× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার , ৩ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ সফর ১৪৪৩ হিঃ

বক্তব্য প্রত্যাহার করলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(১ মাস আগে) আগস্ট ৪, ২০২১, বুধবার, ১:৪৭ অপরাহ্ন

‘টিকা নেয়া ছাড়া ১৮ বছরের উর্ধ্বে কেউ ১১ই আগস্টের পর হতে বাইরে বের হতে পারবে না’ মর্মে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন তা প্রত্যাহার করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। আজ মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা সুফি আব্দুল্লাহিল মারুফ স্বাক্ষরিক এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান।

এর আগে গতকাল সচিবালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সভা শেষে মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘যারা ১১ তারিখ থেকে মুভ করবে, ভ্যাকসিন ছাড়া ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কোনো লোক, শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে। ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কোনো ব্যক্তি যদি রাস্তাঘাট, গাড়িতে, মোটরসাইকেল বা বাইসাইকেলে, টেম্পো বা বাসে বা ট্রেনে হোক, নো বডি এলাউ টু মুভ, তাদেরকে অবশ্যই ভ্যাকসিনেটেড হতে হবে।’এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তবে সেসময় মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রীর বক্তব্যের সঙ্গে তিনি কোনো দ্বিমত পোষণ করেননি।

পরে রাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তার পাঠানো এক বার্তায় বলা হয়, টিকা নেয়া ছাড়া ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কেউ বাইরে বের হতে পারবে না- বলে যে সংবাদটি প্রচার হচ্ছে, তা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়নি। প্রচারিত এ তথ্য সঠিক নয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
রুহুল আমীন যাক্কার
৫ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:৫৪

শরম পাইলাম।

Mohammad S Islam
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ১১:৪২

Let the health professional do their job.

Mohammad S Islam
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ১১:৩০

One false can brings multiple false. Corona defeated by freedom fighter.

জামশেদ পাটোয়ারী
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ১১:০১

বিদেশে হলে এমন পরিস্থিতিতে অবনত মস্তকে পদত্যাগ করতো। আমাদের নেতাদের লজ্জা শরম বলতে কিছুই নাই। তাদের মুখোশ খসে পরলেও পদ আখড়ে থাকেন।

SM Rafiqul Islam
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৬:৫৯

একেই বলে খমতার দাপট। মনে যা চায় বলে দিলেন। কারো কোন জবাবদিহির বালাই নেই।

Team Nurul Choudhury
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৬:৪৪

Who is in charge of Health Ministry?

Mahamudul Hasan
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৪:৫৫

আপনারা তো অবশ্যই জানেন-কিছু দিন আগের লকডাউণ ব্যাপারে ৫/৮/২১ তারিখ পযন্ত সব শিল্পকারখানা বন্দ । আর ১/৮/২১ সব শিল্পকারখানা খোলা হল-অতএব সরকারএর কথা এক কাজ আরএক///অতএব এটাও সম্পণ বিপরিধ-হবেই। দেশবাসী কে বিভ্রান্ত করার মত এমন নতুন কি. এম 'হাছান.

নাম
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৩:৪৯

ক্ষমতার দম্ভ। মন চাইলো একটা কিছু বলে দিলাম। দেশের জনগণ যেন এদের গোলাম।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৩:৩৫

বক্তব্য প্রত্যাহারেই দায় শেষ !

Md Tomiz Uddin Khan
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ২:৫২

Less talking is a sign of intelligence.

trend
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৩:৪৮

নির্লজ্জ

আশিকুল ইসলাম
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ২:৪১

লজ্জা থাকলে পদত্যাগ করা উচিত।

Sagor Ahmed
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৩:৪১

এইটাই প্রথম ব্ক্তব্য প্রত্যাহার করেন তা না এর আগেও অনেক বক্তব্য প্রত্যাহার করেন জানি না তারা কি খায়?

MD. ALAMGIR JALIL
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ৩:৩৯

Remember his minister made a mess with the Freedom fighter list. Minister should be more competent and carefull.

Mahmud
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ২:৫৭

ধন্যবাদ। মানুষ ভুল করতেই পারে।

Md. Abbas Uddin
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ২:৩৯

মনে হচ্ছে সরকারের ভিতর কোন অস্থিরতা চলছে ! কোথাও কোন সমন্বয় নেই । সর্বত্র পরিকল্পনার অভাব। আগে অনেক বিষয়ে সরকার স্মার্টলি হ্যান্ডল বা সমাধান করতে পারলেও করনা নিয়ন্ত্রণে যেন লেজেগোবরে অবস্থা। স্বাস্থবিষয়ক এক্সপার্টদের বাদ দিয়ে অনভিজ্ঞ ব্যাক্তিদের দিয়ে সব কিছু হ্যান্ডল করা হচ্ছে। তাই করনাও নিয়ন্ত্রণে আসছে না। করনা নিয়ন্ত্রণ ২টি বিষয়ের মধ্যে আটকে আছে। এই ২টি কে বাদ দিয়ে করনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। সরকার শুধু লকডাউন দিয়ে কর্মহীন মানুষের সংখ্যা বাড়াচ্ছে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের জীবন ধ্বংস করছে। ২টি বিষয়ের মধ্যে প্রথমতঃ করনা সংক্রমণ ‘০’ লেভেলে না আসা পর্যন্ত শতভাগ মানুষকে যেকোন মূল্যে নিয়মিত মাস্ক পরার (সঠিক নিয়মে) আওতায় আনতে হবে। বৈজ্ঞানিকগণ গভেষনা করে দেখেছেন মাস্ক পরার (সঠিক নিয়মে) মাধ্যমে ৭০%৮০% সংক্রমণ কমানো সম্ভব। নিয়মিত সঠিকভাবে মাস্ক না পরলে ২০০০, ৩০০০ বা ৫০০০ টাকা জরিমানা আদায় ও জেলের ব্যবস্থা করলে মানুষ ভয়ে মাস্ক পরতে বাধ্য হবে (অন্যান্য দেশে ২০-৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে তারা সফল হচ্ছে)। দ্বিতীয়তঃ জনপ্রতিনিধি, মসজিদের ইমাম, আলেম-ওলামা সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনকে সম্পৃক্ত করে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে এবং অলি-গলি, পাড়া-মহল্লা, গ্রামের হাট-বাজার সর্বত্র কঠোর নজরদারি ও নিয়মিত ব্যাপক মাইকিং করতে হবে। এই ২টি বিষয়ের উপর দেশের চৌকস স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞগণ(যেমনঃ বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সাইদুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপদেষ্টা ডঃ আবু জামিল ফয়সাল সহ অন্যান্যরা) বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়ে আসছেন। এই দুইটি পয়েন্টের বাস্তবায়নের উপরই বাংলাদেশের করনা নিয়ন্ত্রণ আটকে আছে। সরকার এই ২টি বিষয়ের উপর কেন নজর দিচ্ছেন না তাহা রহস্যজনক। কোথাও প্রচারণা নেই। সরকার যদি জীবন ও জীবিকার ভারসাম্য একই সাথে রক্ষা করতে চান তবে এই দুইটি পয়েন্টের বাস্তবায়ন ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই। আসুন সবাই মিলে মাস্ক পরি লকডাউনকে বিদায় করি।

Shahab
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ১:৩৪

Shame. Shame. Shame........

মোঃ জহিরুল ইসলাম
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ১:২৩

দুইজন সিনিয়র মন্ত্রীর উপস্থিতিতে এধরণের বক্তব্য প্রচার হয়ে গেল। কী অবিশ্বাস্য! প্রত্যাহারে সময় লাগলো চব্বিশ ঘন্টা।

Kazi
৪ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ১২:৫৯

নির্লজ্জ ।

অন্যান্য খবর