× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৯ অক্টোবর ২০২১, মঙ্গলবার , ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

কষ্টে দিন পার করছেন প্রতিবন্ধী দম্পতি

বাংলারজমিন

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, বুধবার

দম্পতি শাহজাহান মিয়া ও সালমা আক্তার দু’জনই প্রতিবন্ধী। ভিক্ষাবৃত্তি করতে গিয়েই তাদের পরিচয়। আর সেই পরিচয় থেকেই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। তারপর বৈবাহিক জীবনে এসেছে সন্তান। ইনকাম না বাড়লেও ঠিকই বেড়েছে তাদের খরচ। এ অবস্থায় খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে সালমা আক্তার ও শাহজাহান মিয়ার জীবন। দাউদকান্দি উপজেলার প্রতিবন্ধী এই দম্পতি সরকারি অনুদান পেলে অন্তত মাথা গোঁজার একটা ঠাঁই বানিয়ে জীবনযাপন করতে পারতেন। ‘মন্দ কপাল’ নিয়ে জন্ম সালমা আক্তারের।
বাড়ি দাউদকান্দি উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামে। সালমাকে জন্ম দিয়ে আঁতুড় ঘরেই মারা যান তার মা জাহানারা বেগম। কৈশোরে পা রাখার আগেই হারান বাবা ওহাব আলীকেও। এ অবস্থায় দাদির কাছে বড় হন মানসিক প্রতিবন্ধী সালমা। সেই দাদিও একসময় অসহায় এ নাতিনকে রেখে পরপারে পাড়ি জমান। এখন আপন বলতে আর কেউ নেই সালমার। কখনো পাড়া-প্রতিবেশীদের সহযোগিতায়, কখনো ভিক্ষা করে জীবন কাটছিল মেয়েটির। ভিক্ষা করতে গিয়েই বছর দুয়েক আগে পরিচয় হয় আরেক প্রতিবন্ধী শাহজাহান মিয়ার সঙ্গে। জন্মগতভাবেই তার ডান পা বাঁকা। সেই কারণে চলাফেরা করতে বেশ অসুবিধা হয় তার। শাহজাহানের বাড়ি নোয়াখালীর বসুরহাটের চরক্লার্ক গ্রামে। শাহজাহানের জমিজমা তো দূরের কথা, ওই গ্রামে তার জন্মভিটাও নেই। বেঁচে নেই তার মা-বাবা ও ভাইবোনও। অনেকটা আরেক প্রতিবন্ধী সালমার মতোই অবস্থা। উভয়ের পরিচয় থেকে শুরু হওয়া সম্পর্কটা শেষমেশ গড়ায় বিয়েতে। শাহজাহান ও সালমা এখন বাস করেন দাউদকান্দি উপজেলাস্থ মোহাম্মদপুর গ্রামের সালমার দাদির রেখে যাওয়া ছোট্ট একটা বাড়িতে। কিছুদিন আগে মেয়ে সন্তান এসেছে প্রতিবন্ধী এই দম্পতির ঘরে। এতে যেমন তারা খুশি হয়েছেন, তেমনি করে দুশ্চিন্তাও তাদের মাথায় ভর করেছে। সালমা আক্তার বলেন, সংসার চালাতে তারা দু’জনই ভিক্ষা করেন। মাঝেমধ্যে পাড়া-প্রতিবেশীরা সহযোগিতা করেন। তাতে দু’মুঠো ভাতের ব্যবস্থা হয়। কিন্তু সন্তান আসার পর খরচ বেড়েছে। কখনো কখনো না খেয়েই দিন কাটাতে হয় তাদের। জরাজীর্ণ বসতঘরে বসবাস শাহজাহান ও সালমার। ফলে বৃষ্টি হলেই ভিজতে হয় তাদের। বাড়িতে নলকূপ, শৌচাগার কিছুই নেই। পাড়া-প্রতিবেশী বলছেন, খুবই অসহায় অবস্থায় আছেন এই প্রতিবন্ধী দম্পতি। তাদের যে অবস্থা, এতে তারা সরকারি যেকোনো সহযোগিতা পাওয়ার যোগ্য। কিন্তু খোঁজ যে রাখে না কেউ তাদের। অন্তত প্রয়োজনীয় বসতঘর, নলকূপ ও শৌচাগার করে দেয়া হলে কিছুটা হলেও স্বাচ্ছন্দ্যে জীবনযাপন করতে পারবেন তারা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর