× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার , ৩ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ সফর ১৪৪৩ হিঃ

করোনার বুস্টার ডোজ বন্ধ রাখার আহ্বান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) আগস্ট ৫, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১০:১৪ পূর্বাহ্ন

কমপক্ষে সেপ্টেম্বর মাসের শেষ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের টিকার বুস্টার ডোজ প্রয়োগ বন্ধ রাখার আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। পরিচালক টেডরোস আধানম ঘেব্রেয়েসাস বলেছেন, ন্যূনতম এ সময় পর্যন্ত বুস্টার ডোজ দেয়া বন্ধ রাখলে প্রতিটি দেশে কমপক্ষে শতকরা ১০ ভাগ মানুষকে টিকা দেয়া যাবে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। উল্লেখ্য, এরই মধ্যে ইসরাইল ও জার্মানিসহ কয়েকটি দেশ বুস্টার ডোজ বা তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়ার পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে। এ বিষয়ে সতর্কতা দিয়ে টেডরোস আধানম ঘেব্রেয়েসাস ওই আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এখনও দরিদ্র দেশগুলো টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে। সংস্থাটির হিসাব অনুযায়ী, নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে টিকা সঙ্কটের কারণে প্রতি ১০০ জন মানুষে মাত্র ১.৫ ডোজ টিকা দিতে সক্ষম হয়েছে। তাই বুস্টার ডোজ দেয়ার উদ্যোগ থেকে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।
বলেছেন, এতে বিপুল পরিমাণ টিকা রক্ষা হবে। তা নিয়ে ওইসব নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে টিকা দেয়া সম্ভব। তার ভাষায়, প্রতিটি সরকারের উদ্বেগ সম্পর্কে আমি বুঝতে পারি। তারা চায় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট থেকে নিজের জনগোষ্ঠীকে রক্ষা করতে। ওইসব দেশের ধারণাকে আমরা মেনে নিতে পারি না, যারা এরই মধ্যে টিকার বৈশ্বিক সরবরাহের বেশির ভাগ ব্যবহার করেছে। এমনকি তাদের কাছে এখনও আরও টিকা আছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে একে শক্তিশালী এক আহ্বান হিসেবে দেখা হচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে তারা উচ্চ আয়ের দেশগুলোর সঙ্গে নিম্ন আয়ের দেশগুলোর ব্যবধান কমিয়ে আনার চেষ্টা করছে। আগামী মাসের মধ্যে প্রতিটি দেশে শতকরা ১০ ভাগ মানুষকে টিকা দিতে চায় এ সংস্থা। কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে সেই টার্গেট পূরণ সম্ভব বলে মনে হচ্ছে না। হাইতি এবং কঙ্গোতে এখনও পর্যন্ত কোনো ব্যক্তিই টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারেননি। ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের কারণে ইন্দোনেশিয়ায় সম্প্রতি সংক্রমণ এবং মৃত্যু বেড়েছে। আওয়ার ওয়ার্ল্ড ইন ডাটা’র তথ্যমতে, সেখানে মোট জনসংখ্যার শতকরা মাত্র ৭.৯ ভাগকে পূর্ণাঙ্গ টিকা দেয়া হয়েছে।

এ সময়ে ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের বুস্টার ডোজ বা তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়া শুরু করেছে ইসরাইল। মঙ্গলবার জার্মানি ঘোষণা করেছে যে, তারা মডার্না এবং ফাইজারের টিকা তৃতীয় ডোজ দেয়া শুরু করবে। বৃটেনে কয়েক লাখ মানুষকে ঝুঁকিতে বিবেচনা করে সেপ্টেম্বর থেকে তাদেরকে তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়া হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র এখনও বুস্টার ডোজ দেয়ার নীতি ঘোষণা করেনি। তবে বুধবার হোয়াইট হাউজ থেকে বলা হয়েছে, তাদের হাতে পর্যাপ্ত টিকা আছে, যা দেশের বাইরে পাঠানো যেতে পারে। তবে নিশ্চিত হতে হবে যে, মার্কিনিরা পুরোপুরি টিকা নিয়েছেন।

এবারই প্রথম ধনী দেশগুলোর প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিচালক টেডরোস আধানম ঘেব্রেয়েসাস উদ্বৃত্ত টিকা নিম্ন আয়ের দেশগুলোকে দান করার আহ্বান জানিয়েছেন এমন না। মে মাসে তিনি শিশু এবং টিনেজারদেরকে টিকা দেয়ার পরিকল্পনা স্থগিত করতে সম্পদশালী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান। ওইসব ডোজ তিনি গরিব দেশগুলোকে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। তিনি বার বার কোভ্যাক্স কার্যক্রমের মাধ্যমে দরিদ্র দেশগুলোকে টিকা দেয়ার আহ্বান জানিয়ে আসছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর