× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৯ অক্টোবর ২০২১, মঙ্গলবার , ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

নববধূ উধাও নাকি নিখোঁজ?

অনলাইন

চাটখিল (নোয়াখালী) প্রতিনিধি
(৫ দিন আগে) অক্টোবর ১৪, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১:৫৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ আপডেট: ৯:৪০ পূর্বাহ্ন

ঘরে নেই নববধূ। বধূর সঙ্গে নেই টাকা ও স্বার্ণালঙ্কার। অচেতন স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার হাসর গ্রামে। সাজ্জাত হোসেনকে (৩০) ঘুমের মধ্যে রেখে টাকা ও স্বার্ণালঙ্কার নিয়ে নববধূ উধাও বলে অভিযোগ করেছেন সাজ্জাতের মা। আর নববধূ রৌশন আরা বেগমের বাবা অভিযোগ করেছেন মেয়ে নিখোঁজ।

জিডিতে সাজ্জাতের মা উল্লেখ করেন, ৭ দিন আগে তার ছেলেকে বানসা গ্রামের সফি উল্যা বেপারী বাড়ির আবদুল জলিলের মেয়ে শারমিন আক্তারের (২১) সঙ্গে তার ছেলে সাজ্জাতের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর মঙ্গলবার রাত সাজ্জাত তার নববধূকে নিয়ে শশুর বাড়িতে যায়। গভীর রাতে রৌশন আরা তার স্বামীকে চেতনানাশক ঔষুধ খাইয়ে ঘুমের মধ্যে রেখে সাজ্জাতের নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার ও সৌদি রিয়েল নিয়ে পালিয়ে যায়।
তিনি সকালে খবর পেয়ে তার শশুর বাড়ীতে গিয়ে ছেলেকে অচেতন অবস্থায় দেখতে পান।

নববধু রৌশন আরার বাবা আবদুল জলিলও থানায় জিডি করেন। জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন, তার মেয়ে রৌশন আরাকে মঙ্গলবার ভোর রাত থেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজ নিয়েও কোন সন্ধান পাননি। মেয়ের সন্ধান চেয়ে তিনি থানায় জিডি করেন। চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের দুই পক্ষ থেকে জিডি প্রাপ্তির কথা স্বীকার করেন। এ ব্যাপারে তিনি তদন্ত করে দেখছেন বলে জানান।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর