× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৩ অক্টোবর ২০২১, শনিবার , ৮ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

পাকিস্তান ব্যর্থ রাষ্ট্র, সন্ত্রাসের এপিসেন্টার, মানবাধিকারের নিকৃষ্ঠ লঙ্ঘনকারী- ভারত

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:৪৯ অপরাহ্ন

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক পরিষদে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কঠোর সমালোচনা করেছে ভারত। এতে পাকিস্তানকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে উল্লেখ করা হয়। বলা হয়, এই দেশটি হলো সন্ত্রাসের এপিসেন্টার। তারা মানবাধিকারের সবচেয়ে নিকৃষ্ঠ লঙ্ঘনকারী। জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে জম্মু ও কাশ্মীর ইস্যু উত্থাপনের জন্য বুধবার মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন ওআইসি’রও কড়া সমালোচনা করেছে ভারত। অভিযোগ করেছে, এই গ্রুপটিকে পাকিস্তানের কাছে জিম্মি থাকতে অনুমোদন দিয়েছে নিজেরাই। এ খবর দিয়েছে অনলাইন টাইমস অব ইন্ডিয়া।
জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে ভারতীয় মিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি পবন বধে বলেন, জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে ওআইসি যে রেফারেন্স দিয়েছে আমরা আরো একবার নিন্দার সঙ্গে তা প্রত্যাখ্যান করছি।
জম্মু ও কাশ্মীর হলো ভারতের অখ- অংশ। ভারতের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করার এক্তিয়ার নেই ওআইসির। অসহায়ের মতো পাকিস্তানের কাছে ওআইসিকে জিম্মি থাকতে অনুমোদন দিয়েছে নিজেরাই। জেনেভা চ্যাপ্টারে পাকিস্তান হলো চেয়ারম্যান। এর মধ্য দিয়ে তারা তাদের নিজেদের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে। পাকিস্তানকে এসব করতে দেয়া ওআইসির স্বার্থ কিনা সে সিদ্ধান্ত নিতে হবে এর সদস্যদের।
পাকিস্তান ও ওআইসি যেসব মন্তব্য করেছে তার বিরুদ্ধে উচ্চস্বরে জবাব দিচ্ছিলেন পবন বধে। তিনি বলেন, পাকিস্তান সরকার যেসব মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে, এমনকি তারা যে ভূখ- দখল করেছে- সেখানে যে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে সরকার- তা থেকে দৃষ্টি অন্যদিকে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে পাকিস্তান। তিনি আরো বলেন- শিখ, হিন্দু, খ্রিস্টান এবং আহমাদিয়াসহ সংখ্যালঘুদের অধিকার সুরক্ষিত রাখতে ব্যর্থ হয়েছে পাকিস্তান। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের হাজার হাজার যুবতী ও নারী অপহরণের শিকারে পরিণত হয়েছেন। তাদেরকে জোর করে বিয়ে দেয়া হয়েছে। ধর্মান্তরিত করা হয়েছে।
পবন বধে বলেন, পাকিস্তান পর্যায়ক্রমিক নিষ্পেষণ চালিয়ে যাচ্ছে। জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত করছে। টার্গেটেড হত্যাকা- চালাচ্ছে। আছে জাতিগত সহিংসতা। জাতি ও ধর্মীয় সংল্যালঘুদের বিরুদ্ধে ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য করা হচ্ছে। জাতিসংঘ যাদেরকে সন্ত্রাসী হিসেবে অভিহিত করেছে তাদেরকে প্রকাশ্যে সমর্থন, প্রশিক্ষণ, অর্থায়ন এবং অস্ত্র সরবরাহকারী দেশ হিসেবে বিশ্বজুড়ে স্বীকৃত পাকিস্তান। এটা হলো তাদের রাষ্ট্রীয় নীতি। প্রাসঙ্গিক বহুপক্ষীয় প্রতিষ্ঠান সন্ত্রাসে অর্থায়ন বন্ধ করতে ব্যর্থ হওয়া, সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ায় অবহেলার জন্য পাকিস্তানের বিরুদ্ধে গুরুত্বর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। পাকিস্তানের মতো একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রের কাছ থেকে ভারতের শিক্ষা নেয়ার মতো কিছু নেই। এ দেশটি হলো সন্ত্রাসের এপিস্টেটার। তারা মানবাধিকারের নিকৃষ্ঠ লঙ্ঘনকারী।
ভারতের আরোও অভিযোগ, ভিন্ন মতাবলম্বী নাগরিক সমাজ, মানবাধিকারের পক্ষের কর্মী, সাংবাদিকদের প্রতিদিনই কণ্ঠরোধ করা হয় পাকিস্তানে। এতে সমর্থন রয়েছে পাকিস্তান সরকারের।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
manobota
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার, ৩:৫৭

should proceed in search of peace and harmony instead of unnecessary criticism.

Munir Hossain
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, শুক্রবার, ৩:৪৮

মালাউনের বাচ্চা কথা কি বলেছে। ওদের কাছে থেকে মানবাধিকার শিকতে হবে আর কাশ্মীর সাধীন হবেই হবে

শহীদ
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৬:৫৪

আরেকজনকে গালমন্দ না করলে নিজের চরিত্র ফুটে উঠে না।

মাসউদুল গনি
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৪:১২

ভারতীয়দের আয়নায় মুখ দেখা উচিত। কাশ্মীর এখনো জ্বলছে, বাবরী মসজিদের স্মৃতি আমরা ভুলি নি, গোমাংসর জন্য কিনা করে তারা!!!

mamun
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৪:০৩

BJP lead India is the worst country in this earth.

এ,টি,এম,তোহা
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ২:৩৭

গেরুয়াদের এসব কথা মানায় না। তারা মুসলিম স্থাপত্য দেখিয়ে কোটি কোটি ডলার আয় করে আর মুসলিমদের স্থাপনা ধ্বংস করে,তাদের শিক্ষা ও চাকুরি থেকে বঞ্চিত করে। জয় শ্রীরাম বলতে বাধ্য করে। মুসলিম ছাড়া অন্যান্যদের নাগরিকত্ব দেয়ার ঘোষণা দেয়। কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নেয়। ১০০/২০০ গজ পর পর চেকপোস্ট বসিয়ে হয়রানি করে। উপমহাদেশে অস্থিরতা সৃষ্টির জন্য গোয়েন্দা দিয়ে বোমাবাজি করে। আর অন্যদেশকে সন্ত্রাসের জন্য অভিযুক্ত করা হাস্যকর।

ক্ষুদিরাম
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:৫৮

হা হা হা !! একলা হাটে বাঘের(তালিবান) ভয়ে ছাগল(ভারত) গেল পাগল হয়ে !! আচ্ছা কবিতাটা যেন কে লিখেছিলেন ? ঠিক ঠাহর করতে পারছিনা। তবে সেই কবে তিনি হয়তো ভারতের ভবিষ্যত উল্লেখ করেই কবিতাটা লিখেছিলেন, শেষমেশ ফলেছে বাপু !!

অন্যান্য খবর