× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২ ডিসেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার , ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

সামরিক-বেসামরিক উত্তেজনার সমাধান হয়নি পাকিস্তানে, মন্ত্রীদের পাল্টা মন্তব্য

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) অক্টোবর ১৬, ২০২১, শনিবার, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন

দৃশ্যত সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা ইন্টার-সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্সের (আইএসআই) মহাপরিচালক নিয়োগ নিয়ে পাকিস্তানের সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসনের মধ্যে সৃষ্ট উত্তেজনার কোনো সমাধান হয়নি। এখনও এ নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন বক্তব্য দিচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদ আহমেদ ও তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী। একজন যা বলছেন, অন্যজনের সঙ্গে তা মিলছে না। শুক্রবার দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদ আহমেদ বলেছেন, এক সপ্তাহের মধ্যেই এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানান তিনি। অর্থাৎ আগামী শুক্রবারের মধ্যে আইএসআইয়ের মহাপরিচালক কে হবেন তা নিশ্চিত হয়ে যাবে। কিন্তু তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী বলেছেন, গতকাল শুক্রবারও এ ইস্যুতে উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি। এর আগে তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী ঘোষণায় বলেছিলেন, শিগগিরই এ সমস্যার সমাধান হবে। তা সত্ত্বেও কেন আইএসআই মহাপরিচালক পদে নিয়োগ দিতে বিলম্ব হচ্ছে এর কারণ জানাতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদ আহমেদ। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন।
গত ৬ই অক্টোবর পাকিস্তান সেনাবাহিনীর জনসংযোগ বিষয়ক মিডিয়া উইং ইন্টার সার্ভিসেস পাবলিক রিলেশন্স (আইএসপিআর) থেকে একটি ঘোষণা দেয়া হয়। তাতে বলা হয়, আইএসআইয়ের নতুন মহাপরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে লেফটেন্যান্ট জেনারেল নাদিম আহমেদ আনজুমকে। অন্যদিকে আইএসআইয়ের বর্তমান প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ফয়েজ হামিদকে পেশোয়ার কোরের কমান্ডার হিসেবে স্থানান্তর করা হয়। এ বিষয়ে দেয়া আইএসপিআরের বিবৃতি গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করে ডন সহ পাকিস্তান ও আন্তর্জাতিক মিডিয়া। কিন্তু ঘটনা জট লাগে অন্যখানে। কারণ, আইএসআইয়ের মহাপরিচালক নিয়োগের এক্তিয়ার প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের হাতে। তিনি জানেনই না, তার সঙ্গে পরামর্শ না করেই কিভাবে এই নিয়োগ দেয়া হলো, তা নিয়ে সেনাপ্রধান জেনারেল কমর জাভেদ বাজওয়ার সঙ্গে ইমরান খানের মধ্যে অচলাবস্থা দেখা দেয়। এ জন্য ইমরান খানের সঙ্গে দফায় দফায় মিটিং করতে থাকেন সেনাপ্রধান। বিষয়টি স্পর্শকাতর হওয়ায় কেউ এ নিয়ে রাঁ করতে পারছিলেন না। কিন্তু তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরীই প্রথমে বিষয়টি গণমাধ্যমের কাছে প্রকাশ করেন। বলা হয়, আইএসআইয়ের মহাপরিচালক নিয়োগ নিয়ে সামরিক ও বেসামরিক নেতৃত্বের মধ্যে অচলাবস্থার প্রেক্ষিতে বুধবার ওই পদে প্রার্থীদের একটি সামারি তালিকা হাতে নেন ইমরান খান।
বুধবার টুইট করেন কেন্দ্রীয় তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী। তিনি বলেন, আইএসআইয়ের নতুন ডিজি নিয়োগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও সেনাপ্রধানের মধ্যে আলোচনা সম্পন্ন হয়েছে। এখন নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হবে। তিনি আরো বলেন, আরো একবার সামরিক ও বেসামরিক নেতৃত্ব এটা প্রমাণ করেছেন যে, দেশের স্থিতিশীলতা, অখ-তা ও উন্নয়নের জন্য সব প্রতিষ্ঠান ঐক্যবদ্ধ। এর আগে মঙ্গলবার মন্ত্রীপরিষদের বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে তথ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আইএসআইয়ের মহাপরিচালক পদে নিয়োগ দিতে চান সংবিধানের অধীনে। প্রতিরক্ষা বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংবিধান বা আর্মি অ্যাক্টে এই নিয়োগ প্রক্রিয়ার বিষয়ে উল্লেখ নেই। তবে এর আগে যেসব নিয়োগ দেয়া হয়েছে, সেখানে একটি রীতি অনুসরণ করা হয়েছে। তাহলো প্রধানমন্ত্রীর কাছে তিনটি নাম প্রস্তাব করেন সেনাপ্রধান। সেখান থেকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি একজনকে বেছে নেন।
এসব নিয়ে পাকিস্তানের রাজনীতি ঘোলা হয়ে উঠেছে। নানা কথা শোনা যায় মানুষের মুখে মুখে। কারণ, এ দেশটিতে সেনাবাহিনীকে অত্যন্ত শক্তিধর হিসেবে দেখা হয়। তারা একের পর এক সামরিক অভ্যুত্থান ঘটিয়ে সরকারকে হঠিয়ে দিয়েছে এ যাবত। চাপিয়ে দিয়েছে সামরিক শাসন। ফলে একরকম চাপা আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী আবার অনলাইন ডন’কে বলেছেন, আইএসআইয়ের নতুন প্রধান নিয়োগ হলো একটি ‘রুটিন ম্যাটার’। যখনই সামরিক ও বেসামরিক নেতৃত্ব একমত হবেন তখনই এ পদের ঘোষণা দেয়া হবে। অন্যদিকে একটি বেসরকারি টিভি শোতে আলোচনাকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদ বলেন, ইস্যুটি নিয়ে আন্তরিকতার সঙ্গে সামরিক ও বেসামরিক নেতৃত্ব সমাধানে এসেছেন। আগামী শুক্রবারের আগেই এ পদে নির্বাচিত ব্যক্তির নাম ঘোষণা করা হবে।
কিন্তু বিলম্বের কারণ কি? এ প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদ বলেন, তিনি কারণ জানেন। তবে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান যেহেতু এ বিষয়ে ঘোষণা দেবেন, তাই তিনি এ নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলতে চান না। অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এর পিছনে কোন দৈব কারণ থাকার বিষয় প্রত্যাখ্যান করেছেন। শেখ রশিদ বলেন, দৈব কোনো হস্তক্ষেপে ইচ্ছুকৃতভাবে এই নিয়োগ বিলম্বিত করা হচ্ছে- এমন ধারণাকে তিনি একেবারেই উদ্ভট। এক্ষেত্রে কেউ কলকাঠি নাড়ছেন, এমনটা ভাবা অযৌক্তিক।
তিনি আরো বলেন, দেশে সামরিক ও বেসামরিক নেতৃত্বের মধ্যে কোনোই মতবিরোধ নেই। তারা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাতে উভয় পক্ষই সন্তুষ্ট। তিনি আরো বলেন, বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নেতৃত্বে ক্ষমতাসীন পাকিস্তান তেহরিকে ইনসাফের (পিটিআই) পার্লামেন্টারি কমিটির মিটিং হয়েছে। সেখানে কেউই আইএসআইয়ের বর্তমান প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ফয়েজ হামিদের নাম নেননি। এ সময় মিডিয়ায় প্রকাশিত একটি রিপোর্ট এবং জাতীয় পরিষদে পিটিআইয়ের চিফ হুইপ আমির ডোগারের একটি বিবৃতি প্রত্যাখ্যান করেন মন্ত্রী শেখ রশিদ। ওইসব রিপোর্ট এবং বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী আফগানিস্তানের জটিল পরিস্থিতির কারণে আরো কিছু সময় আইএসআইয়ের মহাপরিচালক পদে লেফটেন্যান্ট জেনারেল ফয়েজকে রাখতে চান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ।
ওদিকে তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী বলেছেন, আইএসআইয়ের মহাপরিচালক নিয়োগের বিষয়টি সমাধান করা হবে কয়েক দিনের মধ্যে। এ বিষয়ে তিনি বিস্তারিত বলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। শুধু বলেছেন, শুক্রবার এ ইস্যুতে উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর