× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার , ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

সেই ব্রাজিলিয়ান রেফারির বিরুদ্ধে ফের অভিযোগ মেসির

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক
১৫ অক্টোবর ২০২১, শুক্রবার

ব্রাজিলিয়ান রেফারি উইলটন পেরেইরা সাম্পাইয়োর বিরুদ্ধে ফের অভিযোগ তুললেন লিওনেল মেসি। গত জুলাইয়েও ইকুয়েডরের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার ৩-০ গোলে জয়ের ম্যাচে উইলটনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন মেসি। বারবার বাঁশি বাজিয়ে ম্যাচের স্বাভাবিক গতি নষ্ট করার অভিযোগ তুলেছিলেন পেরেইরার বিরুদ্ধে। গতকাল পেরুর বিপক্ষে ম্যাচেও এই রেফারির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুললেন আর্জেন্টাইন তারকা।
বুয়েনস আয়ার্সের এস্তাদিও মনুমেন্তাল স্টেডিয়ামে ২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে পেরুকে ১-০ গোলে হারায় আর্জেন্টিনা। ম্যাচ শেষে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে মেসি লিখেছেন, ‘কঠিন ম্যাচ। খেলাও কঠিন ছিল। অনেক বাতাস ছিল। ওরা (পেরু) জায়গা ছাড়েনি। এই রেফারি আমাদের ম্যাচ পরিচালনা করতে গিয়ে সব সময়ই এমন করে থাকেন, যেন ইচ্ছা করেই করছেন। কিন্তু ৩ পয়েন্ট তুলে নিয়ে আমরা নিজেদের লক্ষ্যের আরও কাছে এগিয়ে গেলাম।’
তবে পেরুর বিপক্ষে ম্যাচে ব্রাজিলিয়ান এ রেফারির বিরুদ্ধে ঠিক কী অভিযোগ, তা খোলাসা করে বলেননি মেসি। সেটি হতে পারে পেরুর পেনাল্টি পাওয়ার বিষয়ে। দ্বিতীয়ার্ধে খেলা শুরুর ১৯ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি পায় পেরু। বক্সের মধ্যে জেফারসন ফারফানকে ফেলে দিয়েছিলেন আর্জেন্টিনা গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্তিনেজ। যদিও পেনাল্টি থেকে গোল আদায় করতে পারেনি পেরু। ক্রসবারে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন পেরু মিডফিল্ডার ইয়োশিমার ইয়োতুন।
প্রথমার্ধে আর্জেন্টিনাও পেনাল্টির দাবি তোলে। লওতারো মার্তিনেজ ফাউলের শিকার হয়েছিলেন। কিন্তু মেসিদের দাবি উইলটন পেরেইরা কানে তোলেননি।
পেরু যে পেনাল্টি পায়, তাতে ফারফানের ইচ্ছা করে পড়ে যাওয়ার সন্দেহ করেছেন অনেকেই। ব্রাজিলিয়ান রেফারি তা নিশ্চিত হতে অবশ্য ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) প্রযুক্তির সাহায্য নেননি।
এদিন আর্জেন্টিনার দুটি গোলও বাতিল করা হয়। এর মধ্যে একটি ভিএআর প্রযুক্তির সাহায্যে, আরেকটি ক্রিস্টিয়ান রোমেরোর অফসাইডের কারণে। ম্যাচে ২০টি ফাউল করে মাত্র দুটি হলুদ কার্ড দেখেছে পেরু। যদিও আর্জেন্টিনা ১২টি ফাউল করে কোনো হলুদ কার্ড দেখেনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর