× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার , ৩ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ সফর ১৪৪৩ হিঃ

প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি: আবার এক হলেন মাহাথির-আনোয়ার

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) আগস্ট ২, ২০২১, সোমবার, ৩:০৭ অপরাহ্ন

আবারো সব মতবিরোধ পিছনে ফেলে একসঙ্গে রাজনীতির মাঠে নামলেন মালয়েশিয়ার রাজনীতিতে হেভিওয়েট সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ ও আনোয়ার ইব্রাহিম। পার্লামেন্ট বন্ধ রাখার বিরুদ্ধে এবং প্রধানমন্ত্রী মুহিদ্দিন ইয়াসিনের পদত্যাগ দাবিতে আজ সোমবার রাজপথে নেমেছেন তারা। যোগ দিয়েছেন বিরোধীদের বিক্ষোভে। আজ সেখানে পার্লামেন্টের চলতি অধিবেশনের শেষ দিন ছিল। কিন্তু আইণপ্রণেতাদের কয়েকজনের করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ার পর তা বাতিল করা হয়েছে। পক্ষান্তরে পার্লামেন্ট বন্ধ করার জন্য কোভিড-১৯ ইস্যুকে প্রধানমন্ত্রী মুহিদ্দিন ইয়াসিন ব্যবহার করছেন বলে অভিযোগ করেছে বিরোধীরা। তাদের দাবি, পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোট থেকে পালাতে সরকার এসব অজুহাতকে ব্যবহার করছে। অনাস্থা ভোট হলে বর্তমান সরকার ধসে পড়বে বলে দাবি করছে বিরোধীরা।
এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।
এ বছর প্রথম পার্লামেন্ট অধিবেশন শুরু হয় গত সপ্তাহে। এর আগে করোনা সংক্রমণ ভয়াবহতার দিকে যাওয়ায় দেশটিতে দেয়া হয় জরুরি অবস্থা। তার অধীনে রাজনেতিক কর্মকা- রয়েছে স্থগিত। এ অবস্থায় পার্লামেন্টের দিকে অগ্রসর হন বিরোধী দলের প্রায় ১০০ এমপির একটি গ্রুপ। এতে পাশাপাশি দাঁড়িয়ে নেতৃত্ব দেন দু’বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ ও আনোয়ার ইব্রাহিম। এই দুই নেতার মধ্যকার সম্পর্ক দীর্ঘদিন ধরে কঠিন বিরোধিতার মুখে। তারা গত নির্বাচনে সমঝোতার রাজনীতি করলেও পরে আবার বিরোধ বেড়েছে। গত বছর আভ্যন্তরীণ কলহে তাদের গঠন করা জোটসরকার ভেঙে যায়। তারপর তাদেরকে আর একসঙ্গে দেখা যায়নি।
দুই নেতার মধ্যে ড. মাহাথির মোহাম্মদের বয়স এখন ৯৬ বছর। তিনি ঐতিহাসিক কুয়ালালামপুর স্কোয়ারে সাংবাদিকদের বলেন, জনগণ তাকে (মুহিদ্দিন) নিন্দা জানালেও, তিনি লজ্জাজনকভাবে পদে রয়েছেন এবং পদত্যাগ করতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছেন। অন্যদিকে আনোয়ার ইব্রাহিম বলেছেন, বৈধতা হারিয়েছে মুহিদ্দিনের সরকার। পার্লামেন্টে এখন তার সংখ্যাগরিষ্ঠ সমর্থন নেই। আমরা এই বিক্ষোভে এসেছি, কারণ আমরা জনগণকে সুরক্ষিত রাখতে চাই।
এ সময় বিক্ষোভে অংশ নেয়া এমপিরা স্লোগান দেন ‘পদত্যাগ কর মুহিদ্দিন’। এ স্লোগান দিতে দিতে তারা শান্তিপূর্ণভাবে পার্লামেন্টের দিকে অগ্রসর হন। কিন্তু পুলিশ তাদেরকে বাধা দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। উল্লেখ্য, ১৯৯০এর দশকে প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় নিজের সরকার থেকে আনোয়ার ইব্রাহিমকে বরখাস্ত করেন মাহাথির। এর পরপরই সমকামিতা এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের মামলায় তাকে জেল দেয়া হয়। ২০১৮ সালের ঐতিহাসিক নির্বাচনে তারা বিরোধী দলের একটি জোট গঠন করেন। তাতে ঐতিহাসিক বিজয় অর্জন করেন তারা। প্রধানমন্ত্রী হন মাহাথির মোহাম্মদ। দুই বছর এ পদে থাকার পর ক্ষমতা আনোয়ার ইব্রাহিমের কাছে হস্তান্তরের চুক্তি হয়েছিল তাদের মধ্যে। কিন্তু তার আগেই দলে আভ্যন্তরীণ কলহে জোট ভেঙে যায়। নিজের দলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে প্রধানমন্ত্রী হন মুহিদ্দিন ইয়াসিন। তার পদত্যাগের আহ্বানে দেশটির রাজনীতি আবার উত্তাল হয়ে উঠেছে। পার্লামেন্টকে ভুলপথে নিয়ে যাওয়ার জন্য মুহিদ্দিন প্রশাসনকে তিরস্কার করেছেন মালয়েশিয়ার রাজা। শনিবার সরকার বিরোধী বিরল বিক্ষোভ করেছেন কয়েক শত মানুষ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর