× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ১৩ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯ সফর ১৪৪৩ হিঃ

দ্বিগুন বেড়েছে উত্তপ্ত দিনের সংখ্যা

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(২ সপ্তাহ আগে) সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১, মঙ্গলবার, ৭:৩১ অপরাহ্ন

ক্রমশ উত্তপ্ত হয়ে উঠছে পৃথিবী। বাড়ছে উত্তপ্ত দিনের সংখ্যাও। বিবিসির এক বিশ্লেষণে দেখা গেছে ১৯৮০ সালের পর থেকে উত্তপ্ত দিনের সংখ্যা বেড়ে দুইগুন হয়েছে। ওই দশকে এক বছরে যতদিন তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়েছে, এখন সেরকম দিনের সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুন হয়েছে। তাছাড়া, বিশ্বের নতুন নতুন অঞ্চলও এমন উচ্চ তাপমাত্রা দেখছে এখন। পৃথিবী যে ক্রমেই বসবাসের অযোগ্য হয়ে উঠছে এসব বিশ্লেষণ তারই ইঙ্গিত দেয়।

বিবিসির খবরে জানানো হয়েছে, ১৯৮০-এর দশক থেকেই দ্রুত তাপমাত্রা বাড়ছে বিশ্বজুড়ে। ১৯৮০ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত গড়ে প্রতি বছর ১৪ দিন ৫০ ডিগ্রির বেশি তাপমাত্রা দেখেছে বিশ্ব।
২০১০ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে এ সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২৬ দিন। ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের হিসেবে প্রতি বছর এরকম অতিরিক্ত দুই সপ্তাহ দেখতে পাচ্ছে বিশ্ব।  এ নিয়ে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. ফ্রিয়েডরিক অটো বলেন, এই তাপমাত্রা বৃদ্ধির জন্য ১০০ ভাগ দায়ি জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার।
পৃথিবীর তাপমাত্রা যত বাড়বে এ ধরণের গরম দিনের সংখ্যাও বাড়তে থাকবে। উচ্চ তাপমাত্রা মানুষের জীবনে যেমন বিপন্ন করে, তেমনি প্রকৃতির জন্যেও তা ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারে। এছাড়া ভবন, রাস্তাঘাট ও শক্তি উৎপাদন কেন্দ্রগুলোকেও হুমকিতে ফেলছে এই তাপমাত্রা। সাধারণত মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা দেখা যায়। কিন্তু এ বছর কানাডায়ও সেই তাপমাত্রা দেখা গেছে। ৪৮ ডিগ্রি ছাড়িয়েছিল ইতালিতেও। বিজ্ঞানীরা এখন বলছে, জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার না থামালে সামনের বছরগুলোতে এমন উচ্চ তাপমাত্রার দিন আরও বাড়বে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর