× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ৬ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ সফর ১৪৪৩ হিঃ

কলাপাড়ায় মালচিং পদ্ধতিতে বাহারি রঙের সবজি চাষ

বাংলারজমিন

মো. শরিফুল হক শাহীন, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) থেকে
৫ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার

বর্ষা মৌসুমে মিনি গ্রিন হাউজ ও মালচিং পদ্ধতিতে বাহারি রঙের তরমুজ, লাউ, শসা, করলা, বোম্বাই মরিচ, পেঁপে, কাঁচামরিচ, লাফা, মিষ্টি কুমড়া, বেগুন, টমেটোসহ নানা প্রজাতির সবজি চাষ করে ভাগ্য বদলেছে কৃষক জাকির হোসেন ও ওমর ফারুকের। তাদের সফলতায় স্থানীয় অনেক কৃষক মিনি গ্রিন হাউজ ও মালচিং পদ্ধতিতে সবজি চাষ শুরু করেছেন। এভাবেই পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের কুমিরমারা  গ্রাম এক সময় গোটা উপজেলায় পরিচিত হয়ে ওঠে সবজি গ্রাম হিসেবে। কৃষক জাকির হোসেন গাজী বলেন, ‘আমি এক সময় রাজমিস্ত্রি ছিলাম। সেখান থেকে এসে গত পাঁচ বছর ধরে কৃষি কাজ করে আসছি। এবছর আমি ৬ বিঘা জমিতে বিভিন্ন প্রজাতির সবজি চাষ করি। যাতে খরচ হয় পাঁচ লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা। উৎপাদিত সবজি বিক্রি করে দ্বিগুণ লাভ হয়।
এতে কৃষিকাজে আগ্রহ বাড়ে আমার। প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবছরও ভালো লাভের আশা করি।’ কৃষক মো. ওমর ফারুক বলেন, ‘কলাপাড়া উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন হাট বাজারে আমাদের সবজি বিক্রি হয়। বাজার জাত করার জন্য যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো না থাকার কারণে সবজির ন্যায্য মূল্য পাই না। সরকারিভাবে কৃষি কাজে সহায়তা পেলে ব্যাপক আকারে সবজি চাষ করতে পারবো বলে আশা করি।’ কলাপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ আর এম সাইফুল্লাহ্‌ বলেন, শুধু কুমিরমারা নয়, কলাপাড়া উপজেলার সকল ইউনিয়নে আমরা কৃষকদের আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদে প্রশিক্ষণ দিয়ে সবজি চাষে উদ্বুদ্ধ করবো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর