× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৯ অক্টোবর ২০২১, মঙ্গলবার , ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

বছর না পেরুতেই বিকল ৭৬টি সড়ক বাতি

বাংলারজমিন

মো. জোবায়ের হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) থেকে
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, বুধবার

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে পুষ্টকামুরী চরপাড়া থেকে দেওহাটা পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার এলাকার পুরাতন মহাসড়কে লাগানো ৭৬টি সড়কবাতি এখন বিকল। স্থাপনের বছর না পেরুতেই বাতিগুলো বিকল হওয়ায় স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। বেড়েছে চুরি ছিনতাইসহ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের ঝুঁকিও। সরজমিন ঢাকা-টাঙ্গাইল পুরাতন মহাসড়কের পুষ্টকামুরী থেকে চরপাড়া পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার এলাকা পরিদর্শন করে দেখা গেছে মির্জাপুর পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় স্থাপন করা সড়কবাতিগুলোর অধিকাংশ সচল থাকলেও পুষ্টকামুরী জহুরবাড়ীর মোড়, বাড়ইখালী ব্রিজের পূর্ব ও পশ্চিম পাড়, বাইমহাটী ও কচুয়াপাড়া এলাকায় অধিকসংখ্যক সড়কবাতি বিকল হয়ে গেছে। ফলে একদিকে যেমন ওই এলাকার সৌন্দর্য্য বর্ধনের বিষয়টি বিঘ্নিত হচ্ছে অপরদিকে রাতের বেলা ওই এলাকাগুলোতে অপরাধ প্রবণতার শঙ্কাও সৃষ্টি হচ্ছে।
মির্জাপুর সড়ক উপ-বিভাগের দেয়া তথ্যমতে, পুরাতন মহাসড়কের পুষ্টকামুরী চরপাড়া থেকে দেওহাটা পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার এলাকায় ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৯২টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়। গত বছরের জুনে কাজ বুঝে নেয় সড়ক বিভাগ (যদিও স্থানীয়দের দাবি সড়কবাতিগুলো গেল বছরের শেষের দিকে সচল হয়)। সড়কবাতি স্থাপনের কাজটি পায় মাইন উদ্দিন বাসী নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। তবে কাজ করে টাঙ্গাইলের লিটন নামক এক ব্যক্তি।
এ বিষয়ে মুঠোফোনে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। বিষয়টি নিয়ে দাপ্তরিক বক্তব্য চাইলে অপারগতা প্রকাশ করেন মির্জাপুর সড়ক উপ-বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী আমিনুল কবির। তবে সংখ্যা নিয়ে দ্বিমত থাকলেও সড়ক বাতি বিকল হওয়ার বিষয়টি তিনি অবগত আছেন বলে জানান। এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আলিউল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনিও দাপ্তরিকভাবে বক্তব্য দিতে অস্বীকৃতি জানান। তিনি মির্জাপুর সড়ক বিভাগের দায়িত্বরত কর্মকর্তার সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলতে বলেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর