× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৭ নভেম্বর ২০২১, শনিবার , ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

ভারতকে হুঁশিয়ারি বাবরের

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক
১৫ অক্টোবর ২০২১, শুক্রবার

নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ড দল পাকিস্তান সফর বাতিল করে দেয়ায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ‘আদর্শ’ প্রস্তুতি হয়নি বাবর আজমদের। পাকিস্তানিরা বিশ্বকাপের প্রস্তুতি সেরেছেন ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি আসরে। আরব আমিরাতে বিশ্বকাপ হওয়ায় ‘সুবিধা’ পাবে পাকিস্তান। বিশ্বকাপ ভেন্যুতে প্রচুর ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের। জাতীয় দল ও পাকিস্তান সুপার লীগের বহু ম্যাচ আমিরাতের তিন ভেন্যুতে খেলেছেন বাবর আজমরা। ২০০৯’র শিরোপাজয়ীদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। আর জয় দিয়ে বিশ্বকাপ শুরুর প্রত্যয় জানালেন বাবর আজম।
প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলবেন বাবর। কুড়ি ওভারের বিশ্বকাপ অভিষেকেই খেলবেন পাকিস্তানের অধিনায়ক হিসেবে।
প্রথম ম্যাচেই মুখোমুখি ভারতের। চির-প্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে বিশ্বমঞ্চে খেলতে নামলে খেই হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। আইসিসির বিশ্ব আসরে কখনও ভারতের বিপক্ষে জয়ের স্বাদ পায়নি পাকিস্তান। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে চার ম্যাচের তিনটিতে হার। যার একটি ‘টাই’ হলেও টাইব্রেকারে হার দেখে পাকিস্তান। ভারতকে হারিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করতে পারলে অনেক কিছুই বদলে যাবে। বাড়বে আত্মবিশ্বাস। সেটা জানেন পাকিস্তান অধিনায়ক। বাবর আজম বলেন, ‘প্রতিটা ম্যাচের চাপ ও তীব্রতা সম্পর্কে আমরা জানি, বিশেষ করে প্রথম ম্যাচ। আশা করি, আমরা ম্যাচটি জিততে পারবো এবং ওই মোমেন্টাম সামনে ধরে রাখতে পারবো।’
এ আশার পেছনে কারণটাও দেখালেন বাবর। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপ শুরুর আগে দলের বিশ্বাস, আর আত্মবিশ্বাসটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। দল হিসেবে এখন আমাদের আত্মবিশ্বাস আর মনোবলটা বেশ উঁচুতে অবস্থান করছে।’ তবে ভারতকে হারানোর তাড়নাটা অতীতে সব হারের রেকর্ড থেকে আসছে না, জানালেন বাবর। পাকিস্তান অধিনায়ক বলে, ‘আমরা অতীত নিয়ে নয়, ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবছি। আমরা সেজন্যেই প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমি পুরোপুরি আত্মবিশ্বাসি যে, আমরা ভালোই প্রস্তুতি নিয়েছি আর আর সেই দিন ভালো ক্রিকেটই খেলবো।’ যে ভেন্যুতে খেলাটা হবে, সেই দুবাই ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রেকর্ডটাও কথা বলছে পাকিস্তানের পক্ষেই। ২০১৬ সালের পর থেকে ছয় ম্যাচ খেলে এই মাঠে হারেননি বাবর আজমরা। বাবর অবশ্য জানালেন, কন্ডিশনটা চেনা হলেও নির্দিষ্ট দিনের পারফরমেন্সেই নির্ধারিত হবে ফলাফল। তিনি বলেন, ‘আমরা আরব আমিরাতে শেষ তিন চার বছর ধরে খেলছি আর আমরা সেখানকার কন্ডিশন সম্পর্কে জানি ভালো করেই। সেখানকার উইকেট কেমন আচরণ করবে, ব্যাটারদের কেমন করে মানিয়ে নিতে হবে সব। তবে সেই নির্দিষ্ট দিনে যে ভালো ক্রিকেট খেলবে, সেই ম্যাচটা জিতবে। আপনি যদি আমাকে জিজ্ঞেস করেন, তাহলে আমি বলব আমরাই জিততে যাচ্ছি।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর