মনসিংহ সদরের সুফিয়া জামান (৭০), আনোয়ারা (৬০), ফুলপুর উপজেলার সুলেমা (৫৭), মুক্তাগাছা উপজেলার শামসুন্নাহার (৬৪), তারাকান্দা উপজেলার আব্দুল খালেক (৬৮), টাংঙ্গাইল সদরের মনি(৫০), টাংঙ্গাইল মধুপুর উপজেলার জহর আলী (৮০), জামালপুর সদরের জোবেদা খাতুন (৫৫), জামালপুর ইসলামপুর উপজেলার আব্দুর খায়ের (৬১), নেত্রকোনা সদরের রোবিউল (৮০) ।
ডা. মহিউদ্দিন খান মুন জানান, করোনা ইউনিটে বর্তমানে ৪৭২ জন রোগী ভর্তি আছেন। এর মধ্যে আইসিইউতে রয়েছেন ২২ জন রোগী। নতুন ভর্তি হয়েছেন ৬৬ জন, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৬১ জন।
এদিকে ময়মনসিংহ জেলায় ১ হাজার ৬৯৪ টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪৪৮ জনের শরীরে করোনার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। শনাক্তের হার ২৬ দশমিক ৪৪ শতাংশ বলে জানিয়েছে সিভিল সার্জন দপ্তর।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
LISA
৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ১০:৩৮

এমন বিধিনিষেধ পরিবহন বন্ধ রেখে গার্মেন্টস ও কিছু অফিস খুলে দেয়াটা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। এবার নিজেদের মূল্যায়ন করুন নিজেদের কথা নিজেরা রাখতে পারছেন না !!

JM SHIM
৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ৪:২৭

ঈদের সিথিল বিধিনিষেধের রেস কাটতে আরও কিছু সময় লাগবে।জনগনের জন্য দেশ সেই সাধারণ মানুষের জীবনের দিকে তাকিয়ে কঠোর বিধিনিষেধ আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে সব বন্ধ রাখা উচিত হবে। তবে এমন বিধিনিষেধ চাইনা পরিবহন বন্ধ রেখে গার্মেন্টস ও কিছু অফিস খুলে দেয়াটা। গার্মেন্টস খুলে দিলে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত হবে ।

অন্যান্য খবর