× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৪ অক্টোবর ২০২১, রবিবার , ৯ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

ত্যাগী-মোস্তাফিজে অবিশ্বাস্য জয় রাজস্থানের

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, বুধবার

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে পাঞ্জাব কিংসকে হারিয়েছে রাজস্থান রয়্যালস। শেষ দুই ওভারে পাঞ্জাবের প্রয়োজন মাত্র ৮ রান। ১৯তম ওভারে ৪ রান দিলেন মোস্তাফিজুর রহমান। শেষ ওভারে কার্তিক ত্যাগী ২ উইকেট নিতে খরচ করলেন মাত্র ১ রান। এতে ২ রানের অবিশ্বাস্য জয় পায় রাজস্থান।
হাই ভোল্টেজ ম্যাচটিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ১৮৬ রানের টার্গেট ছুঁড়ে দিয়েছিল রাজস্থান রয়্যালস। টার্গেট নিয়ে খেলতে নেমে ৬ উইকেট হাতে থাকলেও জয়ের বন্দরে পৌঁছাতে পারেনি পাঞ্জাব।
শেষ ওভারের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে ম্যাচসেরা হয়েছেন ত্যাগী। তবে বাংলাদেশি পেসার মোস্তাফিজুর রহমানও দলের জয়ে রেখেছেন কার্যকরী ভূমিকা।
১৮৫ রানের বড় পুঁজি নিয়ে লড়াই করতে নামা রাজস্থান প্রথম ওভারেই ভরসা রাখে মোস্তাফিজের ওপর।
ষষ্ঠ ওভারে আরেক ওভার বল করার পর কাটার মাস্টারকে রেখে দেয়া হয় স্লগ ওভারের জন্য।
তবে ১৭তম ওভারে মোস্তাফিজ বল হাতে নেয়ার আগে ম্যাচে আধিপত্য বিস্তার করে পাঞ্জাব। মোস্তাফিজ নিজের তৃতীয় ওভারে ১৪ রান দিলে জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় পাঞ্জাব।
শেষ দুই ওভারে মোস্তাফিজ এবং ত্যাগীর অনবদ্য পারফরম্যান্সে অবিশ্বাস্য জয় পেয়েছে রাজস্থান।
শেষ ওভারে ১ রান খরচ করে ২ উইকেট নিয়ে রেকর্ডও গড়েছেন কার্তিক ত্যাগী। শেষ ওভারে সবচেয়ে ডিফেন্ড করার মানে রক্ষা করার রেকর্ড গড়লেন তিনি। এর আগে এই রেকর্ডটি ছিল মুনাফ প্যাটেলের দখলে। ২০০৯ সালের আইপিএলে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে এমন কীর্তি অর্জন করেছিলেন মুনাফ। সেই ম্যাচে জেতার জন্য শেষ ওভারে চার রানের প্রয়োজন ছিল মুম্বইয়ের। সেই ম্যাচে রাজস্থানকে জিতিয়েছিলেন মুনাফ। প্রায় বারো বছর পর আবারও সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটালেন ত্যাগী।
অবিশ্বাস্য জয়ের পর উচ্ছ্বসিত রাজস্থান অধিনায়ক সাঞ্জৃ স্যামসন। জানালেন, মোস্তাফিজকে স্লগ ওভারের জন্যই রেখে দিয়েছিলেন। একইসঙ্গে আস্থা ছিল ত্যাগীর ওপরও।
স্যামসন বলেন, ‘আমরা জয়ের আশা রাখছিলাম, এটা একটু হাস্যকরই বটে। মোস্তাফিজ এবং ত্যাগীর বোলিং স্লগ ওভারের জন্য রেখে দিয়েছিলাম। ক্রিকেট মজার এক খেলা। আমরা লড়াই চালিয়ে গিয়েছি এবং বিশ্বাস রেখেছি।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর