× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৫ অক্টোবর ২০২১, সোমবার , ৯ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

স্বামীর লাশের পাশে দুদিন শুয়েছিলেন অসুস্থ স্ত্রী

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক
(৩ সপ্তাহ আগে) সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১, মঙ্গলবার, ১১:৫০ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক বৃদ্ধ স্বামী রোকনুদ্দীন আহমেদের লাশের পাশে দুদিন ধরে শুয়েছিলেন অসুস্থ বৃদ্ধা স্ত্রী। অথচ পাশের ঘরেই ছিলেন তাদের সন্তান। দুদিনেও একবারের জন্য বাবা-মাকে দেখতে যাননি। দুদিন পর যখন মৃত বাবার লাশ পচে দুর্গন্ধ বের হয় তখন ওই ঘরে যান ছেলে। দেখতে পান মৃত বাবার শরীর ফুলে গেছে। পাশে অচেতনভাবে শুয়ে আছেন অসুস্থ মা। সোমবার ঢাকার পল্লবীর একটি ফ্ল্যাট থেকে প্রায় ৮০ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইসময় তার অসুস্থ স্ত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
পল্লবী থানার এসআই শফিকুল জানান, ওই বাড়ির পরিবেশ দেখে তার ‘অস্বাভাবিক’ মনে হয়েছে।
মৃত ব্যক্তির নাম রোকনুদ্দীন আহমেদ। তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষক ছিলেন বলে জানা গেছে। রোকনুদ্দীনের স্ত্রী নীলুফার ইয়াসমিনকে হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওই বাসায় ছিল তাদের ছেলে শাহরিয়ার আহমেদ রূপম (৪০)।
রূপম পুলিশকে বলেছেন, দুদিন আগে তিনি তার বাবা-মাকে তাদের ঘরে গিয়ে দেখে এসেছিলেন। তখন তারা শুয়ে ছিলেন। সোমবার দুর্গন্ধ পেয়ে ওই ঘরে গিয়ে দেখেন যে তার বাবা মৃত, শরীর ফুলে গেছে। পাশেই শোয়া তার মা প্রায় অচেতন।

রুপম তখন ফোন করে প্রতিবেশীকে ঘটনাটি জানালে তারা থানায় খবর দেয়। তখন পুলিশ যায় সেই বাড়িতে।
লাশের পচন দেখে ডিএমপির পল্লবী জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. শাহ কামাল বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, অন্তত ৩৬ ঘণ্টা আগে রোকনুদ্দীনের মৃত্যু হয়েছে।
রুপমের বিষয়ে তিনি বলেন, কথা বলে এবং আচরণে আমাদের কাছে মনে হয়েছে, তার এই সন্তানটি শারীরিক এবং মানসিকভাবে বেশ অসুস্থ।
পুলিশ জানিয়েছে, ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন রূপম। কিন্তু লেখাপড়া শেষ করেননি। বিয়ে হলেও ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।
পল্লবী থানার এসআই শফিকুল ইসলাম বলেন, রূপম তার ঘর থেকে খুব একটা বের হত না। সব সময় দরজা লাগিয়ে রাখত। খাবারও সেভাবে খেত না। কোনো আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে এই পরিবারের তেমন যোগাযোগ ছিল না। তাদের ফ্ল্যাটের দরজা-জানালা সব সময় বন্ধ থাকত। এই ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
K M Ansar
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার, ১২:০৬

পারিবারিক ও সামাজিক অবস্থান কোথায় গিয়ে ঠেকতেছে দিনকে দিন। আল্লাহ তোমার দয়া ও করুনার মধ্যে রাখ উম্মতে মুহাম্মদ কে।

Kazi
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ১১:৩৭

أنا لله وأنا اليه راجعون জীবনে সন্তান থাকলেও কতটুকু ভরসা । সুস্থ সন্তান হলেও। পুলিশের ভাষ্য রুপম নিজেই মানসিক ভাবে অসুস্থ। বড়ই মর্মাহত হলাম বুয়েটের একজন শিক্ষকের এই করুণ অবস্থার কাহিনী পড়ে ।

অন্যান্য খবর