× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৭ ডিসেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ
কলকাতা কথকতা       

সেলফির নেশা একের পর এক প্রাণ কাড়ছে, রবিবার ঝিলে তলিয়ে গেল বালিগঞ্জের কিশোর

কলকাতা কথকতা

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা   
(১ মাস আগে) অক্টোবর ১৭, ২০২১, রবিবার, ৭:২০ অপরাহ্ন

সেলফি তোলার নেশা একটির পর একটি প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে। রবিবার মোবাইলে সেলফি তুলতে গিয়ে বারুইপুরের একটি ঝিলে তলিয়ে গেল আদি বালিগঞ্জ হাইস্কুলের একাদশ শ্রেণির ছাত্র বাবাই দাস। রবিবার বিকেলে তার নিস্পন্দ দেহটি তোলা হয় জল থেকে।  দুই বন্ধুর সঙ্গে বাবাই শনিবার রাতে বেড়াতে গিয়েছিল বারুইপুরে এক আত্মীয়'র বাড়িতে। সেলফিতে ছবি  এবং ছোট ছোট ভিডিও তোলার ব্যাপারে বাবাইয়ের জনপ্রিয়তা বাড়ছিল সমবয়সীদের মধ্যে। রবিবার দুপুরে বন্ধুদের নিয়ে সেলফি তোলার নেশায় বারুইপুরের একটি ঝিলের  পাশে একটি পাথরের স্তুপের ওপর উঠেছিল বাবাই।  কিন্তু পা পিছলে সে ঝিলের জলে পড়ে  যায়। সাঁতার জানতো না বাবাই।  সে জলে তলিয়ে যেতে থাকে। বন্ধুরা অবস্থা বেগতিক দেখে একটি গাছের ডাল এগিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে ডুবন্ত বাবাইয়ের দিকে। কিন্তু সে ডালটি ধরার আগেই তলিয়ে যায়। এরপর বন্ধুরা লোকজন ডেকে আনে। বাবাই দাসের নিস্পন্দ দেহ তারাই উদ্ধার করে। বাবাইয়ের মা জানাচ্ছেন যে, মাধ্যমিক উত্তীর্ণ হওয়ার পর বাবাইকে মোবাইল কিনে দেয়া হয়েছিল। সেলফি তোলা এবং ভিডিও বানিয়ে ফেসবুকে আপ করাটা তার নেশা হয়ে গিয়েছিল।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর