× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৮ অক্টোবর ২০২১, সোমবার , ২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

আধসেদ্ধ ভাত খাওয়া ধূমপানের মতোই বিপজ্জনক

শরীর ও মন

মানবজমিন ডিজিটাল
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার

সঠিকভাবে রান্না না করা চালের মধ্যে ক্ষতিকারক আর্সেনিক ধাতু রয়েছে যা প্রজনন ক্ষমতায় বাধা সৃষ্টি করতে পারে এবং ক্যান্সারের মতো মারণ রোগের জন্ম দিতে পারে। জানাচ্ছেন ফার্টিলিটি বিশেষজ্ঞরা। ইংল্যান্ডের বেলফাস্টে, কুইনস বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অধ্যয়ন অনুযায়ী ফসলকে পোকার হাত থেকে রক্ষা করার জন্য এবং ভালো ফলনের জন্য যে সমস্ত রাসায়নিক ও কীটনাশক ব্যবহার করা হয়, তা চালকে ক্ষতিকর করে তোলে। এর ফলে নানান ক্ষেত্রে আর্সেনিক বিষক্রিয়ার সম্ভাবনাও থেকে যায়।আর্সেনিক এক ধরনের কেমিক্যাল, যা নানান ধরনের খনিজে উপস্থিত থাকে। ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইনসেক্টিসাইডস ও পেস্টিসাইডসে এর ব্যবহার করা হয়। আবার এমন কিছু দেশ রয়েছে, যেখানে ভূগর্ভস্থ জলে আর্সেনিকের স্তর অনেক বেশি। এর ফলে আর্সেনিক বিষক্রিয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পেতে পারে। যা শরীরে গেলে বমি, পেট ব্যথা, ডাইরিয়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে।
এটি ক্যান্সারকেও উদ্দীপিত করে দেয়।আফ্রিকা ফার্টিলিটি সোসাইটির সভাপতি, অধ্যাপক ওলাডোপো আশিরু জানিয়েছেন যে মাটিতে প্রচুর পরিমাণে ধাতু রয়েছে , যা শস্যের মাধ্যমে মানবদেহে চলে যায় ।অধ্যাপক ওলাডোপো জানান , "আর্সেনিক ধাতু প্রোজেস্টেরনের মাত্রা কমায় কিন্তু ইস্ট্রোজেন বৃদ্ধি করে, ডিম্বাণুর পরিস্ফুটন ব্যাহত করে এবং থাইরয়েড হরমোনের ফাংশন কমায়, যা ফাইব্রয়েড এবং বন্ধ্যাত্বের অন্যতম কারণ।" যদিও ফাইব্রয়েডগুলি ক্যান্সারবিহীন এক একটি টিউমার, এগুলি জরায়ুর চারপাশের টিস্যু এবং গর্ভের পেশী স্তরগুলিতে উপস্থিত হয়, যা উর্বরতা প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করে । এই টিউমারগুলি শিমের আকার থেকে তরমুজের মতো বড় হতে পারে। উইমেন্স হেলথ কুইন্সল্যান্ডের মতে , ৪০ বছরের বেশি বয়সী অস্ট্রেলিয়ান মহিলাদের প্রায় ৪০ শতাংশের দেহে এরকম একটি বা দুটি ফাইব্রয়েড থাকে , ৫০ বছরের বেশি বয়সীদের ক্ষেত্রে এই প্রবণতা বেড়ে যায় ৭০ %। আধসেদ্ধ ভাত এই ফাইব্রয়েড বা টিউমারের ঝুঁকি আরো বাড়িয়ে দেয়। পাস্তা যেভাবে প্যাকেট খুলেই সেদ্ধ করে খেয়ে নেওয়া যায় , ভাতের ক্ষেত্রে ততটাই প্রয়োজন ভালোমত সেদ্ধ হওয়া। চালের ওপর নানান সমীক্ষা থেকে উঠে এসেছে যে, এটি একটি কার্সিনোজেন, যা ক্যান্সারের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে। ৯০-এর দশকে ক্যালিফোর্নিয়া টিচার্স স্টাডিতে মহিলাদের ওপর সমীক্ষা চালিয়ে, স্তন ক্যান্সার-সহ নানান ধরনের ক্যানসারের সম্ভাব্য ঝুঁকি চিহ্নিত করা হয়েছিল। এর ফলোআপের সময় মোট ৯,৪০০ জন অংশগ্রহণকারী মহিলার কর্কট রোগ ধরা পড়ে। এর মধ্যে স্তন ও ফুসফুসের ক্যান্সারের রোগীদের সংখ্যা ছিল সবচেয়ে বেশি। আর্সেনিকের প্রভাব কমাতে পাত্রে ৫:১ অনুপাতে জল নিয়ে তার মধ্যে চাল দিয়ে সারারাত ভিজিয়ে রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। এর মাধ্যমে চালে ক্ষতিকারক কোনো ধাতু থাকলে তার প্রভাব ৮০ % কমিয়ে দেবে। কারণ প্রতিদিন এক প্যাকেট সিগারেট খাওয়া যেমন আপনার ক্যান্সারের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় যদি আপনি সেই অভ্যাস থেকে বেরিয়ে না আসেন , ভাতের ক্ষেত্রেও ঠিক তাই। চাল ভালো করে ধুইয়ে ফুটিয়ে না খেলে সেটিও আপনার দেহে ক্যান্সারের প্রবণতা বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই হাতে সময় থাকতে সাবধান হন। শুধু ভারতই নয়, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে ভাতই খাওয়া হয় সবচেয়ে বেশি। ভিটামিন, খনিজ ও কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ ভাত বহুক্ষণ পেট ভরে রাখে। তাই আধকাচা ভাত খাওয়ার অভ্যাস এখন থেকেই ছেড়ে দিন।

সূত্র : bodyandsoul.com

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর