× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, বুধবার , ৭ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ সফর ১৪৪৩ হিঃ

হেলেনা জাহাঙ্গীরের ‘ভাইরাল’ ব্যবসা

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার

বহুমুখী প্রতারক হেলেনা জাহাঙ্গীর নিজেকে সেলিব্রেটি হিসেবে তুলে ধরার জন্য অনলাইন ও অফলাইন দুই মাধ্যমই ব্যবহার করেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইউটিউবে সদা সক্রিয় থাকতেন তিনি। তার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তব্য, মিউজিক ভিডিও, যাতায়াত, বিখ্যাত ব্যক্তিদের সঙ্গে ছবি তোলার বিষয়গুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়ার জন্য সাইবার টিমে ৯ জন সদস্য কাজ করতেন। এই ৯ জন তার কর্মকাণ্ডের ভিউ বাড়াতে নানারকম পন্থা অবলম্বন করতেন। এর জন্য তিনি পল্লবীর জয়যাত্রা টেলিভিশনে আলাদা ‘সাইবার’ নামে একটি সেকশন খুলেছিলেন। এ টিমের ৯ সদস্যের কাজ ছিল তার ওই বিতর্কিত কর্মকাণ্ডগুলো সাইবার জগতে ছেড়ে দেয়া। হেলেনা র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকে এই ৯ সদস্য পলাতক রয়েছেন। তাদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব।
এছাড়াও হেলেনার ভুয়া জয়যাত্রা নামে একটি আইপি টিভিতে ৭০ জনকে টাকার বিনিময়ে চাকরি দিয়েছেন। কাউকে কাউকে কয়েখ মাস কাজ করিয়েও কোনো বেতন দেননি। বেতনতো দূরের কথা তাদের মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতেন হেলেনা। তার নির্যাতনের কারণে অনেকেই ট্রমায় ভুগছেন। একাধিক ভুক্তভোগী মানবজমিনের কাছে এ অভিযোগ করেছেন। যারা হেলেনার দ্বারা আক্রাক্ত হয়েছেন তারা নিজেরাই র‌্যাবের কাছে যোগাযোগ করে অভিযোগ করেছেন।

গত বৃহস্পতিবার রাতে গুলশানের ৩৬ নম্বর রোডের ৫ নম্বর বাসা থেকে দীর্ঘ প্রায় ৪ ঘণ্টা অভিযান শেষে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটক করে র‍্যাব। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র?্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়। শুক্রবার রাজধানীর গুলশান থানায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে র‌্যাব বাদী হয়ে ২টি মামলা করে। এর মধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় ঢাকা মহানগর হাকিম রাজেশ চৌধুরী ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার উচ্চ তদন্তের জন্য র‌্যাব স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয়ে আবেদন করতে পারেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) কর্নেল কে এম আজাদ মানবজমিনকে জানান, ‘প্রতারক হেলেনার কর্মকাণ্ডগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’
র‌্যাব সদর দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, হেলেনার সাইবার টিমে ৯ জন সদস্য কাজ করতো। তাদের কাজই ছিলো হেলেনার কর্মকাণ্ডগুলো আলোচনায় নিয়ে আসা। তারা ইন্টারনেটের বিভিন্ন মাধ্যমে তার ভিডিওগুলো কৌশলে পুশ করে তার কর্মকাণ্ডগুলো আলোচনায় নিয়ে আসতেন। অনলাইনে গড়ে তুলেছিলেন ভাইরাল ব্যবসা। এমনকি তিনি অনেকেই টাকার বিনিময়ে ভাইরাল করে দেয়ার অফার করেছেন। এমন একটি কল রেকর্ড ফাঁস হয়েছে যা অনলাইন দুনিয়ায় সেটি ঘুরপাক খাচ্ছে।

সূত্র জানায়, একটি বেসরকারি টেলিভিশনের আলোচিত এক ব্যক্তির গান নকল করে মিউজিক ভিডিও বানিয়েছিলেন। পরে ওই ব্যক্তি তা জেনে তাকে ফোন করলে তিনি উল্টো তাকে নানা কথা শোনান।
সূত্র জানায়, হেলেনা প্রতারণার জাল সর্বত্র ছড়িয়ে দেয়ার জন্য খুলে বসেছিলেন ভুয়া জয়যাত্রা টেলিভিশন। মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে তিনি টিভিতে কথিত সাংবাদিক নিয়োগ দিয়েছিলেন। আশ্বাস দিয়েছিলেন তাদের মোটা অঙ্কের বেতন দেবেন। কাউকে কাউকে নিয়োগপত্রও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু, হেলেনা কাউকে কাউকে ১১ মাস পর্যন্ত বিনা বেতনে কাজ করিয়ে চাকরিচ্যুত করেন। কাউকে কাউকে তিনি শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতও করেছেন।

ভুয়া জয়যাত্রা টেলিভিশনে চাকরি নেয়া হাবিব ওয়াহিদ নামে এক যুবক মানবজমিনকে জানান, সখের বশে সাংবাদিকতা করার জন্য জয়যাত্রা টেলিভিশনে যোগদান করেছিলাম। কিন্তু, হেলেনা আমাদের কোনো বেতন না দিয়ে চাকরিচ্যুত করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন কর্মী জানান, হেলেনা একটি কাজের সূত্র ধরে আমার গায়ে হাত দিয়েছে। কিন্তু, রুটি-রুজির ভয়ে কাউকে বিষয়টি জানাতে পারেনি। তিনি আরও জানান, ৮ মাস কাজ করিয়ে হেলেনা আমাকে চাকরিচ্যুত করেছে। আমি এখন ট্রমায় ভুগছি।

১৪ দিনের রিমান্ডে: ওদিকে আলোচিত হেলেনা জাহাঙ্গীর রাজধানীর দুই থানার চার মামলায় ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু। অপরদিকে, হেলেনা জাহাঙ্গীরের পক্ষে শফিকুল ইসলাম রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন।

রাজধানীর মিরপুর থানার প্রতারণা মামলা ও পল্লবী থানার টেলিযোগাযোগ আইনের পৃথক মামলায় ৪ দিন করে মোট ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনুর রহমান। এ ছাড়া গুলশান থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় ৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসি। এতে হেলেনা জাহাঙ্গীরের মোট ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হলো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Mohammad Rafiqul Isl
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৬:০০

আইন শৃংখলা বাহিনী এতোদিন কি করেছে?

অন্যান্য খবর