× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৮ অক্টোবর ২০২১, সোমবার , ৩ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

অতিরিক্ত মদ্যপানে চট্টগ্রামের ২ ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ্যপানে রাফসান হাবিব (৩০) ও মোনতাসির পিয়াম (২১) নামে দুই ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় রায়হান নামে আরও এক ছাত্রলীগ কর্মী আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছে। শুক্রবার কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাফসানের মৃত্যু হয়। আর একই দিন রাত ২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার সহযোগী পিয়াম মারা যায়। নিহত রাফসান নগরের কোতোয়ালি থানার এনায়েতবাজার বাটালি রোড এলাকার ছৈয়দুল হকের একমাত্র পুত্র। আর পিয়াম একই এলাকার আব্দুর রহিমের পুত্র। এদের মধ্যে রাফসান ওমর গণি এমইএস কলেজ ও পিয়াম ইসলামিয়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী ছিল।
একাধিক সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ই সেপ্টেম্বর রাফসান তার সহযোগী পিয়াম ও রায়হান নামে চারসহ কক্সবাজার বেড়াতে যায়। সেখানে তারা ‘বে-ওয়ান্ডারস’ নামে একটি হোটেলে অবস্থান করে।
বৃহস্পতিবার গভীর রাত পর্যন্ত হোটেলে তারা মদ্যপান করে। এ সময় তাদের সবার অতিরিক্ত বুক ব্যথা ও বমি হয়। ওই সময় লেবুর রস ও তেঁতুল খেলে কিছুটা স্বস্তি অনুভব করে তারা। পরে তারা ঘুমিয়ে পড়ে। এরপর ভোরেই তারা আবার অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাদেরকে কক্সবাজারের বেসরকারি একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থা আরও খারাপ হলে তাদেরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই রাফসান ইরফানের মৃত্যু হয়।
জানা যায়, রাফসানের সঙ্গে বে-ওয়ান্ডারস হোটেলের অ্যাকাউন্ট হেড কায়সার আহমেদের দীর্ঘদিনের সম্পর্ক। মূলত তার রেফারেন্সেই ১৫ই সেপ্টেম্বর নিজের রাজনৈতিক ছোট ভাইদের নিয়ে ওঠেন রাফসান। ১৬ই সেপ্টেম্বর রাতে মদ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে কায়সারই তাদের দেখভাল করেন। এদিকে অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে শুক্রবার সকালে মারা যাওয়া রাফসানের লাশের সঙ্গে তার সহযোগী পিয়াম ও রায়হানকে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ থেকে বিকালে চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হয়। পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার রাত ২টার দিকে পিয়ামও মারা যায়। চমেক হাসপাতালে ভর্তি থাকা রাফসানের আরেক সহযোগী রায়হানের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।
কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, চট্টগ্রাম থেকে বেড়াতে আসা ৪ বন্ধু কলাতলীর একটি হোটেলে ওঠেন। তারা সকলে অতিরিক্ত মদ্যপান করে। এতে ৩ জন শুক্রবার সকালে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাদের মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাফসানের মৃত্যু হয়। অন্য ২ জনকে চট্টগ্রামে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। শুক্রবার রাত সোয়া ২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাইমুন প্রিয়াম মারা যায়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর